খাদ্যে ভেজাল চেনার উপায়

প্রকাশিত: ০৮:১৩, ০৫ অক্টোবর ২০১৯

আপডেট: ০৯:৫৯, ০৫ অক্টোবর ২০১৯

অনলাইন ডেস্ক: ক্রমবর্ধমান জনসংখ্যার এ দেশে খাদ্য নিরাপত্তা একটি বড় ইস্যু। বেশি লাভের আশায় বিক্রেতারা খাদ্যে ভেজাল মেশাতেও পিছপা হন না। বাজারে যেসব খাবার,  সবজি ও মৌসুমী ফল পাওয়া যায়, তার প্রায় সবগুলোতেই মাত্রাতিরিক্ত রাসায়নিক পদার্থের উপস্থিতি রয়েছে। খাবারে ফরমালিন, বস্ত্রকলের বিষাক্ত রং এবং ইউরিযা সার মেশানো হয় যা স্বাস্থ্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর।

 

এসব ভেজাল খাবার খেয়ে আমরা জাতিকে ক্রমাগত মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিচ্ছি, নতুন প্রজন্মকে মেধাহীন পঙ্গু জীবনের মতো এক অনিশ্চিত ভবিষ্যতের দিকে নিয়ে যাচ্ছি। ভেজাল খাবার খেলে শরীরে বাসা বাঁধে নানা রোগ। ভেজাল খাবারের কারণে অকালে প্রাণও যায় অনেকের।

 

খাবারে ভেজাল শনাক্ত করা গেলে অনেক বিপদ থেকে রক্ষা পাওয়া সম্ভব। তাই সহজ কিছু কৌশলে শনাক্ত করে ফেলুন খাবারে ভেজাল। আসুন জেনে নেই কীভাবে নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন খাবারের ভেজাল শনাক্ত করবেন।

 

কফির গুঁড়া: কফির গুঁড়ায় ভেজাল শনাক্ত করার জন্য ১ গ্লাস পানির উপরে সামান্য কফির গুঁড়া ছিটিয়ে দিন। কফি পানির উপরে ভাসতে থাকলেও চিকোরি পানির নিচে চলে যাবে এবং রঙের সারি দেখা যাবে।

 

মরিচের গুঁড়া: ১ গ্লাস পানিতে ১ চামচ মরিচের গুঁড়া মেশান। যদি পানির রঙ পরিবর্তিত হয়ে যায় তাহলে বুঝতে হবে যে এই মরিচে ভেজাল আছে।

 

হলুদের গুঁড়া: একটি টেস্ট টিউবে হলুদের গুঁড়া নিয়ে এর মধ্যে কয়েক ফোঁটা গাঢ় হাইড্রোক্লোরিক এসিড নিন। যদি হলুদের রঙ গোলাপি, রক্তবর্ণ বা বেগুনী হয় তবে বুঝবেন ভেজাল আছে।

 

সরিষা বীজ ও তেল: কয়েকটি সরিষা বীজ নিয়ে চূর্ণ করুন। ভেজাল বীজ চূর্ণ করলে এর ভেতরে সাদা গঠন দেখা যাবে। অন্যদিকে সরিষার বীজের ভেতরে হলুদ অংশ দেখা যাবে।

 

আইসক্রিম: আইসক্রিমের ওপর কয়েক ফোটা লেবুর রস ফেলুন। যদি ফেঁপে ওঠে তাহলে এতে ওয়াশিং পাউডার থাকাকে নির্দেশ করে।

 

কাঁচা মরিচ বা সবুজ সবজি: প্যারাফিনের মধ্যে সামান্য তুলা ভিজিয়ে রাখুন। তারপর এই তুলা দিয়ে মরিচের একটি অংশ অথবা যে কোনো সবুজ সবজির এক অংশে লাগিয়ে ঘষুণ। তুলাটি সবুজ হয়ে গেলে বুঝতে আর বাকি থাকে না যে এর মধ্যে কৃত্রিম সবুজ রঙ মেশানো ছিল।

 

ঘি ও চিনি: একটি টেস্ট টিউবে ১ মিলিলিটার পানি নিয়ে এর মধ্যে ০.৫ গ্রাম ঘি মেশান এবং মিশ্রণটিতে তাপ দিন। ঠাণ্ডা হওয়ার পরে এর মধ্যে ১ ফোঁটা আয়োডিন যোগ করুন। যদি এর রঙ নীল হয়ে যায় তাহলে বোঝা যায় যে, এর মধ্যে ভেজাল আছে। ১ গ্লাস পানিতে চিনি মেশালে যদি সরাসরি নিচে চলে যায় তাহলে তা বিশুদ্ধ চিনি।

 

চা: চা একটি নষ্ট ব্লটিং পেপারের উপরে কিছু চায়ের গুঁড়া ছিটিয়ে দিন। যদি ব্লটিং পেপারের রঙ হলুদ, কমলা বা লাল হয়ে যায় তাহলে বোঝা যায় যে, এর মধ্যে কৃত্রিম রঙ মেশানো আছে।

এই বিভাগের আরো খবর

ক্যান্সার  প্রতিরোধে পেঁয়াজের চা

নিজস্ব প্রতিবেদক: শরীর সুস্থ রাখতে...

বিস্তারিত
অতিরিক্ত দুশ্চিন্তায় যে ক্ষতি হতে পারে

অনলাইন ডেস্ক: দুশ্চিন্তা কম বেশি আমরা...

বিস্তারিত
রক্তে কোলেস্টরল কমায় ভুট্টা

অনলাইন ডেস্ক: ভুট্টা একটি দানাদার...

বিস্তারিত
রক্তে অতিরিক্ত চর্বি জমলে করণীয়

অনলাইন ডেস্ক: কোলেস্টেরল হলো রক্তের...

বিস্তারিত
‘বাদাম’ যেসব রোগ দূর করে

অনলাইন ডেস্ক: পুষ্টিগুণের দিক থেকে...

বিস্তারিত
অনিদ্রা দূর করতে যা যা খাবেন

অনলাইন ডেস্ক: সারাদিন পরিশ্রম শেষে...

বিস্তারিত
স্ট্রোকের ঝুঁকি কমায় রুই মাছ

অনলাইন ডেস্ক: আমাদের দেশের গ্রাম ও...

বিস্তারিত
ওজন কমায় টমেটোর জুস

অনলাইন ডেস্ক: প্রতিদিন একগ্লাস করে...

বিস্তারিত
পিরিয়ডে বেশি ব্যথা হলে যা করবেন

অনলাইন ডেস্ক: পিরিয়ড বা ঋতুস্রাব...

বিস্তারিত
আমাশয়সহ নানা রোগের ওষুধ ‘বেত ফল’

অনলাইন ডেস্ক: বাংলাদেশের গ্রাম...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *