জলাবদ্ধতা সমস্যা কাটিয়ে নাগরিক সেবা দেয়ার চেষ্টা চসিকের

প্রকাশিত: ১১:২৩, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আপডেট: ০৭:৩২, ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

জয়দেব দাশ: দেশের বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামে দুই দশকে জনসংখ্যা বেড়েছে তিনগুণ। শহরমুখো মানুষের বাড়তি চাপে কমেছে নাগরিক সুবিধা। ১৬১ বর্গকিলোমিটার আয়তনের বন্দরনগরীর সড়কের বেহাল দশার সাথে আছে জলাবদ্ধতার নিত্য ভোগান্তি। তবে চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন বলছেন, সীমিত সম্পদে সর্বোচ্চ নাগরিক সুবিধা নিশ্চিতের চেষ্টা অব্যাহত রেখেছে করপোরেশন।

বাণিজ্যিক শহর হিসেবে পরিচিত চট্টগ্রাম মহানগরী দেশের আমদানি রপ্তানির প্রধান করিডোর। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে মহানগরে জনসংখ্যা ও ব্যবসা বাণিজ্যের আকার বাড়লেও, বাড়েনি নাগরিক সুবিধা। রাস্তাঘাটের বেহাল দশা, আর পথচারীর ফুটপাত হকারের দখলে চলে যাওয়ার প্রতিযোগিতায় বন্দরনগরীর মানুষের ভোগান্তির শেষ নেই। চট্টগ্রাম সিটি করর্পোরেশনের সীমিত সম্পদের সর্বোচ্চ ব্যবহার করে জনগনের সেবা নিশ্চিতে প্রতিনিয়ত হিমশিম খেতে হয় বলে জানালেন মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দিন।

সাগর আর নদী বেষ্টিত এই শহরের মানুষের পানিই হয়ে উঠেছে সুখ-দুঃখের সমান্তরাল নাম। মাঝারি বর্ষণেই হাটু সমান পানি জমে ভোগান্তিতে ফেলে দেয় নগরবাসীকে। সিটি মেয়র জানালেন এই সমস্যা সমাধানে কাজ শুরু হয়েছে, শিগগিরই মানুষ এর সুফল পাবে।

আনোয়ারা থেকে হাটহাজারি, আর পটিয়া থেকে সীতাকুন্ড পর্যন্ত বিস্তৃত ১৬১ বর্গ কিলোমিটারের সিটি করর্পোরেশন এলাকার ১৬টি থানা, ৪১টি সাধারণ ওয়ার্ডে গত দুই দশকে জনসংখ্যা বেড়েছে প্রায় ৫০ লাখ। এই বাড়তি জনসংখ্যার কথা মাথায় রেখে, নতুন নতুন পরিকল্পনা নিয়ে কাজ শুরুর কথা জানান মেয়র।

আধুনিক ড্রেনেজ ব্যবস্থা, আর নগরীর খাল উদ্ধারের চলমান কাজগুলো সমাপ্ত হলেই বন্দরনগরী বাণিজ্যিক রাজধানীর পাশাপাশি একটি পরিপূর্ণ পর্যটন শহরের রূপ পাবে বলে দাবি করেন এই নগরপিতা।
 

এই বিভাগের আরো খবর

এনআইডি সেবা চালু রাখার চিন্তা ইসি’র

কাজী ফরিদ: কমবেশি ২০টি নাগরিক সেবা...

বিস্তারিত
পোষা প্রাণীর প্রতি নিষ্ঠুর আচরণ নয়

শেখ হারুনঃ করোনা পরিস্থিতিতে চলমান...

বিস্তারিত
দুঃসময়ে মানুষের পাশে নেই রাজনৈতিক দলগুলো

জয়দেব দাশ: করোনা পরিস্থিতির শিকার...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *