ভিক্টোরিয়া ক্লাবেই প্রথম ক্যাসিনো বসান সাঈদ

প্রকাশিত: ১০:২৮, ০৬ নভেম্বর ২০১৯

আপডেট: ০৩:৩৬, ০৬ নভেম্বর ২০১৯

কাজী ফরিদ: ২০১৬ সালের শেষ দিকে মতিঝিলের ক্লাবপাড়ায় ভিক্টোরিয়া ক্লাবেই প্রথম ক্যাসিনো বসান ঢাকা দক্ষিণ সিটির তৎকালীন ওয়ার্ড কাউন্সিলর মমিনুল হক সাঈদ। পরে সেসময়ের প্রভাবশালী যুবলীগ নেতা ইসমাইল হোসেন চৌধুরী সম্রাট যুক্ত হোন। সম্রাটকে সেসময় ক্লাবের কার্যনির্বাহী কমিটির সহ-সভাপতি করা হয়েছিল।

ক্যাসিনোর জন্য ভাড়া বাবদ প্রতিদিন ৪০ হাজার করে মাসে ১২ লাখ টাকা পেতো ভিক্টোরিয়া। ক্লাবে অনৈতিক ক্যাসিনো চাননি বলে দাবী করেন বর্তমান কর্তাদের কেউ কেউ। ইচ্ছে থাকলেও প্রতিবাদ করার ক্ষমতা ছিলোনা বলে তাদের দাবি।

ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবের সভাপতি নেসারউদ্দিন কাজল যুক্তরাষ্ট্রে। তাই এসব নিয়ে তার বক্তব্য পাওয়া সম্ভব হয়নি। সাধারণ সম্পাদক মাজহারুল ইসলাম তুহিন বক্সিং ফেডারেশনেরও সাধারণ সম্পাদক। গুলবাগ এলাকার আওয়ামী লীগ নেতা তুহিন পলাতক থাকায় ফেডারেশন ও বাসায় গিয়ে পাওয়া যায়নি। মোবাইলে তিনি বক্তব্য দিবেন বললেও পরে আর মোবাইলেও পাওয়া যায়নি।

তবে ভিক্টোরিয়ার সাবেক কর্মকর্তারা বলছেন, ক্লাবের ভেতর থেকে কেউ যুক্ত না থাকলে ক্যাসিনো বসানো সম্ভব হতো না।

ক্যাসিনো যুগে রাতে ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবের চারপাশ জমজমাট থাকতো। প্রায় সারারাত খোলা থাকতো দোকানপাট, খাবার হোটেল। অভিযানের পর যেন জৌলুস হারিয়েছে ক্লাব এলাকা। নেই আগের মতো ব্যবসা, বেতন দিতে হিমশিম খাচ্ছে মালিকরা।

ভিক্টোরিয়া স্পোর্টিং ক্লাবে রাতভর ক্যাসিনো খেলায় ছিলেন বিদেশী জুয়ারিরাও। ক্লাবটিতে  নারীরারও যেতে পারতেন।

জুয়া খেলে টাকা হারিয়ে অনেকে ক্লাবের সামনেই রাস্তায় শুয়ে থাকতেন, ক্যাসিনোতে সব টাকা খুইয়ে অনেকে ১০ টাকার ভাত চেয়ে খেয়েছেন এমন বিচিত্র অভিজ্ঞতার কথা জানান স্থানীয়রা।

ক্লাব পাড়ার এমন অসুস্থ জুয়ার পরিবেশ মূলধারার খেলাধুলায়  বড় ধরণের ধস নিয়ে এসেছে বলে মনে করেন সংশ্লিষ্টরা।  

 

এই বিভাগের আরো খবর

ক্লাবে ক্যাসিনো বসিয়ে লাভবান হাতে গোনা ক’জন

মাবুদ আজমী: ক্যাসিনোর কালিমা লাগার পর...

বিস্তারিত
দিলকুশা ক্লাব দখল করে ক্যাসিনো চালু করেন সাঈদ

মাবুদ আজমী: মতিঝিলের ক্লাব পাড়ায় অবৈধ...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *