৩শ’ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে উধাও ফোশান সিরামিকস

প্রকাশিত: ১১:৩৪, ০২ জানুয়ারি ২০২০

আপডেট: ০৫:০৩, ০২ জানুয়ারি ২০২০

ইমদাদুল্লাহ বাবু: রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন সোনালী ব্যাংক থেকে তিনশ’ কোটি টাকা ঋণ নিয়ে উধাও-ফোশান সিরামিক অ্যান্ড টাইলস ফ্যাক্টরির কর্ণধার। ২০১৬ সালে চীন থেকে বাংলাদেশে ‘ফোসান স্ট্যান্ডার্ডস’ ব্র্যান্ডের টাইলস বাজারে আনে কোম্পানিটি। কিন্তু অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে গত তিন বছর ধরে তাদের কোন পণ্যই নেই বাজারে। রাজধানীর বনানী ডিওএইচএস আবাসিক এলাকায় নাম মাত্র একটি অফিস থাকলেও সেখানে নেই কোন কার্যক্রম।


চমকপ্রদ এমন প্রচার-প্রচারণার মধ্যদিয়ে সাড়া ফেলে ২০১৬ সালে দেশের টাইলস বাজারে এসেছিলো ফোশান সিরামিক অ্যান্ড টাইলস কোম্পানি।

কিন্তু বাজারে আসার কয়েকমাস পর থেকে আর পাওয়া যাচ্ছে না এই কোম্পানির উৎপাদিত পণ্য। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ঢাকার হাতিরপুল এলাকার অনেক খুচরা টাইলস বিক্রেতা জানিয়েছেন, তাদের কাছ থেকে টাকা নিয়ে এখনও পণ্য বুঝিয়ে দেয়নি কর্তৃপক্ষ। তিন বছর ধরে আটকে আছে তাদের বিনিয়োগ করা টাকা।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, প্রায় সাড়ে তিনবছর আগে বাগেরহাটের মোংলায় ‘মের্সাস ফোশান সিরামিক অ্যান্ড টাইলস ফ্যাক্টরী’ নামে একটি কারখানা তৈরির কাজ শুরু করেছিলেন এর কর্ণধার মোহাম্মদ জিয়া উদ্দিন জামান। চীনের সাথে যৌথ মালিকানায় ব্যবসা দেখিয়ে প্রতিষ্ঠানটির নামে ১ হাজার কোটি টাকার প্রোফাইল তৈরি করেন তিনি। যা রাজধানীর মতিঝিলে সোনালী ব্যাংকে জমা দিয়ে ৩০০ কোটি টাকা ঋণ নেন তিনি। কিন্তু সম্প্রতি তোলা এই ছবি বলছে এখানে এখন কেবল অবকাঠামো ছাড়া আর কোন কিছুরই অস্তিত্ব নেই।

এসব বিষয়ে বিস্তারিত জানতে বৈশাখী টেলিভিশনের অনুসন্ধানী দল যায় মতিঝিলে সোনালী ব্যাংকের প্রধান কার্যালয়ে। তবে ফোশান টাইলসের নামে কিভাবে এই বিশাল অংকের ঋণ দেয়া হলো সে বিষয়ে কোন মন্তব্য করতে রাজী হননি সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা।

রাজধানীর দক্ষিণ যাত্রাবাড়ীর ১৮০ নম্বর ভবনে একটি শো-রুমও খোলে কোম্পানিটি। ২০১৭ সালে এখান থেকেও সবকিছু গুটিয়ে কেটে পড়েছে তারা। বর্তমানে এখানে আছে থাই অ্যালুমিনিয়ামের একটি দোকান। ভবনটির মালিক নজরুল ইসলাম জানান, শো-রুম খোলার কয়েক মাসের মধ্যে বন্ধ হয়ে যায় দোকানটি।

খবর নিয়ে আরো জানা যায়, ব্যাংক থেকে ২০১৬ সালে ঋণ নেয়ার পরই মোহাম্মদ জিয়া উদ্দিন জামান ৬টি বিলাসবহুল গাড়ী কেনেন। ব্যবসা প্রসারের নামে মধ্যপ্রাচ্যের দেশ ওমানে খুলেছেন দোকান। যেখানে এখনও শুরু হয়নি কোন বাণিজ্যিক কার্যক্রম। অভিযোগ আছে এই দোকান খোলার নামে তিনি ব্যাংক থেকে নেয়া ঋণের টাকা বিদেশে পাচার করেছেন।

এসব তথ্য এবং অভিযোগের সত্যতা যাচাইয়ে বৈশাখী টেলিভিশনের অনুসন্ধানী দল যায়, রাজধানীর বনানী ডিওএইচএস আবাসিক এলাকার ৪ নম্বর সড়কের ১ নম্বর ভবনে-কোম্পানিটির প্রধান কার্যালয়ে। কিন্তু সেখানে গিয়ে দেখা যায়, অফিসটিতে নেই কোন দাপ্তরিক কর্মকাণ্ড। দু’জন অফিস সহকারী জানান, কোম্পানিটির মালিক মোহাম্মদ জিয়া উদ্দিন জামান দেশে থাকেন না। বেশিরভাগ সময়ই তিনি ওমান ও চায়নায় থাকেন। বাংলাদেশে আপাতত তাদের কোন কর্মকাণ্ড নেই।

কোম্পানির অস্তিত্ব না থাকলেও বিপুল পরিমাণ ঋণ নিয়ে উধাও ফোশান সিরামিক অ্যান্ড টাইলস ফ্যাক্টরি মালিক জিয়া উদ্দিন জামান।

এই বিভাগের আরো খবর

ভুয়া ফেসবুক একাউন্ট ২৭.৫ কোটি

অনলাইন ডেস্ক: সবচেয়ে জনপ্রিয় সামাজিক...

বিস্তারিত
দেশে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা আশঙ্কাজনকহারে বাড়ছে

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে অগ্নিকাণ্ডের...

বিস্তারিত
করোনার অজুহাতে আদা-রসুনের দাম বৃদ্ধি

মেহের মনি: করোনা ভাইরাসের প্রভাবে চীন...

বিস্তারিত
করোনা চিকিৎসায় প্রস্তুত মৈত্রী হাসপাতাল

লাবণী গুহ: করোনাভাইরাস মোকাবেলায়...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *