ক্রিকেটে সবচে’ বড় দুঃসংবাদ সাকিবের নিষেধাজ্ঞা

প্রকাশিত: ১০:৫২, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯

আপডেট: ১১:৩৬, ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯

এস এম সুমন: দেশের তো বটেই বিশ্ব ক্রিকেটেরও অন্যতম বড় বিজ্ঞাপণ ছিলেন বাংলাদেশের সাকিব আল হাসান। গত এক যুগেরও বেশি সময় ধরে বাংলাদেশের ক্রিকেটের বড় নায়ক ছিলেন তিনি। দেশের ষোল কোটি ক্রিকেট ভক্তকে ২২ গজে অলরাউন্ড পারফরম্যান্স দিয়ে তৃষ্ণা মিটিয়েছেন সাকিব। কিন্তু ক্রিকেট জুয়াড়ির পাতা ফাঁদে ধরা না দিলেও তা বিসিবি এবং আইসিসি’র কাছে গোপন করার অপরাধে এখন রয়েছেন নিষেধাজ্ঞায়। পরিবারের সাথেই বেশিরভাগ সময় কাটছে এখন সাকিবের। পাশাপাশি ইউনিসেফের শুভেচ্ছা দূত হিসেবেও সাকিব নানা কর্মসূচিতে অংশ নিচ্ছেন।

চলতি বছরে ইংল্যান্ড এন্ড ওয়েলসে হয়ে গেলো বিশ্বকাপ ক্রিকেটের মহাযজ্ঞ। প্রতিটি ক্রিকেটারেরই স্বপ্ন থাকে বিশ্বকাপ মঞ্চে নিজেকে সেরা প্রমাণ করার। দল হিসেবেও নিজেদের সাফল্যের সর্বোচ্চটা দিয়ে সোনালী ট্রফিটি জয়ের প্রত্যাশাও থাকে প্রতিটি দলের। কিন্তু দল হিসেবে বিশ্বকাপে বাংলাদেশ ছিলো একেবারেই ব্যর্থ। তবে বিশ্ব ক্রিকেট দরবারে সেই সময় নিজেকে অনন্য এক উচ্চতায় নিয়ে গিয়েছিলেন দেশের ক্রিকেটের বড় নায়ক সাকিব আল হাসান।

ক্রিকেট পিপাসুদের বিনোদন দিয়েছেন ব্যাট ও বল হাতে। দুই সেঞ্চুরি, পাঁচ হাফ সেঞ্চুরিতে সাকিব আল হাসানের নামের পাশে যোগ হয় ৬০৬ রান। যা এবারের বিশ্বকাপে রান সংগ্রহকারী হিসেবে সাকিবের অবস্থান ছিলো তিন নম্বরে।

শুধু ব্যাট নয় বল হাতেও সাকিব রাজত্ব করেছেন বিশ্বকাপ মঞ্চে। নিয়েছেন ১১টি উইকেট। গত কয়েক বছরে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিল-আইসিসি’র তিন ফরম্যাটের র‌্যাঙ্কিয়েই সেরার তালিকায় শীর্ষে ছিলেন বেশির ভাগ।

অক্টোবরে দেশের ক্রিকেটের জন্য বড় বিপর্যয় নিয়ে আসেন অনেক সাফল্যের কান্ডারি সাকিব আল হাসান। ২০১৮ সালে তিন দফা ফিক্সিংয়ের প্রস্তাব পাওয়া সাকিব তা গোপন রেখেছিলেন নিজের মধ্যেই। সেই তথ্য তিনি জানাননি বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড কিংবা আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলকে। আর সেটিই কাল হয়ে দাঁড়িয়েছিলো বিশ্ব ক্রিকেটে এক যুগেরও সময় ধরে আলো ছড়ানো সাকিব আল হাসানের জন্য। তথ্য গোপনের অপরাধে দেশের ক্রিকেটের বড় দূত সাকিবকে দেয়া নিষেধাজ্ঞা।

বিনা মেঘে বজ্রপাতের সেই ঘটনার পরপরই ভারতের মতো ক্রিকেটের মহাপরাশক্তির বিপক্ষে খেলতে যায় বাংলাদেশ। সেই সফরে হতাশাই সঙ্গী হয়েছে লাল সবুজের দলটি। ভারতের কাছে টি-টোয়েন্টি এবং টেস্ট সিরিজ দু’টিতেই বাংলাদেশ লজ্জায় ডুবেছে। দেশের ক্রিকেটকে পার করতে হচ্ছে কঠিন সময়।

নিষেধাজ্ঞার এই সময়টাতে সাকিব আল হাসান পরিবারের সাথেই বেশিরভাগ সময় কাটাচ্ছেন্। ক্রিকেটের বাইরে থাকাটা সাকিবের হৃদয়ের রক্তক্ষরণ বাড়িয়ে দিয়েছে বহুগুণ তা নিয়ে কোন সন্দেহ নেই।

এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে সাকিবের মাঠে ফেরা এবং নিজের স্বমহিমায় জ্বলে ওঠা খুব সহজ না হলেও ক্রিকেট বিশ্লেষকরা আশাবাদী।

আইসিসি’র শর্ত অনুযায়ী আগামী বছরের অক্টোবর পর্যন্ত সাকিবের নিষেধাজ্ঞা কমার কোন সুযোগ নেই। এই শাস্তি কমানোর ব্যাপারে রয়েছে কিছু আইনগত জটিলতা। তবে এই ব্যাপারে সাকিবকে সবধরণের সহযোগিতা দিতে প্রস্তুত বিসিবি।

অন্ধকার নিষেধাজ্ঞার সময়টা পার করে নাম্বার ওয়ান অলরাউন্ডার সাকিব চ্যাম্পিয়ন ক্রিকেটার হিসেবেই ফিরবেন ২২ গজে, এমনটাই প্রত্যাশা ক্রিকেট প্রেমিদের।

এই বিভাগের আরো খবর

যেসব হত্যাকাণ্ডে কষ্ট ও কান্নার বছর ২০১৯

আশিক মাহমুদ: অপরাধ মাত্রই উদ্বেগের,...

বিস্তারিত
পেঁয়াজের অস্বাভাবিক দামে অস্বস্তিতে পড়ে সরকার

কাজী বাপ্পা: ২০১৯ সালে বাজারে আলোচনার...

বিস্তারিত
বছরজুড়েই যেসব ঘটনায় নজর কেড়েছে ভারত

তামান্না জাহান: বছরজুড়েই বিশ্বে নজর...

বিস্তারিত
২০১৯ সালের সবচে আতংকের নাম এডিস মশা  

লাবনী গুহ: এডিস মশা বিদায়ী ২০১৯ সালের...

বিস্তারিত
বছরজুড়ে সমালোচিত ডাকসু নেতাদের কর্মকান্ড

পার্থ রহমান: দুই যুগেরও বেশি সময় পর...

বিস্তারিত
বিদায়ী বছরে অপরাধ জগতের আলোচিত নাম ‘ক্যাসিনো’

নাঈম আল জিকো: প্রকৃতিতে নয়, বিদায়ী বছর,...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *