ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ আগস্ট ২০১৯, ৭ ভাদ্র ১৪২৬

2019-08-21

, ১৯ জিলহজ্জ ১৪৪০

মধ্যাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি

প্রকাশিত: ১০:৫৭ , ২৩ জুলাই ২০১৯ আপডেট: ১২:০০ , ২৩ জুলাই ২০১৯

ডেস্ক প্রতিবেদন: মধ্যাঞ্চলের বন্যা পরিস্থিতির আরো অবনতি হয়েছে। সেই সাথে মুন্সিগঞ্জ, ফরিদপুর ও শরীয়তপুরে পদ্মার তীব্র ভাঙ্গন দেখা দিয়েছে। শেরপুর-জামালপুর সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

তবে উত্তরাঞ্চলে বিভিন্ন নদ-নদীর পানি কিছুটা কমছে। দেখা দিচ্ছে পানি বাহিত নানা রোগ। কাঁঠালবাড়ি-শিমুলিয়া নৌরুটে ফেরি চলাচলে কিছুটা উন্নতি হয়েছে।

দেশের উত্তরাঞ্চলে বন্যা পরিস্থিতির কিছুটা উন্নতি হয়েছে। পানি নামতে শুরু করলেও ছড়িয়ে পড়ছে পানিবাহিত নানা রোগ।  কিছুটা উন্নতি ফেরি চলাচলে হয়েছে।

এদিকে, মধ্যাঞ্চলে বাড়ছে বন্যার পানি। মানিকগঞ্জ, ফরিদপুর ও শরীয়তপুরে দেখা দিয়েছে পদ্মার তীব্র ভাঙ্গন।

মানিকগঞ্জে আরিচা পয়েন্টে যমুনার পানি বিপদসীমার ১৩ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে বইছে। এছাড়া কালিগঙ্গা, ইছামতি, ধলেশ্বরীসহ অন্যান্য শাখানদীর পানি বৃদ্ধি অব্যাহত রয়েছে।

ফরিদপুরের বন্যা পরিস্থিতি কিছুটা হলেও সদরপুর উপজেলায় আড়িয়াল নদে পানি বেড়ে তিনটি চরাঞ্চরের মানুষ। শেরপুর থেকে জামালপুর ও উত্তর বঙ্গের সাথে সড়ক যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে।

সিরাজগঞ্জে গত তিন দিনে তাড়াশ উপজেলার ছয়টি ইউনিয়নের বিভিন্ন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

টাঙ্গাইলে যমুনার পানি কমলেও দুর্ভোগ কমেনি বানভাসি মানুষের। ছড়িয়ে পড়ছে পানিবাহিত নানা রোগ। দেখা দিয়েছে গবাদিপশুর খাদ্য সংকট।

এদিকে, জামালপুরে সড়ক ডুবে যাওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জেলার যোগাযোগ ব্যবস্থা। বন্ধ রয়েছে দেড় হাজারেরও বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

এছাড়া গাইবান্ধায় ঘাঘট ও ব্রহ্মপুত্র নদের পানি কমতে শুরু করায় বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হতে শুরু করেছে। আশ্রয় কেন্দ্র, নদীর বাধে ও রাস্তার ধারে খোলা আকাশের নিচে খেয়ে না খেয়ে গত এক সপ্তাহ থেকে মানবেতর জীবন যাপন করছে এসব বানভাসী মানুষ। ছড়িয়ে পড়েছে বিভিন্ন ধরনের পানি বাহিত রোগ। দূর্গত এলাকাগুলোতে দেওয়া হচ্ছে না পর্যাপ্ত ত্রান।  

এই বিভাগের আরো খবর

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is