সাবেক ছাত্র নেতাদের স্মৃতিতে বঙ্গবন্ধু

প্রকাশিত: ১১:১৪, ০৮ আগস্ট ২০১৯

আপডেট: ১০:১২, ০৮ আগস্ট ২০১৯

গোলাম মোর্শেদ: বাংলাদেশের জন্য শোকাবহ মাস আগস্ট। স্বাধীনতার জন্য দীর্ঘ রাজনৈতিক সংগ্রাম ও সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের কিংবদন্তী নেতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট হত্যা করা হয়েছিল। স্বাধীন বাঙালী জাতির জনককে স্মরণ মানেই যেন শুধু তাঁর দীর্ঘ ত্যাগী রাজনৈতিক জীবন, সংগ্রাম, নেতৃত্ব আর দেশ গড়ার স্বপ্নের আলোচনা। সেসবের পাশাপাশি বঙ্গবন্ধুর সাহচর্য পাওয়া সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রের মানুষেরা এবার বৈশাখী টেলিভিশনকে ব্যক্তি শেখ মুজিব নিয়েও তাদের স্মৃতির কথা বলেছেন। ব্যক্তি ও রাজনীতিক বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে সাক্ষাৎকার ভিত্তিক ধারাবহিক আয়োজনে আজ ছাত্র রাজনীতির ক’জন ব্যক্তিত্বের স্মৃতি কথা।

তারুণ্যে ছাত্র রাজনীতির ভেতর বেড়ে ওঠার সময় শেখ মুজিব পেয়েছেন বহু জাতীয় নেতার সান্নিধ্য। নিজে দেশ স্বাধীনের সংগ্রামে যখন নেতৃত্ব দেন, তখন তাঁরও সান্নিধ্য পেয়েছে সেসময়ের বহু ছাত্র নেতা। স্বাধীনতার পরও তাঁর স্নেহধন্য ছিলেন অন্য মতের ছাত্র নেতারাও।

মাহবুব জামান জানান, ‘মুক্তিযুদ্ধের পর প্রথম দেখা, ডাকসু নেতা হওয়ায় আমাকে ডাকতেন ছোট নেতা বলে’

বাহালুল মজনু চুন্নু বলেন, ১৯৬৯সালে একাদশ শ্রেণীর ছাত্র, ফরিদপুরে প্রথম দেখা, সমাবেশে কবিতা আবৃত্তি শুনিয়েছিলেন’

শেখ শহিদুল ইসলাম বলেন, ১৯৬৯ সালে ডেকে বললেন, পদ ছেড়ে দিতে’

ছাত্র রাজনীতি ও তারুণ্যের শক্তির ওপর এক বিশেষ আস্থার জায়গা ছিল বঙ্গবন্ধুর। জাতির জনকের সান্নিধ্য পাওয়া ক’জন সাবেক ছাত্র নেতার স্মৃতি সেই আভাস মেলে।

বাহালুল মজনু চুন্নু বলেন, কর্মীদের নানা চাওয়া পাওয়ার কথা শুনতেন, স্বাধীনতার পর অনেকেই দুর্নীতিতে জড়িয়ে পড়ায় ছাত্রদের সহযোগিতা চান।’

শেখ শহিদুল ইসলাম বলেন, ৪৭ দেশভাগের সাথে বঙ্গবন্ধুর চিন্তার মিল ছিলনা। তার বড় শক্তি ছিল তরুণ সমা ‘।

মাহবুব জামান বলেন, যুদ্ধের পর দেখা করতে গিয়েছিলাম, তিনি চিনে ফেলেন, বলেন এইতো সাউটিং গেরিলা বয়; মানুষকে মনে রাখার গুন ছিল তার (বঙ্গবন্ধু)।’

মূল্যবোধ ও নীতিনৈতিকতায় তরুণদের উজ্জীবিত করার চেষ্টা বঙ্গবন্ধুর মধ্যে দেখেছেন ছাত্র নেতারা।

১৯৭৫ সালের ১৫ই আগষ্ট ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রদের অনুষ্ঠানে যোগ দেবার কথা ছিল জাতির জনকের। তাই ছাত্র নেতাদের ছিল নানা আয়োজন, যার সব ভেসেছিল তাদের চোখের জলে। 

বাহালুল মজনু চুন্নু বলেন, বঙ্গবন্ধুকে  গার্ড অবার অনার দেব আশা পূরন হয়নি’

শেখ শহিদুল ইসলাম বলেন, আগের রাতে বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করে আশংকার কথা বলি, উনি বলেন ঘাবড়ায়ে গেছিস নাকি; সব ঠিক করে ফেলবো’

মাহবুব  জামান বলেন, হত্যার পর কেউ প্রস্তাব আনেনি, ছাত্ররাই প্রথম প্রস্তাব আনে সিনেটে। সামরিক জান্তাদের রক্তচক্ষু উপেক্ষা করে... এখনকার প্রজন্মকেও বঙ্গবন্ধুর সাথে যোগসূত্র করে দিতে হবে’।

 

এই বিভাগের আরো খবর

স্বজনদের স্মৃতিতে বঙ্গবন্ধু

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশের জন্য...

বিস্তারিত
ব্যবসায়ীদের স্মৃতিতে বঙ্গবন্ধু

নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশের জন্য...

বিস্তারিত
প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের স্মৃতিতে বঙ্গবন্ধু

কাজী বাপ্পা: বাংলাদেশের জন্য শোকাবহ...

বিস্তারিত
বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে নারী ব্যক্তিত্বের স্মৃতিকথা

লাবণী গুহ: বাংলাদেশের জন্য শোকাবহ মাস...

বিস্তারিত
গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের স্মৃতিতে বঙ্গবন্ধু

কাজী বাপ্পা: বাংলাদেশের জন্য শোকাবহ...

বিস্তারিত
অর্থনীতিবিদদের স্মৃতিতে বঙ্গবন্ধু

মেহের মনি : বাংলাদেশের জন্য শোকাবহ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *