সবজির ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত কৃষক

প্রকাশিত: ০৯:১২, ০৬ জুলাই ২০১৯

আপডেট: ০২:৪৬, ১৩ অক্টোবর ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে সবজির ক্রমবর্ধমান বাজার টাকার অংকে কতো বড় তার হিসেব নেই কোথাও। তবে প্রতিবছর বিশ্বের পঞ্চাশটি দেশে প্রায় সাতশ’ কোটি টাকার সবজি রপ্তানি হয়, এই তালিকায় নেই ঔষধি গাছ। রপ্তানির জন্য কিছু এলাকায় পরিকল্পিতভাবে সবজির চাষ হচ্ছে। মুষ্টিমেয় কিছু কৃষক ছাড়া অধিকাংশ কৃষক উৎপাদিত সবজির ন্যায্যমূল্য থেকে বঞ্চিত হচ্ছে বলে অভিযোগ আছে।

রাজধানীর অদূরে সিংড়া উপজেলায় কৃষক আবুল কাশেম জাংলায় চালকুমড়া চাষ করেন পাঁচ বছর ধরে। চল্লিশ বছরের কৃষক জীবনে নানা ফসলের আবাদ করেছেন। কিন্তু লাভ বেশি বলে গেল পনেরো বছর ধরে সবজি চাষে  ঝোঁক। তাঁর মতো অনেক চাষীই এখন ফসলী মাঠে বাণিজ্যিকভাবে সবজি চাষ শুরু করেছে।

তবে ঢাকার অদূরের গ্রামীণ হাটে এসব চাষীদের তাজা সবজির যে দাম,  ঢাকায় এসেই তার দাম হচ্ছে কমপক্ষে তিনগুণ বেশি। লাভের বড় অংশ পাচ্ছেনা চাষী, কিন্তু ভোক্তারা সবজি কিনছে উচ্চমূল্যে।

উৎপাদিত সবজির ন্যায্য মূল্য না পেয়ে ফসল নষ্ট করার মতো ঘটনাও দেখা যায় এই খাতে। লাভের মূল অংশ নিয়ে যায় যে মধ্যসত্ত্বভোগীরা, তাদের আছে নানা ব্যাখ্যা। সবজি চাষীদের জন্য ব্যাংক ঋণের পৃথক সুযোগ না থাকায় আছে কৃষকদের আক্ষেপ।

উৎপাদন বাড়লেও সংরক্ষণের তেমন ব্যবস্থা গড়ে ওঠেনি দেশে। দ্রুত পঁচনশীল বলে দ্রুত কমমূল্যে বিক্রি করতে হয় কৃষকদের। যা সবজি চাষে বড় সীমদ্ধতা।

দেশে দেশে সবজির বড় বাজার আছে। লাউ, পটল, সীম, কচুর লতি, কচু, কাকরোলসহ প্রায় সব ধরনের সবজি যাচ্ছে সেসব বাজারে। সেসবের ক্রেতা মূলত প্রবাসী বাংলাদেশীরা। চলছে মূল বাজারে প্রবেশের চেষ্টা।

ঘৃতকুমারী, আমলকী, হরতকী, অর্জুনসহ ঔষধীর ক্ষেত্রে দেশে বিক্ষিপ্ত বাজার দেখা গেলেও পরিকল্পিত বাজার হয়নি। ঔষধীকেও পরিকল্পনার আওতায় আনার উদ্যোগ নিচ্ছে কৃষি বিভাগ।    

 

এই বিভাগের আরো খবর

স্কোয়াশ খেলার কোর্ট তৈরি করতে পারেনি 

এস.এম সুমন: প্রতিষ্ঠার পর ৪৪ বছরে...

বিস্তারিত
স্কোয়াশ খেলা: প্রতিযোগিতা হয় কালেভদ্রে

এস.এম সুমন: পশ্চিমা দেশগুলোর আদলে...

বিস্তারিত
রোয়িং খেলোয়াড় ও সংগঠকরা হতাশ

তৌহিদুল আলম: নিজেদের খেলা চর্চা করারই...

বিস্তারিত
রোয়িং: মনের টানে খেলেন ক্রীড়াবিদরা 

তৌহিদুল আলম: আর্থিক সঙ্কট ও পর্যাপ্ত...

বিস্তারিত
রোয়িং: ৪৫ বছরেও উল্লেখযোগ্য সাফল্য নেই 

তৌহিদুল আলম: প্রতিষ্ঠার  ৪৫ বছর...

বিস্তারিত
রোয়িং: খেলাটি সম্পর্কে ধারণা প্রতিষ্ঠা হয়নি

তৌহিদুল আলম: পশ্চিমা দেশগুলোর আদলে...

বিস্তারিত
খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে শরীরগঠন ফেডারেশন

ইমদাদুল্লাহ বাবু: সরকার জনগণের প্রায়...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *