করোনামুক্ত উত্তর কোরিয়া!

প্রকাশিত: ১২:০৬, ০৪ এপ্রিল ২০২০

আপডেট: ১২:০৬, ০৪ এপ্রিল ২০২০

ফারহীন ইসলাম: বিশ্বের দুইশ’রও বেশি দেশ ও অঞ্চল এখন করোনা ভাইরাসে পর্যুদস্ত। কিন্তু উত্তর কোরিয়া এখনো করোনামুক্ত! পাশের দেশ দক্ষিণ কোরিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০ হাজারের বেশি। মারা গেছে ১৭৫ জন। সেখানে একজনও করোনা আক্রান্ত রোগী নেই বলে দাবি করেছে উত্তর কোরিয়া। তবে বিশ্ব থেকে প্রায় বিচ্ছিন্ন কোরীয় উপদ্বীপের দেশটির এমন দাবি ঘিরে রয়েছে সংশয়। কিম জং উন সরকারের নেয়া কঠোর ব্যবস্থা আর সীমান্ত বন্ধ করে দেয়ার জন্যই এই সফলতা বলে দাবি করছে দেশটি।  

এদিকে, আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের খবর বলছে, দক্ষিণ কোরিয়ায় নিয়োজিত মার্কিন সামরিক বাহিনীর এক শীর্ষ কমান্ডার বলেছেন, উত্তর কোরিয়ার এই দাবি সত্য নয়। এমনকি ওই দাবিকে অসম্ভব বলেও মন্তব্য করেন তিনি। 

যুক্তরাষ্ট্রের জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয় জানিয়েছে, বর্তমানে বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়েছে এবং মৃতের সংখ্যা ৫৫ হাজার ছাড়িয়েছে। 

উত্তর কোরিয়ার সেন্ট্রাল ইমারজেন্সি অ্যান্টি-এপিডেমিকের পরিচালক পাক ইয়ং-সু বলেছেন, দেশটিতে এখন পর্যন্ত একজনও করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হননি। তিনি দাবি করেন, তারা পূর্ব সতর্কতা এবং বৈজ্ঞানিক বিভিন্ন পদক্ষেপ- যেমন দেশে আগতদের সবাইকে শনাক্ত করে কোয়ারেন্টাইনে পাঠানো এবং সব ধরনের পণ্য-সামগ্রী জীবাণুমুক্ত করার পাশাপাশি স্থল, সমুদ্র এবং আকাশপথের সব সীমান্ত বন্ধ করে দিয়েছেন। ফলে করোনা আক্রান্তের ঘটনা এড়াতে পেরেছে উত্তর কোরিয়া। 
উত্তর কোরিয়ার এই দাবি সত্য হতে পারে কিনা তা নিয়ে বিশ্বজুড়েই রয়েছে সংশয়। পাশের দেশ দক্ষিণ কোরিয়ায় মার্কিন সামরিক বাহিনীর প্রধান জেনারেল রবার্ট আবরামস বলেছেন, উত্তর কোরিয়ায় করোনাভাইরাসের কোনও সংক্রমণ নেই। এমন দাবি পুরোপুরি মিথ্যা। মার্কিন ওই কর্মকর্তা আরো বলেন, তারা এখন পর্যন্ত যেসব গোয়েন্দা তথ্য পেয়েছেন, তার ভিত্তিতেই তিনি একথা বলছেন। তবে দেশটিতে কতজন করোনা আক্রান্ত হয়ে থাকতে পারে, সেব্যাপারে সঠিক কোনও তথ্য দেননি রবার্ট আবরামস।

এদিকে, উত্তর কোরিয়া বিষয়ক মার্কিন সংবাদমাধ্যম এনকে নিউজের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ওলিভার হোথাম বলেছেন, উত্তর কোরিয়ায় করোনা সংক্রমণের ঘটনা ঘটে থাকতে পারে। কেননা চীন এবং দক্ষিণ কোরিয়ার সঙ্গে সীমান্ত থাকা সত্তে¡ও উত্তর কোরিয়ায় করোনা সংক্রমণের ঘটনা না থাকাটা একেবারেই অসম্ভব। বিশেষ করে চীনের সঙ্গে দেশটির বৃহৎ সীমান্ত বাণিজ্য এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক রয়েছে। তবে উত্তর কোরিয়া অনেক আগেই পূর্ব সতর্কতামূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে বলেও মনে করেন তিনি। 

এর আগে এনকে নিউজের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, উত্তর কোরিয়ায় ১০ হাজারের বেশি মানুষকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। এছাড়া কোয়ারেন্টাইনে আছেন আরও প্রায় ৫০০ জন।

ওলিভার হোথাম আরো দাবি করেন, উত্তর কোরিয়ার জনগণ ভাইরাসটির ব্যাপারে ভালোভাবেই অবগত। কারণ দেশটির গণমাধ্যমে প্রত্যেকদিন পুরো পৃষ্ঠাজুড়ে সরকারের নেয়া নানা পদক্ষেপ এবং বিশ্ব পরিস্থিতির কথা তুলে ধরা হচ্ছে। তবে এটাও সত্য উত্তর কোরিয়ার আভ্যন্তরীণ প্রতিক্রিয়া প্রকাশ না করার মতো প্রচুর ঘটনা রয়েছে। ফলে করোনা আক্রান্তের ক্ষেত্রেও তেমনটা ভাবা স্বাভাবিক বলে জানান ওলিভার হোথাম।

এদিকে, অনেকের ধারণা, যদি এই মুহূর্তে উত্তর কোরিয়া স্বীকার করে নেয় যে, তাদের করোনা সংক্রমিত রোগী আছে, তাহলে সেটি দেশটির জন্য পরাজয়ের লক্ষণ বলে বিবেচিত হতে পারে। এছাড়া দেশটির সরকার হয়তো ভাবছে, এমনটা করলে দেশে আতঙ্ক তৈরি হতে পারে। আর লোকজন বাইরে যাওয়ার চেষ্টা করতে পারে। আর ব্যাপক সংখ্যক মানুষ যদি বাইরে যাওয়ার চেষ্টা করে কিংবা চলাচল করে তাহলে তা অস্থিরতা তৈরি করবে, এমনকি সংক্রমণ আরও বাড়তে পারে।
 

এই বিভাগের আরো খবর

ব্রাজিলে করোনায় প্রতি মিনিটে ১ জনের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্র ও...

বিস্তারিত
করোনায় মৃত্যুতে দ্বিতীয়  যুক্তরাজ্য

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:  করোনা ভাইরাসে...

বিস্তারিত
দক্ষিণ আফ্রিকায় বাড়ছে আক্রান্তর সংখ্যা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:  পাঁচ দিন ধরে...

বিস্তারিত
ভারতে একদিনে আক্রান্ত প্রায় ১০ হাজার 

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : বিশ্বময় ছড়িয়ে পড়া...

বিস্তারিত
ব্রাজিলের পর পেরুতে মৃত্যুর রেকর্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *