সাহসিকতা অনন্য উচ্চতায় তোলে বঙ্গবন্ধুকে

প্রকাশিত: ১০:৩৭, ০২ ডিসেম্বর ২০১৯

আপডেট: ০১:১২, ০২ ডিসেম্বর ২০১৯

শাহনাজ ইয়াসমিন: এবার এক বিশেষ সময়ের মুখে এসেছে বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। যিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন এবং দেখিয়েছিলেন মানুষকে, সেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী আসছে মার্চে। স্বাধীনতার জন্য তাঁর দীর্ঘ ত্যাগী সংগ্রাম একাত্তরে খুঁজে পায় কাংঙ্খিত ঠিকানা।

বঙ্গবন্ধুর নামেই জীবন উৎসর্গ করে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে জাতি, ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ নির্বিশেষে এই ভুখন্ডের মানুষ একাত্তরের রক্তক্ষয়ী মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল।

কী করে বাঙ্গালির স্বাধীনতার ঠিকানা, মুক্তির প্রতীক হয়ে উঠেছিলেন বঙ্গবন্ধু? যাদুর ছোঁয়ায় কোন স্বপ্নের বীজ বুনে দিয়েছিলেন তিনি মানুষের হৃদয়ে? বিজয়ের পথ তৈরি করা সেই মহানেতার অবদানগুলোকে ঘিরে ইতিহাসের কিছু স্বাক্ষীর সাক্ষাৎকার ভিত্তিক ধারাবাহিক আয়োজন।

কারাগার যেন ছিল বঙ্গবন্ধুর সেকেন্ড হোম। ভারত ভাগের পরই ১৯৪৮ সালে প্রথম কারাবাস। তারপর মুক্তিযুদ্ধের সময় পর্যন্ত বহুবার গেছেন, জীবনের এক যুগের বেশি কেটেছে বন্দিত্বে। তার মধ্যেই স্বাধীনতা সংগ্রামের ইতিহাস গড়েছেন।

আন্দোলন করে জনগণের দাবি আদায় করাছিল বঙ্গবন্ধুর রাজনীতির মন্ত্র। কারাবাসের পাশাপাশি মামলার নিপীড়ন ছিল নিত্য সঙ্গী। তবু ঠেকানো যায়নি তাঁকে।  

ক্ষমতার প্রতি নির্লোভ ও আপোষহীন মানসিকতা আকর্ষণীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বে পরিণত করেছিল শেখ মুজিবকে। মন্ত্রিতও¡ ছেড়ে দিতে কুণ্ঠা ছিলনা। সাহসিকতা অনন্য উচ্চতায় তোলে তাঁকে।

এই বিভাগের আরো খবর

সাহসিকতা অনন্য উচ্চতায় তোলে বঙ্গবন্ধুকে

শাহনাজ ইয়াসমিন: এবার এক বিশেষ সময়ের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *