ঢাকা, রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

2019-09-15

, ১৫ মহররম ১৪৪১

ঢাকায় দৈনিক এক কোটিরও বেশি পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার

প্রকাশিত: ০৯:৫১ , ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ আপডেট: ১১:৩৮ , ০৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯

ইমদাদুল্লাহ বাবু : আবার ফিরে এসেছে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ। বাজারে যাওয়া সবার হাতে হাতে এই ব্যাগ। বেসরকারি এক জরিপ বলছে, কেবল রাজধানীতেই প্রতিদিন এক কোটিরও বেশি পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার হয়। পলিথিন বর্জ্য নগরে জলাবদ্ধতার কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে, ক্ষতি করছে পরিবেশের। এর জন্য আইনের প্রয়োগ না থাকাকে দুষছেন সংশ্লিষ্টরা।

রাজধানীসহ সারাদেশে অবাধে ব্যবহার হচ্ছে পরিবেশ ও জীববৈচিত্র্যের জন্যে ক্ষতিকর পলিথিন ব্যাগ। কোন পণ্য বা সামগ্রি কিনলেই দোকানীরা সেগুলো পলিথিন ব্যাগে ভরে তুলে দিচ্ছে ভোক্তাদের হাতে।

২০০২ সালে আইন করে পলিথিন ব্যাগ সরকার নিষিদ্ধ করলেও তা মানছে না কেউ। নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ আবার বাজারে কিভাবে এলো ? বাজার থেকে পাওয়া সূত্র ধরে উৎপাদনস্থল পুরান ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় গেলে দেখা যায়, প্রায় প্রতিটি অলিগলিতে পলিথিন ব্যাগ তৈরির ছোট ছোট কারখানা। কারখানা থেকে এসব পলিথিন ব্যাগের চালান চলে যায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন জেলায়। পরিবেশ অধিদপ্তর ও স্থানীয় প্রশাসনকে ম্যানেজ করেই বছরের পর বছর ধরে চলছে কারখানাগুলো। নিরাপত্তাজনিত কারণে এ নিয়ে ক্যামেরার সামনে কথা বলতে চাননা কারখানার মালিকরা।

পলিথিনের উৎপাদন, বিপণন ও ব্যবহার নিষিদ্ধ করে ২০০২ সালের আইনে ১০ বছর কারাদন্ড ও ১০ লাখ টাকা জরিমানার বিধান আছে। বিস্কুট ও চানাচুরের মোড়ক হিসেবে ব্যবহারের জন্য একটি নির্দিষ্ট পুরুত্বের পলিথিন ব্যবহারে ছাড় দেয়া হয় একটি প্রজ্ঞাপন জারি করে। র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম জানান, এই সুযোগের অপব্যবহার করে উৎপাদন করা হচ্ছে নিষিদ্ধ পলিথিন ব্যাগ।

বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন-বাপার পরিসংখ্যান বলছে- ঢাকায় প্রতিদিন অন্তত ২০ লাখ পরিবার সর্বনিু ৫টি করে পলিথিন ব্যাগ ব্যবহার করে। সে হিসেবে গড়ে, ১ কোটি ব্যাগের ব্যবহার হচ্ছে নগরীতেই। কিন্তু, এগুলো সঠিকভাবে ধ্বংস করা হচ্ছে না। ফলে, নগরজুড়ে জলাবদ্ধতা ও মারাত্মকভাবে হচ্ছে পরিবেশ দূষণ।

তবে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী শাহাব উদ্দিন জানিয়েছেন, পলিথিন ব্যাগ বন্ধে সরকার আন্তরিক। সম্প্রতি বিকল্প হিসেবে পাটের ব্যাগের ব্যবহার বাড়াতে কাজ শুরু করেছে সরকার। এ ব্যাপারে নাগরিকদের আরো সচেতন হওয়ার আহ্বান জানান মন্ত্রী।
 

এই বিভাগের আরো খবর

প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন প্রশিক্ষণ ব্যয়: অনুসন্ধানের জেরে হুমকি

কাজী ফরিদ: দেড়শ’ কোটি টাকার নির্বাচনী প্রশিক্ষণে কিছু কর্মকর্তা ও কর্মচারীর ব্যক্তিগত আয় রাতারাতি বেড়েছে। ব্যয়ে আছে অনিয়ম, অস্বচ্ছতা...

নির্বাচনী প্রশিক্ষণ: কেনাকাটার রশিদের ঠিকানায় রেস্টুরেন্ট ও দোকান নেই

কাজী ফরিদ: ঢাকায় নির্বাচনী প্রশিক্ষণ ব্যয়ের কিছু ভুতুরে রশিদের কপি মিলেছে বৈশাখী টেলিভিশনের অনুসন্ধানে। কেনাকাটার রশিদের ঠিকানায় নেই...

নির্বাচনী প্রশিক্ষণ: খাবারসহ নানা খাতে অস্বাভাবিক খরচ

কাজী ফরিদ: বিগত সংসদ ও উপজেলা নির্বাচনে ঢাকায় অনুষ্ঠিত প্রশিক্ষণগুলোয় প্রশিক্ষণার্থীদের এক কাপ চা ৫০ টাকা দরে “খাইয়েছে” নির্বাচনী...

নির্বাচনী প্রশিক্ষণ: আর্থিক সুবিধা নিয়েছেন অধস্তন কর্মকর্তারাও

কাজী ফরিদ: সংসদ ও উপজেলা নির্বাচনের প্রশিক্ষণ থেকে কিছু উর্ধতন সরকারি কর্মকর্তা যে কৌশলে বিশাল অংকের টাকা আয় করেছেন, তেমন প্রবণতা তাদের...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is