চাকরিচ্যুত হতে পারেন জামালপুরের  ডিসি

প্রকাশিত: ০৩:৪৯, ২৬ আগস্ট ২০১৯

আপডেট: ০৪:১৫, ২৬ আগস্ট ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: ভিডিও কেলেঙ্কারির অভিযোগ প্রমাণিত হলে জামালপুরের বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরের চাকরি চলে যেতে পারে অথবা নীচের পদে নামিয়ে দেয়া হতে পারে বলে জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম।

আজ সোমবার (২৬ আগস্ট)  মন্ত্রিসভার বৈঠক শেষে ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি  এ তথ্য দেন।

প্রশাসনের কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে অতীতে এমন অভিযোগ হলেও শাস্তি হয়নি কেন- প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, শাস্তি হবে ইনশাল্লাহ। ওটা মন্ত্রিসভায় আলোচনা হয়নি। তদন্তে প্রমাণিত না হলে শাস্তি দেওয়া কঠিন।

‘আমরা কমিটি করে দিয়েছি। কমিটি দেখবে। কমিটি নিরপেক্ষভাবে দেখবে এবং টেকনিক্যালি এটার মধ্যে যদি কোনো ম্যাসুপুলেশন থাকে, সেটাও যাচাই করবে টেকনিক্যাল এক্সপার্ট দিয়ে। এ জন্য এক্সপার্ট রাখা হয়েছে। যদি দোষী সাব্যস্ত হয় তাহলে আইনানুগভাবে শাস্তি হবে।’

ডিসি অফিসের এক নারীকর্মীর সঙ্গে আপত্তিকর ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে ব্যাপক সমালোচনার মধ্যে ডিসি আহমেদ কবীরকে ওএসডি করা হয়। অভিযোগ তদন্তে একটি কমিটিও গঠন করেছে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

ওএসডি ডিসির বিরুদ্ধে কী ব্যবস্থা নেওয়া হবে- প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, পাবলিক সার্ভেন্টদের জন্য ডিসিপ্লিন আপিল রুল যেটা, এটা বলে যে, তার ডিসমিস্যাল হতে পারে চাকরি থেকে, রিমুভাল হতে পারে অথবা নিচের পদে নামিয়ে দেওয়া হতে পারে। মানে গুরুদণ্ড হতে পারে।

ডিসির বিষয়ে তদন্ত কমিটিকে শুধু ভিডিও’র বিষয়ে ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে, তার বিরুদ্ধে অন্যান্য অনিয়মের তদন্ত হবে কি-না- প্রশ্নে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, এগুলো তদন্তে বেরিয়ে আসতে পারে। এ কমিটি আমলে নিতে পারবে।

এই বিভাগের আরো খবর

আদালতের বাইরে সম্রাট সমর্থকদের বিক্ষোভ

নিজস্ব প্রতিবেদক: যুবলীগ ঢাকা মহানগর...

বিস্তারিত
খুলনায় বন্দুকযুদ্ধে ৪ জলদস্যু নিহত

ডেস্ক প্রতিবেদক: সুন্দরবনে র‌্যাব-৬...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *