স্বাধীনতার স্বপ্নে তরুণদের উজ্জীবিত করতেন বঙ্গবন্ধু

প্রকাশিত: ১১:০০, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯

আপডেট: ০১:১১, ০৩ ডিসেম্বর ২০১৯

কাজী বাপ্পা: এবার এক বিশেষ সময়ের মুখে এসেছে বিজয়ের মাস ডিসেম্বর। যিনি স্বাধীন বাংলাদেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন এবং দেখিয়েছিলেন মানুষকে, সেই বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী আসছে মার্চে।

স্বাধীনতার জন্য তাঁর দীর্ঘ ত্যাগী সংগ্রাম একাত্তরে খুঁজে পায় কাংখিত ঠিকানা। বঙ্গবন্ধুর নামেই জীবন উৎসর্গ করে স্বাধীনতা ছিনিয়ে আনতে জাতি, ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ নির্বিশেষে এই ভুখন্ডের মানুষ একাত্তরের রক্তক্ষয়ী মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। কী করে বাঙ্গালির স্বাধীনতার ঠিকানা, মুক্তির প্রতীক হয়ে উঠেছিলেন বঙ্গবন্ধু? যাদুর ছোঁয়ায় কোন স্বপ্নের বীজ বুনে দিয়েছিলেন তিনি মানুষের হৃদয়ে?

নিজের স্বাধীনতার স্বপ্নের পথে তরুণদের কিভাবে সমবেত করতে হবে, উজ্জীবিত করতে হবে সেই কৌশল জানতেন বঙ্গবন্ধু, নিজেদের অভিজ্ঞতা থেকে সেকথা বললেন ষাটের দশকের তরুণ ক’জন রাজনীতিক। 

সাবেক ছাত্রনেতা এবং যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য আবুল কাশেম এবং সাবেক জাতীয় ফুটবলার গোলাম সরওয়ার টিপু জানান, আমাকে ৬৫ এর ছাত্রলীগের কাউন্সিলে ছাত্রলীগের সভাপতি করা হয়। বলা হচ্ছিলো কাউন্সিলে ৮ দফার সমর্থন দিতে। কিন্তু নিজের মনে সাহস পাচ্ছিলাম না। ছয় দফায় সমর্থন দিলাম। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে বঙ্গবন্ধু দৌড়ায়ে এসে আমাকে জড়ায়ে ধরে বলছে তুই যদি আমার পক্ষে না থাকিস তাহলে স্বাধীন দেশের স্বপ্ন পূরণ হবে না।

মানুষের সাথে সহজে মিশবার সুনিপুণ ক্ষমতা দলের গন্ডি ছাড়িয়ে সবার কাছে নিয়ে গিয়েছিল বঙ্গবন্ধুকে। সাবেক জাতীয় ফুটবলার গোলাম সরওয়ার টিপু বলেন, খেলোয়াড়দের দেখলেই গালে হাত দিতেন মাথায় হাত দিতেন, বলতেন তোদের আরও ভালমত খেলতে হবে, দেশের জন্য খেলতে হবে, দেশের বাইরে নাম উজ্জ্বল করতে হবে। তার সবচেয়ে বড় গুণ ছিল কথা দিয়ে কথা রাখতো কখনো পল্টি মারতো না।

বাঙালী খেলোয়াড়রা একাত্তরের আগে স্বাধীনতার জন্য বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক সংগ্রামের ডাক দেবার কারণ ও যৌক্তিকতাগুলো খুঁজে পেতেন খেলার মাঠেও। ছাত্র নেতারা বলেন, বঙ্গবন্ধু ছয় দফার কথা বলতেন কিন্তু আমরা বুঝতাম না, করাচিতে খেলতে যেয়ে তাদের আচরণে বুঝতাম বঙ্গবন্ধু আসলে কি বলতে চাইতেন। আমাদের প্রতি নির্দেশনা ছিল প্রতিটি মানুষের কাছে যেয়ে যেয়ে একটি স্বাধীন ভুখন্ডের কথা তাদের বোঝানো। দেশ তো স্বাধীন করতেই হবে, কাউকে তো নেতা হতেই হবে, তখন মানুষ দেখে শেখ মুজিব ছাড়া কোন উপায় নাই, তার ডাকে যুদ্ধ ছাড়া বাচা সম্ভব না।

 

এই বিভাগের আরো খবর

করোনা চিকিৎসায় প্রস্তুত মৈত্রী হাসপাতাল

লাবণী গুহ: করোনাভাইরাস মোকাবেলায়...

বিস্তারিত
নেতাদের মধ্যে নেতা হয়ে উঠেছিলেন বঙ্গবন্ধু

কাজী বাপ্পা: এবার এক বিশেষ সময়ের মুখে...

বিস্তারিত
কথা, দর্শন আর প্রজ্ঞায় আকৃষ্ট করতেন বঙ্গবন্ধু

পার্থ রহমান: এবার এক বিশেষ সময়ের মুখে...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *