স্কোয়াশ খেলার কোর্ট তৈরি করতে পারেনি 

প্রকাশিত: ১০:২৪, ০৭ অক্টোবর ২০১৯

আপডেট: ১০:৪৯, ০৭ অক্টোবর ২০১৯

এস.এম সুমন: প্রতিষ্ঠার পর ৪৪ বছরে নিজেদের উল্লেখ করার মতো কোন কার্যক্রম নেই স্কোয়াশ ফেডারেশনের। এত বছরেও স্কোয়াশ খেলার একটি কোর্ট তৈরি করতে পারেনি ক্রমেই ঝিমিয়ে যাওয়া ফেডারেশনটি। বছরের পর বছর তালাবদ্ধই থাকে স্কোয়াশ ফেডারেশনের অফিস কক্ষ। জাতীয় পর্যায়ে কিছু খেলা হবার তথ্য মেলে কিন্তু আন্তর্জাতিক অঙ্গনে কোনই সাফল্য নেই। নেই ভালো প্রশিক্ষক, নতুন খেলোয়াড়। 

মওলানা ভাসানী হকি স্টেডিয়ামের দ্বিতীয় তলায় স্কোয়াশ ফেডারেশনের কার্যালয়। এখানে ব্যঙের ছাতার মতো ছড়িয়ে ছিটিয়ে রয়েছে বিভিন্ন ফেডারেশনের অফিস। স্কোয়াশ ফেডারেশন কার্যালয়ের সদর দরজায় সারাক্ষণ একটি তালা ঝুলে। টানা বেশ কয়েকদিন গিয়ে একবারও তালা খোলা পাওয়া যায়নি। চাবি সব সময় থাকে সাধারণ সম্পাদকের কাছে। পিয়নের কাছে আরেকটি চাবি থাকলেও তারও দেখা পাওয়া যায় না।  ফেডারেশনের এক কর্মকর্তার সহায়তায় জানালা খুলে দেখা যায় কক্ষের ভেতরে ধুলোর স্তুপ। চেয়ার টেবিলে ধুলোর আস্তর বলে এখানে মানুষের আসা যাওয়া নেই দীর্ঘদিন ধরে।

প্রতিষ্ঠার ৪৪ বছরেও নিজেদের একটি কোর্ট তৈরি করতে পারেনি স্কোয়াশ ফেডারেশন। হঠাৎ হঠাৎ দু’একটি প্রতিযোগিতা আয়োজন করতে তাদের নির্ভর করতে হয়, ঢাকা ক্লাব, গুলশান ক্লাব কিংবা উত্তরা ক্লাবের ওপর। কেন একটি কোর্ট তৈরী করতে পারেনি ফেডারেশন এর কোন সদুত্তর নেই সাবেক ও বর্তমান কর্তাদের কাছে। 

কোর্টের অভাবে স্কোয়াশ পরিচিত হতে পারছে না। অবশ্য সাবেক খেলোয়াড় এবং ক্রীড়া বিশ্লেষকরা কোর্টের অভাবের চেয়ে ফেডারেশনের উর্ধ্বতন কর্তাদের উদাসীনতাকে এই খেলার করুণ অবস্থা হবার কারণ হিসেবে মনে করেন । 

মূলত ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদকের দিকে সবার তীর, তার বিরুদ্ধে সেচ্ছাচারিতার অভিযোগ আছে, যার কারণে স্কোয়াশ খেলাটি দিন দিন ধুলোর নিচে চাপা পড়ছে বলে ধারণা সংশ্লিষ্টদের।  
 

এই বিভাগের আরো খবর

ক্লাবে ক্যাসিনো বসিয়ে লাভবান হাতে গোনা ক’জন

মাবুদ আজমী: ক্যাসিনোর কালিমা লাগার পর...

বিস্তারিত
দিলকুশা ক্লাব দখল করে ক্যাসিনো চালু করেন সাঈদ

মাবুদ আজমী: মতিঝিলের ক্লাব পাড়ায় অবৈধ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *