করোনায় পুরুষের মৃত্যুহার বেশি কেন?

প্রকাশিত: ১২:০২, ০৭ এপ্রিল ২০২০

আপডেট: ১২:১৮, ০৭ এপ্রিল ২০২০

আফিয়া জ্যোতি : বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রতি মূহুর্তে বাড়ছে। সংখ্যার হিসেবে নারীদের চেয়ে পুরুষই এই ভাইরাসের সংক্রমণের শিকার হয়ে মারা যাচ্ছে বেশি। এই বৈষম্যটি প্রথমে চীনে লক্ষ্য করা গিয়েছিলো, যেখানে মৃত্যুর হার থেকে জানা গেছে, ভাইরাস আক্রান্ত পুরুষদের মধ্যে মারা গেছেন ২.৮ শতাংশ। অপরদিকে আক্রান্ত মহিলাদের মধ্যে মারা গেছেন ১.৭ শতাংশ। 

ইতালিতেও দেখা যায়, পুরুষদের মৃত্যু হার বেশি, ৭.২ শতাংশ। যেখানে নারীর মৃত্যু হার ৪.১ শতাংশ। দক্ষিণ কোরিয়াতে করোনায় আক্রান্ত পুরুষের চেয়ে নারী বেশি। তবে এ দেশেও মৃত্যুহারে এগিয়ে পুরষরা। মোট যতজনের মৃত্যু হয়েছে তাদের ৫৪ ভাগই পুরুষ।

ইউনিভার্সিটি কলেজ অব লন্ডনের অধ্যাপক ও গ্লোবাল হেলথ ফিফটির সহপরিচালক সারাহ হকিস বলেন, প্রাপ্ত তথ্যে দেখা গেছে নারীদের চেয়ে পুরুষের মৃত্যুহার বেশি। অধিকাংশ সময়ই দেখা যায় পুরুষদের এমন কিছু রোগ থাকে যা এই ভাইরাসের সংক্রমণ তাদের বেশি ঝুঁকিতে ফেলে। এতে মৃত্যুও বাড়ে।

বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক ড. সারা কায়াত বলেন, সার্স ও মার্সের মতো করোনাভাইরাসেও পুরুষের মৃত্যু বেশি। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার কারণে এটি হতে পারে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তবে, প্রশ্নটি হল, নারীদের তুলনায় পুরুষরা করোনভাইরসে মারা যাওয়ার আশংকা বেশি কেন? যদিও বিজ্ঞানীরা এখনও একটি নির্দিষ্ট উত্তর দিতে পারেননি, তবে এর বেশ কয়েকটি কারণ রয়েছে।

অস্বাস্থ্যকর জীবনযাত্রা: 
নারীদের চেয়ে পুরুষরা বেশি অস্বাস্থ্যকর জীবনযাপন করে। যা দীর্ঘস্থায়ী রোগের সাথে জড়িত। করোনায় আক্রান্ত ও মারা যাওয়া পুরুষদের অধিকাংশই ছিলো উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ ও ফুসফুসের রোগী। অধিকাংশ দেশেই দেখা যায় পুরুষরা বেশি ধূমপান ও মদপান করেন। ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন (ডাব্লিউএইচও)-এর ২০১৫ সালের একটি প্রতিবেদনে দেখা যায়, পুরুষরা মহিলাদের চেয়ে প্রায় পাঁচগুণ বেশি অ্যালকোহল পান করেন। ধুমপায়ীদের শ্বাসযন্ত্র দুর্বল হওয়ার কারণে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হলে তাদের শ্বাসকষ্ট এবং নিউমোনিয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। যারা ধূমপান করেন তাদের অধূমপায়ীদের চেয়ে করোনায় মৃত্যুঝুঁকি বেশি।

হাত ধোয়া: 
করোনাভাইরাস নিয়ন্ত্রণে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া সবচেয়ে বড় উপায় হিসেবে বিবেচনা করা হয়। নিয়মিত গরম পানি ও সাবান দিয়ে হাত ধুতে হবে যা করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে দূরে রাখার একমাত্র উপায়। তবে গবেষণায় দেখা যায়, মহিলাদের চেয়ে পুরুষদের হাত বেশি অপরিস্কার থাকে। ২০০৯ সালের মার্কিন গবেষণায় দেখা গেছে, জনসাধারণের টয়লেট ব্যবহারের পরে কেবলমাত্র ৩১ শতাংশ পুরুষ তাদের হাত ধুয়েছেন, যেখানে মহিলাদের সংখ্যা ছিলো ৬৫ শতাংশ। মহিলারা হাত ধোয়ার সময়ও বেশি সাবান ব্যবহার করে।

পুরুষরা চিকিৎসা নেয় দেরিতে: 
পুরুষদের স্বাস্থ্য সচেতনতা এবং আচরণ মহিলাদের তুলনায় আলাদা। পুরুষরা খুব সহজে তাদের অসুস্থতা প্রদর্শন করে না। এবং অসুস্থ হওয়ার পরও অসুস্থতা স্বীকার করে না বা সহায়তা চায় না। তবে গবেষণায় দেখা যায়, স্বাস্থ্য নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়া মেয়েলি স্বভাব এবং সেই ঝুঁকি গ্রহণকারী আচরণগুলি পুরুষালি বৈশিষ্ট্য। সুতরাং এটি হতে পারে, পুরুষ এবং মহিলা উভয়ই সমানভাবে ভাইরাসের সংক্রমণ হলেও মহিলারা আগেই চিকিৎসা শুরু করেছেন। যেখানে পুরুষরা তাদের লক্ষণগুলো তীব্র হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করেন, যার ফলে তাদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা কমে যায়।

ইমিউন সিস্টেমের প্রতিক্রিয়া: 
আমরা জানি যে, পুরুষের তুলনায় মহিলাদের ভাইরাল আক্রমণ প্রতিরোধ করার ক্ষমতা বেশি। করোনাভাইরাসসহ অন্য ভাইরাসগুলোর ক্ষেত্রেও এটি সমানভাবে প্রযোজ্য। মহিলাদের স্বয়ংক্রিয় ইমিউন সিস্টেম পুরুষদের তুলনায় দ্রুত কাজ করে। এর অর্থ মহিলারা পুরুষের তুলনায় ভাইরাস দ্রুত প্রতিহত করতে সক্ষম। পুরুষের ইমিউন সিস্টেম ধীরে কাজ করার ফলে তারা কোভিড-১৯ এ বেশি আক্রান্ত হতে পারে। 

হরমোন: 
হরমোনের কারণে পুরুষ ও মহিলাদের মধ্যে ইমিউনোলজিকাল পার্থক্য হতে পারে। গবেষণায় দেখা গেছে যে ভাইরাসগুলির প্রতিরোধ ক্ষমতা হরমোন ঘনত্বের পরিবর্তনের সাথে পরিবর্তিত হয়। মহিলাদের হরমোন ঋতু¯্রাব, গর্ভধারণ ও গর্ভনিরোধোক ব্যবহারের মাধ্যমে বিভিন্ন সময় পরিবর্তিত হয়। আর এ কারণেই কোভিড-১৯ মহিলা এবং পুরুষদের সংক্রমণের ক্ষেত্রে কিছুটা বৈষম্য দেখায়।
 
এক্স ক্রোমোজোম:
মহিলাদের ইমিউন সিস্টেমগুলি আলাদাভাবে কাজ করতে পারে, তার আরেকটি কারণ হলো মহিলাদের অতিরিক্ত এক্স ক্রোমোজোম। মহিলাদের দুটি এক্স ক্রোমোজোম থাকে, পুরুষদের থাকে একটি এবং এটি রোগ প্রতিরোধের প্রতিক্রিয়া সম্পর্কিত বলে মনে করা হয়। কারণ আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নিয়ন্ত্রণকারী উলে­খযোগ্য সংখ্যক জিন এক্স ক্রোমোজোমে কোডেড থাকে। এতে হতে পারে মহিলাদের দ্বিতীয় এক্সটি কিছু সুবিধা দেয়।
 

এই বিভাগের আরো খবর

ব্রাজিলের পর পেরুতে মৃত্যুর রেকর্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্বব্যাপী...

বিস্তারিত
আক্রান্তে ইতালিকে ছুঁতে চলেছে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কোভিড-১৯ এর...

বিস্তারিত
সোমবার আসছে চীনের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক দল

ডেস্ক প্রতিবেদন : করোনা ভাইরাস...

বিস্তারিত
পেরুতে করোনায় ২০ সাংবাদিকের মৃত্যু

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রাণঘাতী...

বিস্তারিত
চীনে ১৯ দিনে করোনা শনাক্ত হয়নি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনাভাইরাস চীনে...

বিস্তারিত
দক্ষিণ এশিয়ায় আক্রান্তের শীর্ষে ভারত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: দক্ষিণ এশিয়ায়...

বিস্তারিত
ব্রাজিলে মৃত্যুর নতুন রেকর্ড

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: কোভিড -১৯ এ...

বিস্তারিত
বিশ্বে মোট মৃত্যু ৩ লাখ ৮২ হাজার

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্বজুড়ে করোনা...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *