রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতি মেলনি ১৫ আগস্টের প্রতিরোধ যোদ্ধাদের

প্রকাশিত: ১০:৫৪, ১৫ আগস্ট ২০১৯

আপডেট: ০৮:৪৫, ১৫ আগস্ট ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্বপরিবারে হত্যার প্রতিবাদে গর্জে উঠেছিল একদল তরুণ দামাল যোদ্ধা। বাংলাদেশের উত্তর-পূর্ব সীমান্ত এলাকা শেরপুরের নালিতাবাড়ীতে গড়ে তোলে প্রতিরোধ যুদ্ধ। সেদিনের প্রতিশোধ প্রত্যাশীদের অনেকেই আজ প্রয়াত। যারা বেঁচে আছেন তারা অনেকেই দুর্দশাগ্রস্ত জীবনযাপন করছেন। জীবনের শেষ সময়ে এসে তাদের প্রত্যাশা, রাষ্ট্রীয় স্বীকৃতির।

পঁচাত্তরের ১৫ আগস্ট। ঘাতকের গুলিতে স্বপরিবারে শহীদ হন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। নির্মম এই হত্যাকান্ডের প্রতিবাদে শেরপুর জেলার নালিতাবাড়ী উপজেলার সীমান্তবর্তী চৌকিদার টিলায় প্রতিষ্ঠা করা হয় ‘প্রতিরোধ যোদ্ধা’ নামে একটি সংগঠন। 

বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী ভারতের মেঘালয়, আসাম ও ত্রিপুরার বনাঞ্চলে আশ্রয় নিয়ে দীর্ঘ বাইশ মাস ধরে ৩৭৫ জন যুবক চালিয়ে যান প্রতিরোধ যুদ্ধ। এতে, প্রাণ হারান অনেকেই। যারা বেঁচে ছিলেন তাদের অনেকেই এখন প্রয়াত। তবে যারা বেঁচে আছেন এখনো, জীবন সায়াহ্নে দাঁড়িয়েও তারা স্বপ্ন দেখেন বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের দেশ গড়ার। 

প্রতিরোধ যোদ্ধারা জানান, কোন চাওয়া পাওয়া থেকে তাঁরা বঙ্গবন্ধু হত্যার প্রতিবাদ করেননি। তবে আজ পর্যন্ত কোন মুল্যায়ন না হওয়ার ক্ষোভ রয়েছে তাঁদের। 

তাই, প্রতিরোধ যোদ্ধাদের তালিকা করে তাদের মুক্তিযোদ্ধার সমমর্যাদা দেয়ার দাবি জানালেন এই মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার। 

বঙ্গবন্ধুর হত্যার প্রতিবাদকারী এই প্রতিরোধ যোদ্ধারা জীবনভর নানাভাবে অবহেলিত হয়েছেন। অনেকেই হয়েছেন সর্বস্বান্ত। তবুও জীবনের শেষ দিন পর্যন্ত বঙ্গবন্ধুর আদর্শে পথচলার প্রত্যয় তাঁদের কণ্ঠে। 

এই বিভাগের আরো খবর

দৃশ্যমান হলো পদ্মা সেতুর পৌনে ৩ কিলোমিটার

নিজস্ব প্রতিবেদক: এগিয়ে যাচ্ছে পদ্মা...

বিস্তারিত
মাদারীপুরে বিক্ষোভের ঘটনায় আটক ২৫

মাদারীপুর সংবাদদাতা: মাদারীপুরের...

বিস্তারিত
দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত আমরন অনশন

নিজস্ব সংবাদদাতা: বকেয়া মজুরি প্রদান...

বিস্তারিত
বরগুনায় নলকূপ স্থাপনে অনিয়ম

নিজস্ব সংবাদদাতা: বরগুনায় জেলা...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *