ভাড়ায় চলছে প্রাইভেট সিএনজি, রাজস্ব হারাচ্ছে সরকার

প্রকাশিত: ০৯:৫৮, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

আপডেট: ০৬:২৭, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০

ইউসুফ রানা: ব্যক্তিগত ব্যবহারের লাইসেন্স নিয়ে রাজধানীতে অবৈধভাবে যাত্রী পরিবহন করছে প্রায় ৫ হাজার মিটারবিহীন সিএনজি অটোরিকশা। ‘প্রাইভেট’ স্টিকার লাগানো এসব সিএনজির মালিক পুলিশ, সাংবাদিক, স্থানীয় পর্যায়ের রাজনৈতিক কর্মীসহ বিভিন্ন পেশার প্রভাবশালী মানুষ। অবৈধভাবে কোটি কোটি টাকা আয় করলেও সরকার বঞ্চিত হচ্ছে রাজস্ব থেকে। উল্টো সড়কে বিশৃঙ্খলা সৃস্টি এবং যাত্রী হয়রানির অভিযোগ রয়েছে।

বাণিজ্যিকভাবে যাত্রী পরিবহনের জন্য সবুজ সিএনজির ফাঁক ফোকড়ে রাজধানীতে যাত্রী পরিবহণ করছে ছাই রঙের ব্যক্তিগত ব্যবহারের সিএনজিচালিত অটোরিকশা। 

বিআরটিএ’র তথ্য অনুযায়ী, ২০০৪ সাল থেকে ঢাকায় বাণিজ্যিক সিএনজি অটো রিকশার লাইসেন্স দেয়া বন্ধ রেখেছে সরকার। তবে ব্যক্তিগত ব্যবহারের জন্য ২০০৯ থেকে ১২ সাল, এই তিন বছরে প্রায় ৪ হাজার অটো রিকশার অনুমোদন দেয় বিআরটিএ। এসব অটোরিকশার বেশিরভাগই ব্যবহার হচ্ছে বাণিজ্যিকভাবে যাত্রী পরিবহণে। এগুলোর মালিক ব্যবসায়ী, শিক্ষক-চিকিৎসক-সাংবাদিক, পুলিশ ও স্থানীয় রাজনৈতিক নেতাসহ বিভিন্ন পেশার মানুষ। 

ঢাকা অটোরিকশা শ্রমিক ইউনিয়নের হিসেব মতে, রাজধানীতে প্রায় ৭ হাজার প্রাইভেট সিএনজি অটোরিকশা চলে। এরমধ্যে উচ্চ আদালতে রিট করে ২ হাজার ৫শ’ সিএনজি অটোরিকশা বাণিজ্যিকভাবে যাত্রী পরিবহনের অনুমতি পেয়েছে। বাকি ৫ হাজারের বেশি প্রাইভেট অটোরিকশা অবৈধভাবে ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন করছে। এগুলোর মালিকরা বছরে প্রায় হাজার কোটি টাকা আয় করলেও সরকারকে কোন রাজস্ব দেয় না।

প্রাইভেট অটোরিকশা মিটার ছাড়া ভাড়ায় যাত্রী পরিবহন করায় এই খাতে বিশৃঙ্খলার সৃস্টি হয়েছে।

অবৈধ অটোরিকশা চলাচল বন্ধে মাঝেমধ্যে অভিযান চালিয়ে দায়িত্ব শেষ করে বিআরটিএ।
 

এই বিভাগের আরো খবর

এত বিপুল মৃতদেহ কিভাবে সৎকার হচ্ছে?

ফারহীন ইসলাম: ইতালির মিলান শহর, যে শহর...

বিস্তারিত
বাজারের সব মাস্ক করোনা প্রতিরোধী নয়

লাবণী গুহঃ শ্বাস-প্রশ্বাসের সাথে...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *