সবজি উৎপাদনে বাংলাদেশ বিশ্বে তৃতীয়

প্রকাশিত: ০৯:০৬, ০৬ জুলাই ২০১৯

আপডেট: ০২:৪৫, ১৩ অক্টোবর ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: ৪৮ বছরে দেশে সবজি উৎপাদন পাঁচগুণ বেড়েছে। সবজির বার্ষিক উৎপাদন বৃদ্ধির হার বিবেচনায় বাংলাদেশ বিশ্বে তৃতীয়। উৎপাদনে বিল্পব ঘটলেও দেশে সবজির ঘাটতি যেমন আছে তেমনি খাদ্য নিরাপত্তার বিষয়টিও সংশয়মুক্ত নয়। সংরক্ষণের অভাবে অনেক সবজি নষ্টও হয়।

কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের তথ্য বলছে, দেশে আবাদি জমি সাড়ে ৮ মিলিয়ন হেক্টর, যার সিংহভাগে দানাদার শস্য চাষ হয়। মোট আবাদীর মাত্র ৯ ভাগ জমিতে সবজি চাষ করা হচ্ছে। এতে গড়ে মাথা পিছু প্রতিদিন ১২৫ গ্রাম সবজি পাওয়া যাচ্ছে। পুষ্টিবিজ্ঞানীরা বলছেন সুস্থ মানুষের জন্য প্রতিদিন প্রয়োজন ২৫০ থেকে ৩০০ গ্রাম শাক-সবজি।

২০০৬ সালে যেখানে ছিল ২০ লাখ ৩৩ হাজার মেট্রিক টন ছিল সেখানে গেল ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে দেড় কোটি মেট্রিকটন সবজি উৎপাদন হয়েছে। দেশের উত্তর এবং দক্ষিণাঞ্চলে সবজি চাষে সবচে বেশি সাফল্য এসেছে।  হাইব্রিড বীজ ও সারের ব্যবহার বিপ্লবের কারণ। লাভও বেশি, তাই চাষীরা আগ্রহী হচ্ছে সবজিতে। চাষে এখনও সনাতনী পদ্ধতীর ব্যবহারআছে অনেক জায়গায়, কারণ কৃষক পর্যায়ে সর্বত্র প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা সম্ভব হয়নি।

সবজি চাষের ক্ষেত্রে সংগ্রহত্তোর অপচয় এখনও রোধ করা সম্ভব হয়নি। বিশেষজ্ঞদের অভিমত উৎপাদনের শতকরা ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ সবজি এখনও মাঠেই নষ্ট হয়। যা রোধ করা সম্ভব হলে উৎপাদন ঘাটতি কমানো সম্ভব হবে। এ বিষয়ে পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়েছে বলে জানান এই কর্মকর্তা।

দেশের গবেষকরা বীজ উৎপাদনে কিছু সফলতা পেলেও সবজির হাইব্রিড বীজ এখনও আমদানি নির্ভর। লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে গবেষণার ধারাবাহিকতা রক্ষার পরামর্শ রয়েছে। রাসায়নিক ব্যবহারে কৃষকদের সচেতন করা হয়নি। ফলে সবজি চাষে স্বাস্থ্য ঝুঁকির বিষয়টি নিশ্চিতভাবে দূর করা যায়নি।

ওষধি গাছের মধ্যে ঘৃতকুমারী জনপ্রিয় হচ্ছে, পরিকল্পিতভাবে বেশ কিছু এলাকায় চাষ শুরু হয়েছে। অন্য ঔষধীগুলোর ক্ষেত্রে এমনটি হয়নি এখনও।  

 

এই বিভাগের আরো খবর

স্কোয়াশ খেলার কোর্ট তৈরি করতে পারেনি 

এস.এম সুমন: প্রতিষ্ঠার পর ৪৪ বছরে...

বিস্তারিত
স্কোয়াশ খেলা: প্রতিযোগিতা হয় কালেভদ্রে

এস.এম সুমন: পশ্চিমা দেশগুলোর আদলে...

বিস্তারিত
রোয়িং খেলোয়াড় ও সংগঠকরা হতাশ

তৌহিদুল আলম: নিজেদের খেলা চর্চা করারই...

বিস্তারিত
রোয়িং: মনের টানে খেলেন ক্রীড়াবিদরা 

তৌহিদুল আলম: আর্থিক সঙ্কট ও পর্যাপ্ত...

বিস্তারিত
রোয়িং: ৪৫ বছরেও উল্লেখযোগ্য সাফল্য নেই 

তৌহিদুল আলম: প্রতিষ্ঠার  ৪৫ বছর...

বিস্তারিত
রোয়িং: খেলাটি সম্পর্কে ধারণা প্রতিষ্ঠা হয়নি

তৌহিদুল আলম: পশ্চিমা দেশগুলোর আদলে...

বিস্তারিত
খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে শরীরগঠন ফেডারেশন

ইমদাদুল্লাহ বাবু: সরকার জনগণের প্রায়...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *