ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০১৯, ১০ বৈশাখ ১৪২৬

2019-04-22

, ১৬ শাবান ১৪৪০

মিয়ানমার জেল থেকে ছাড়া পেয়ে ফিরে এলেন ১৯ বাংলাদেশি

প্রকাশিত: ০৬:৪৯ , ১৫ জুন ২০১৭ আপডেট: ০৬:৪৯ , ১৫ জুন ২০১৭

কক্সবাজার প্রতিনিধি: মিয়ানমারে কারাভোগশেষে একজন রোহিঙ্গা ও ১৮ জন বাংলাদেশিকে ফেরত আনা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার মিয়ানমারের অভ্যন্তরে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকের পর এই ১৯ জনকে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি)-এর কাছে হস্তান্তর করা হয়।

মিয়ানমার-বাংলাদেশের উখিয়ার পার্শ্ববর্তী ঘুমধুম সীমান্তের বিপরীতে মিয়ানমারের ঢেকিবনিয়ায় এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে বাংলাদেশের পক্ষে ১১ সদস্যের প্রতিনিধি দলের নেতৃত্ব দেন কক্সবাজারের ৩৪ বিজিবির অধিনায়ক লেফটেন্যান্ট কর্নেল মঞ্জুরুল হাসান খান। অন্যদিকে, মিয়ানমারের ১৩ সদস্যের নেতৃত্ব দেন মিয়ানমারের ইমিগ্রেশন বিভাগের উপ-পরিচালক উ থাং চু।

আজ সকাল সাড়ে ১০টায় বাংলাদেশের প্রতিনিধি দলটি মিয়ানমারে যায়। বৈঠকের পর দুপুর ২টার দিকে তাঁরা ১৯ জনকে নিয়ে ফিরে আসেন।

ফেরত আসা ব্যক্তির মধ্যে দেশের ৯ জেলার ১৮ জন এবং একজন শরণার্থী রোহিঙ্গা রয়েছে। রোহিঙ্গাটি কক্সবাজার জেলার টেকনাফের নয়াপাড়া শরাণার্থী ক্যাম্পের বাসিন্দা।

হস্তান্তরিত ১৯ ব্যক্তির মধ্যে রয়েছেন: কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার লেদা এলাকার নুরুল ইসলামের ছেলে ফজল করিম, হোয়াইক্যং এলাকার নাজির হোসেনের ছেলে আবু বক্কর, মুন্ডার ডেইল এলাকার আমির আহমদের ছেলে মোহাম্মদ ইসমাইল, টেকনাফের নয়াপাড়ার শরণার্থী ক্যাম্পের সি ব্লকের মকবুল আহমদের ছেলে আবদুস শুক্কুর, উখিয়া উপজেলার বালুখালী এলাকার মোহাম্মদ নুরুল ইসলামের ছেলে সৈয়দ হোসেন, রামু উপজেলার রাবেতা এলাকার মোহাম্মদ সিদ্দিকের ছেলে নুরুল হুদা, সিরাজগঞ্জ জেলার বেলকুচি উপজেলার তামাই এলাকার দিরাজ শেখের ছেলে হারুন শেখ, একই জেলার শাহাজাদপুর উপজেলার বাঘাবাড়ি এলাকার শামসুলের ছেলে কামরুল, জয়পুরহাট জেলার আক্কেলপুর উপজেলার মেলা হরিনাথপুর এলাকার মৃত মোস্তাক আলীর ছেলে আনিসুর রহমান, একই জেলার মৃত আফতাব মণ্ডলের ছেলে লাল মোহাম্মদ, বগুড়া জেলার ক্ষেতলাল উপজেলার মাহমুদপুর এলাকার মোহাম্মদ দেলোয়ারের ছেলে জাহেদুল ইসলাম, একই জেলার জিন্নাতবাজার এলাকার ওসিম উদ্দিনের ছেলে তাজুল উদ্দিন, একই এলাকার সৈয়দুল ইসলামের ছেলে মোহাম্মদ ইউসুফ, হাজি এমদাদ আলীর ছেলে হোসেন আলী, ঢাকা জেলার রোস্তম আলীর ছেলে সোহেল খান, নরসিংদী জেলার সুলতান মিয়ার ছেলে শাহেদুল ইসলাম, পাবনা জেলার আলী হোসেনের ছেলে হৃদয় হোসেন, হবিগঞ্জ জেলার মোহাম্মদ ইব্রাহিমের ছেলে ইসহাক মিয়া এবং সুনামগঞ্জ জেলার গৌরনগর এলাকার সুরন্দ্র ছত্রধরের ছেলে প্রদীপ ছত্রধর।

লে. কর্নেল মঞ্জুরুল হাসান খান জানান, এদের মধ্যে সাতজন জেলে এবং ১২ জন সাগরপথে মালয়েশিয়ায় যাত্রাকালে মিয়ানমারে আটক হয়েছিল। বিভিন্ন মেয়াদে তারা সাজাভোগ করেছে, এবং সাজাশেষে তাদেরকে হস্তান্তর করা হলো।

এই বিভাগের আরো খবর

এবার লক্ষীপুরে শরীরে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে হত্যার অভিযোগ

লক্ষীপুর প্রতিনিধি : ফেনীর নুসরাত হত্যার রেশ না কাটতেই এবার লক্ষীপুরে স্ত্রীর গায়ে কেরোসিন ঢেলে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগ উঠেছে স্বামীর...

নুসরাতের গায়ে কেরোসিন ঢেলে আগুন ধরিয়ে দেয় জোবায়ের, আদালতে স্বীকার

ফেনি প্রতিনিধি : ফেনীর সোনাগাজীর মাদ্রাসা ছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যা মামলার এজহারের অন্যতম আসামি সাইফুর রহমান মো. জোবায়ের আদালতে ১৬৪...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is