যন্ত্রপাতি কেনার নামে শত কোটি টাকা আত্মসাত

প্রকাশিত: ১০:৪৪, ০২ ডিসেম্বর ২০১৯

আপডেট: ১১:৪৫, ০২ ডিসেম্বর ২০১৯

নিজস্ব প্রতিবেদক: সিরাজগঞ্জ শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স্থাপন প্রকল্পে আসবাবপত্র ও যন্ত্রপাতি কেনার নামে শত কোটি টাকা আত্মসাতের অভিযোগ উঠেছে প্রকল্প সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে। ২৭৫ কোটি টাকা অনিয়মের অভিযোগটি তদন্ত করছে দুর্নীতি দমন কমিশন-দুদক। এ বিষয়ে রোববার প্রকল্প পরিচালককে জিজ্ঞাসাবাদ করে সংস্থাটি।

স্বাস্থ্যসেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে সিরাজগঞ্জ জেলায় ২০১৪ সালে ”শহীদ এম মনসুর আলী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল স্থাপন প্রকল্প”নামে এমন একটি বড় প্রকল্পের কাজ শুরু হয়। ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে নির্মানকাজের উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। যার ব্যয় ধরা হয়েছিল ৬৩৬ কোটি টাকা। পরবর্তীতে যন্ত্রপাতির বাজারদর বৃদ্ধি, নতুন যন্ত্রপাতি কেনার প্রস্তাব সংযোজনসহ বেশকিছু কারণ দেখিয়ে ২০১৯ সালে বরাদ্দ আরো ২৪৭ কোটি টাকা বরাদ্দ বাড়ানো হয়।

তবে যন্ত্রপাতি কেনার নামে উন্নয়ন প্রকল্পে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে প্রায় ২৭৫ কোটি টাকা দুর্নীতির অভিযোগ পায় দুদক। প্রকল্প পরিচালকসহ সংশিষ্ট আট ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান এর সঙ্গে জড়িত বলে অভিযোগে উল্লেখ করা হয়। ঘটনার সুষ্ঠু তদন্তে রোববার প্রকল্প পরিচালক কৃষ্ণ কুমার পালকে জিজ্ঞাসাবাদ করে দুদক।

প্রায় দুইঘন্টা জিজ্ঞাসাবাদ শেষে সাংবাদিকরা কথা বলার চেষ্টা করেন অভিযুক্ত কৃষ্ণ কুমার পালের সঙ্গে। তিনি জানান, উন্নয়ন প্রকল্প বাধাগ্রস্থ করতেই এমন অভিযোগ আনা হয়েছে।

দুদক সচিব জানান, সুষ্ঠু তদন্তের মাধ্যমে অভিযোগের সত্যতা যাচাই করা হচ্ছে। তবে এই তদন্ত প্রকল্পকে বাঁধাগ্রস্থ করবে না বলেও মনে করেন তিনি।

২০২০ সালের জুনে এই জনপদের ৩০ লাখ মানুষের স্বপ্নের প্রকল্পটি শেষ হওয়ার কথা রয়েছে।

এই বিভাগের আরো খবর

পাটগ্রাম-দহগ্রাম সড়কের উন্নয়ন কাজে অনিয়ম

লালমনিরহাট সংবাদদাতা: লালমনিরহাটের...

বিস্তারিত
বরগুনায় নলকূপ স্থাপনে অনিয়ম

নিজস্ব সংবাদদাতা: বরগুনায় জেলা...

বিস্তারিত
সাবেক এমপি শামসুল হককে দুদকে জিজ্ঞাসাবাদ

নিজস্ব প্রতিবেদক: অবৈধ সম্পদ অর্জনের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *