তরুণ উদ্যোক্তা তৈরিতে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ

প্রকাশিত: ০৭:৩৭, ১৩ জুন ২০১৯

আপডেট: ১০:০৭, ১৩ জুন ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: এবারের বাজেটে উল্লেখযোগ্য দিক হলো তরুণদের উদ্যোক্তা হিসেবে তৈরি করতে উদ্যোক্তা তহবিল গঠন, রেমিটেন্স পাঠাতে নগদ প্রণোদনা এবং কৃষক রক্ষায় শস্য বীমা চালু। এছাড়া দারিদ্র্য নিরসন ও সামাজিক ন্যায়বিচার প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে প্রস্তাবিত বাজেটে বাড়ানো হয়েছে সামাজিক সুরক্ষা খাতের আওতা। যা বরাদ্দের দিক থেকে বাজেটের ১৪.২১ শতাংশ।

দেশের বিপুল সংখ্যক জনশক্তিকে কাজে লাগিয়ে অর্থনৈতিক অগ্রগতির ধারা অব্যাহত রাখতে নতুন চমক রয়েছে প্রস্তাবিত বাজেটে। মোট জনশক্তির এক-তৃতীয়াংশ যুবসমাজকে সুসংগঠিত, সুশৃঙ্খল এবং উৎপাদনমুখী শক্তিতে রূপান্তর করতে কার্যকর পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার। তরুণ উদ্যোক্তা সৃষ্টি করতে ১০০ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে প্রস্তাবিত বাজেটে। এছাড়া ২০৩০ সালের মধ্যে তিন কোটি মানুষের কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে বেকারত্ব দুর করতে বিশেষ জনগোষ্ঠীর প্রশিক্ষণ ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির জন্যও ১০০ কোটি টাকা প্রস্তাব করা হয়েছে।

বর্তমানে বিদেশে প্রবাসী রয়েছে প্রায় এক কোটি। ৮ থেকে ৯ লাখ মানুষ বিদেশে পাড়ি জমাচ্ছেন প্রতিবছর। বিভিন্ন ঝুঁকির কথা চিন্তা করে এবার তাদের আনা হচ্ছে বীমার আওতায়। এটি এবারের বাজেটের নতুন উদ্যোগ। বৈধ চ্যানেলে রেমিট্যান্স প্রবাহ বৃদ্ধি ও হুন্ডি ব্যবসা নিরুৎসাহিত করতে প্রবাসী বাংলাদেশিদের পাঠানো অর্থের ওপর আগামী অর্থবছর হতে ২ শতাংশ হারে প্রনোদনা দেয়া হবে।

প্রাকৃতিক দুর্যোগে ফসলহানী নিত্যনৈমিত্তিক। এই ক্ষতি থেকে কৃষকদের রক্ষায় ‘শস্য বীমা’ পাইলট প্রকল্প হিসেবে চালুর প্রস্তাব করা হয়েছে বাজেটে।

সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের মূল কর্মসূচিগুলোর আওতা ও পরিধি বাড়ানো হয়েছে। আগামী পাঁচবছরে এটিকে দ্বিগুণ করতে নতুন অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে বরাদ্দ রাখা হয়েছে ৭৪ হাজার ৩৬৭ কোটি টাকা। যা বাজেটের ১৪.২১ শতাংশ।

মুক্তিযোদ্ধাদের সম্মানী ভাতা দুই হাজার টাকা বাড়িয়ে এবার করা হয়েছে ১২ হাজার টাকা। বয়স্ক ভাতাভোগীর সংখ্যা ৪০ লাখ থেকে বাড়িয়ে করা হয়েছে ৪৪ লাখ। অস্বচ্ছল প্রতিবন্ধি সুবিধাভোগীদের সংখ্যা প্রায় ছয় লাখ বাড়িয়ে করা হয়েছে ১৫ লাখ ৪৫ হাজার। ক্যান্সার, কিডনি, লিভার সিরোসিস, স্ট্রোকে প্যারালাইজড ও জন্মগত হৃদরোগীদের আর্থিক সহায়তা কর্মসূচির উপকারভোগী সংখ্যা ১৫ হাজার থেকে বাড়িয়ে দ্বিগুন করা হয়েছে। দরিদ্র মায়েদের জন্য মাতৃত্বকালীন ভাতাভোগী, কর্মজীবী ল্যাকটেটিং মায়েদের সহায়তার আওতা বাড়ানোরও প্রস্তাব করা হয়েছে ২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে।

 

এই বিভাগের আরো খবর

শিগগিরই কলেজে ভর্তি শুরু; সংসদে শিক্ষামন্ত্রী

নিজস্ব প্রতিবেদক: এক মাসের ও বেশি সময়...

বিস্তারিত
সংসদে ২০২০-২১ অর্থবছরের বাজেট পাস

মেহের মণি: নতুন অর্থবছরের জন্য পাঁচ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *