ঢাকা, রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ৩১ ভাদ্র ১৪২৬

2019-09-15

, ১৫ মহররম ১৪৪১

আকাশ পথে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রী বেড়েছে দ্বিগুণ

প্রকাশিত: ০৯:৪৮ , ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯ আপডেট: ১১:২০ , ১০ সেপ্টেম্বর ২০১৯

রীতা নাহার: আকাশ পথে যাত্রী পরিবহনের চাহিদা ও গুরুত্ব দিন দিন বাড়ছে। গত তিন বছরে অভ্যন্তরীণ রুটে আকাশ পথের যাত্রী বেড়েছে দ্বিগুণ। জাতীয় পতাকাবাহী এয়ারলাইন্স সংস্থা বিমানের পাশাপাশি বেসরকারি এয়ারলাইন্স তাদের বহরে যুক্ত করেছে আধুনিক প্রজন্মের উড়োজাহাজ। অভ্যন্তরীণ এবং আন্তর্জাতিক রুটে ডানা মেলছে এসব উড়োজাহাজ। 

অ্যারো বেঙ্গলের মধ্যদিয়ে ১৯৯৫ সালে দেশে বেসরকারী এয়ারলাইন্সের পথচলা শুরু হলেও এ খাতের বিকাশে সময় লেগেছে আরও দেড় দশক। ২০১০ সালে রিজেন্ট, ২০১৩ সালে নভো ও ২০১৪ সালে ইউএস বাংলা’র উড়োজাহাজ ডানা মেলে আকাশে। বর্তমানে এই তিন সংস্থার ব্যবসার পরিমাণ বছরে তিন হাজার কোটি টাকা।
সিভিল এভিয়েশনের তথ্য মতে, গেল কয়েক বছরে অভ্যন্তরীণ রুটে যাত্রী পরিবহন বেড়েছে একশ’ গুণ। বেসরকারি এয়ারলাইন্সগুলোরও যাত্রী বেড়েছে।

২০১৫ সালে নভো এয়ার আড়াই লাখ যাত্রী পরিবহন করেছে যা ২০১৭ সালে ছিলো প্রায় পাঁচ লাখ। যাত্রী পরিবহনের একই ইতিবাচক চিত্র ইউএস বাংলারও। অভ্যন্তরীণ গন্তব্য কম থাকায় রিজেন্ট এয়ারের এ বৃদ্ধির হার তুলনামূলক কম হলেও যাত্রী পরিবহণ বেড়েছে অন্তত ৪০ শতাংশ।

এয়ারলাইন্স ব্যবসায়ীরা বলছেন, উড়োজাহাজ পরিচালনা ব্যয়ের ৪০ শতাংশই জ্বালানি খরচ। দেশিয় তেল কোম্পানি পদ্মা আন্তর্জাতিক দরে জ্বালানি দিলেও অভ্যন্তরীণ রুটে তা না দেয়ায় খরচ বেশি পড়ে। ফলে বিদেশি এয়ারলাইন্স সংস্থার সাথে প্রতিযোগিতা ও অভ্যন্তরীণ ব্যবসায় পিছিয়ে পড়ে বলে দাবি তাদের।   

বিমানবন্দর ব্যবহারের জন্য সিভিল এভিয়েশনকে বিভিন্ন ধরনের ফি দিতে হয় এয়ারলাইন্সগুলোকে। নিজস্ব হ্যাঙ্গার না থাকায় এ খাতে ভাড়া বাবদও বড় অংকের টাকা গুণতে হয় তাদের।

বিমানবন্দরের সেবা গ্রহণের খরচ কমানোর কোন সিদ্ধান্ত সরকারের নেই বলে জানালেন, বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন সচিব।  

এভিয়েশন বিশেষজ্ঞরা অবশ্য মনে করেন সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ চাইলে এসব প্রতিবন্ধকতা অনেকটাই কমানো সম্ভব।

এ খাতের বিকাশে সরকারকে আরো এগিয়ে আসা প্রয়োজন বলে মনে করেন তিনি।

এই বিভাগের আরো খবর

বিভিন্ন সংস্থা ও ব্যক্তিকে প্রধানমন্ত্রীর অনুদান প্রদান

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বিভিন্ন সংস্থা, মুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও ক্রীড়াবিদকে ১৩ কোটি ৬৫ লাখ টাকার অনুদান...

মাগুরায় জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে লাউ চাষ

মাগুরা প্রতিনিধি: মাগুরার বারইপাড়া, নড়িহাটি, শ্রীপুরসহ বিভিন্ন এলাকায় কৃষকরা বাণিজ্যিকভাবে লাউ চাষ করছেন। জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে এ লাউ চাষ।...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is