উত্তরবঙ্গে অস্থির চালের বাজার, বিপাকে মানুষ আপডেট: ০৫:৪৪, ১৯ জুন ২০১৭

ডেস্ক রিপোর্ট: উত্তরবঙ্গে অস্থির চালের বাজার। ধানের জেলা দিনাজপুরে নতুন ধান বাজারে উঠলেও কমেনি চালের দাম। সাতদিনের ব্যবধানে কেজি প্রতি দাম বেড়েছে ১ থেকে দেড় টাকা। ব্যবসায়ীদের অভিযোগ, মিল মালিকদের মজুতের কারণেই এমনটি হচ্ছে। এদিকে, রংপুরেও উর্ধ্বমুখী চালের দাম। জাতভেদে বেড়েছে কেজি প্রতি ১০ টাকা পর্যন্ত। দাম না কমায় বিপাকে পড়েছেন এই দুই জেলার স্বল্প ও সীমিত আয়ের মানুষেরা। 
 
ধানের জেলা হিসেবে সুপরিচিত দিনাজপুর। কিন্তু নতুন বোরো মৌসুমের ধান বাজারে উঠলেও কমেনি চালের দাম। দিনাজপুরে হাইব্রিড চাল প্রতি কেজি ৪২ টাকা, গুটি স্বর্ণা ৪৫-৪৬ টাকা, সুমন স্বর্ণা ৪৮ টাকা, মিনিকেট ৫৩ টাকা আর প্রতি কেজি বিআর আটাশ বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায়। গত এক সপ্তাহের ব্যবধানে প্রতিকেজি চালের দাম বেড়েছে ১ থেকে দেড় টাকা।

চালের দামের উর্দ্ধমুখী হওয়ায় বিপাকে পড়েছেন স্বল্প আয়ের মানুষ। ব্যবসায়ীরা বলছেন, কিছু কিছু মিল মালিক ধান মজুত করার কারণেই বেড়েছে চালের দাম।

যদিও ধান মজুতের অভিযোগ অস্বীকার করে মিল মালিকদের বলছেন, বোরো মৌসুমে ফলন কম হওয়ায় ধানের বাজারে সংকট সৃষ্টি হয়েছে।

এদিকে, রংপুরেও অস্থিতিশীল চালের বাজার। বোরোর পর আউশের ভরা মৌসুমেও মোটা চাল প্রতি কেজি ৩২ টাকা থেকে বেড়ে ৪২ টাকা এবং চিকন চাল ৪২ টাকা থেকে বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৫ থেকে ৬০ টাকায়। ফলে বিপাকে পড়েছেন ক্রেতারা। 
 
বিক্রেতারা বলছেন, ধানের সরবরাহ কম থাকায় বাজারে চালের দাম বাড়ছে। এদিকে, সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ কমাতে দ্রুত সরকারের হস্তক্ষেপের মাধ্যমে চালের দামের এই উর্ধ্বমুখী প্রবণতা কমানো ও বাজার স্থিতিশীল করার দাবি জানায় স্থানীয়রা। 
 

 

Publisher : Naimul Hasib