ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানালেন বিদেশীরাও

প্রকাশিত: ০২:২৮, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আপডেট: ০২:৩১, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: একুশের প্রথম প্রহর থেকেই শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে লাখো মানুষের ঢল নামে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে। একুশের গান আর প্রভাতফেরীর মিছিলে পরিণত হয় জনসমুদ্রে। ফুলে ফুলে ভরে ওঠে শহীদ বেদী। আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে শহীদদের প্রতি সম্মান জানাতে ভুলে যাননি বিদেশীরাও। এদিকে, শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতে এসে সর্বত্র রাষ্টভাষা বাংলা ব্যবহারের গুরুত্ব তুলে ধরে ভাষানুরাগীরা।

পূব আকাশের সুর্যটা তখনও রক্তিম আভা ছড়িয়ে জড়ায়নি প্রকৃতিকে। তার আগেই মৃদু পায়ে সারি বেধে জনতার এই ঢল এগিয়ে যায় বাঙ্গালীত্বের শেকড় যেখানে প্রোথিত, সেই শহীদ মিনারে। যেখান থেকেই মূলত হার না মানা বাঙালির পরিচয় পেয়েছিলো বিশ্ববাসী।

এমন ছবি হয়তো পৃথিবীর আর কোথাও দেখা যায় না। যাবেই বা কি করে, ভাষার জন্য রক্ত দেয়ার গৌরবগাঁথা তো আর কোন জাতি রচনা করতে পারেনি। সেই গৌরবকেই অন্তরে ধারণ সাত সকালেই সব বয়সের সব শ্রেনীর মানুষ এসে হাজির হন শহীদ বেদিতে। ভালোবাসা আর শ্রদ্ধায় স্মরণ করেন ভাষা শহীদদের।

সাত সকালে, ঘুমিয়ে থাকা শিশুরাও বাবার কাঁধে চড়ে জানান দিতে এসেছিলো তাদের অনুরাগ। হাতে হাত ধরে এসেছিলো বন্ধু, স্বজন, প্রেমিকা, গুরুজন। ৫২ ভাষা আন্দোলনে শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানাতে।

কে বলবে বাংলা এখন শুধু বাঙালির। তাই যদি হবে, তবে, বাংলার প্রতি অন্য ভাষার এই মানুষদের ভালোবাসার দাবি মেটাবে কে? বাংলা এখন সারা পৃথিবীর শ্রদ্ধার ভাষা। বিশ্বের ছোটবড় সকল সংস্কৃতির রক্ষা কবচ, একুশ।

বেলা যতোই বাড়তে থাকে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে আসা মানুষের সারি ততোই দীর্ঘ হতে থাকে। ততক্ষনে মাঝ গগনে সূর্য।

এই বিভাগের আরো খবর

ভূমি উন্নয়ন কর পরিশোধের সময় বাড়ল

নিজস্ব প্রতিবেদক: বকেয়া ও চলতি বছরের...

বিস্তারিত
ব্যাংক ও সুপারশপে মানুষের অতিরিক্ত চাপ

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর ব্যাংক ও...

বিস্তারিত
স্বাস্থ্য সুরক্ষার অভাব এটিএম বুথগুলোতে

তারেক সিকদার: সাধারণ ছুটিতে ব্যাংকিং...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *