অর্থনীতিতে চীন-ভারত থেকেও শক্ত অবস্থানে বাংলাদেশ

প্রকাশিত: ০৫:২৩, ০৩ মে ২০২০

আপডেট: ০৭:৪৪, ০৩ মে ২০২০

অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসে (কোভিড-১৯) মহামারির কালে বিশ্বের উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোর মধ্যে নবম অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। উদীয়মান অর্থনীতির ৬৬টি দেশ নিয়ে একটি তালিকা তৈরি করেছে দ্য ইকোনমিস্ট। ওই তালিকায় প্রতিবেশি দেশ ভারত, চীন পাকিস্তানের চেয়ে অর্থনীতিতে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ।

চারটি নির্বাচিত খাতের অর্থনৈতিক দুর্বলতা পরীক্ষা করে তালিকা করা হয়েছে। সেগুলো হলো- সরকারি ঋণ জিডিপির কত শতাংশ, বৈদেশিক ঋণ (সরকারি বেসরকারি উভয়ই), ঋণ গ্রহণের ব্যয় এবং রিজার্ভের আওতা।

উল্লেখিত চারটি সূচকেই বাংলাদেশের অর্থনীতিকে শক্তিশালী বা তুলনামূলকভাবে ভালো হিসেবে দেখানো হয়েছে। তালিকায় চীন, ভারত এবং দক্ষিণ এশিয়ার অন্য যেকোনো দেশ থেকে এগিয়ে আছে বাংলাদেশ।

উদীয়মান অর্থনীতির দেশগুলোর সম্মিলিতভাবে সরকারি ঋণের পরিমাণ ১৭ ট্রিলিয়ন ডলার, যা বিশ্বের মোট ঋণের প্রায় ২৪ শতাংশ। এরই মধ্যে ফিচ রেটিং ১৮ দেশের ২০২০ সালের ক্রেডিট রেটিং কমিয়ে ফেলেছে, যা আগের যে কোনো পুরো বছরের তুলনায় বেশি।

কোভিড-১৯ সঙ্কটের মধ্যেও শক্তিশালী অর্থনীতিতে থাকা ১০ দেশের মধ্যে শীর্ষে রয়েছে বতসোয়ানা। তালিকায় এরপরেই রয়েছে তাইওয়ান, দক্ষিণ কোরিয়া, পেরু, রাশিয়া, ফিলিপাইন, থাইল্যান্ড, সৌদি আরব, বাংলাদেশ চীন। এই তালিকায় প্রতিবেশী ভারতের অবস্থান ১৮, পাকিস্তান ৪৩ এবং শ্রীলঙ্কা ৬১।

অর্থাৎ মহামারির কারণে সৃষ্ট এই সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে প্রতিবেশী দেশগুলোর চেয়েও অর্থনীতিতে নিরাপদ অবস্থানে রয়েছে বাংলাদেশ। দ্য ইকোনমিস্ট বলছে, দক্ষিণ এশিয়ায় প্রতিবেশী তিন দেশের তুলনায় বাংলাদেশের অর্থনৈতিক অবস্থান অনেকটাই ভালো।

এই তালিকায় সবার শেষে থাকা বা বর্তমানে অর্থনীতিতে সবচেয়ে ঝুঁকিতে থাকা শীর্ষ ১০ দেশ হলো: ভেনেজুয়েলা, লেবানন, জাম্বিয়া, বাহরাইন, অ্যাঙ্গোলা, শ্রীলঙ্কা, তিউনিশিয়া, মঙ্গোলিয়া, ওমান এবং আর্জেন্টিনা।

উল্লেখ্য, প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে বিশ্বের বিভিন্ন দেশ। গত ৩১ ডিসেম্বর চীনের উহান শহরে প্রথম এই ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ঘটে। তারপর থেকে তা চীনের গণ্ডি পেরিয়ে প্রায় ২১২টি দেশ অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে।

সারাবিশ্বে ৩৪ লাখের বেশি মানুষ এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছে এবং মারা গেছে লাখ ৪৪ হাজার ৭৭৮ জন। প্রথম থেকেই বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, এই ভাইরাস মানুষ থেকে মানুষে সংক্রমিত হয়। তাই লোকজনের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা এবং বাড়ির বাইরে বের না হওয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

ফলে বিভিন্ন দেশ লকডাউন জারি করে এই ভাইরাসের বিস্তাররোধের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু ভাইরাসের বিস্তাররোধ করতে গিয়ে লকডাউন জারি এবং ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখায় বিভিন্ন দেশের অর্থনীতি ভেঙে পড়েছে। চাকরি হারাচ্ছে লাখ লাখ মানুষ। করোনায় সারাবিশ্বেই ভয়াবহ আর্থিক সঙ্কটের মধ্যেও বাংলাদেশের জন্য কিছুটা স্বস্তির খবর দিয়েছে লন্ডনভিত্তিক সাময়িকী দ্য ইকোনমিস্ট।

এই বিভাগের আরো খবর

রিজার্ভ থেকে ঋণ নেয়ার প্রস্তাব প্রধানমন্ত্রীর

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের রিজার্ভ থেকে...

বিস্তারিত
দুর্যোগে সহায়তায় ১১ হাজার টন চাল বরাদ্দ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিভিন্ন প্রাকৃতিক...

বিস্তারিত
চামড়া কিনতে ঋণ পুনঃতফসিলের সুযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক: আসন্ন কোরবানিকে...

বিস্তারিত
ভূতুড়ে বিলে জড়িত ২৯০ জনকে শাস্তির সুপারিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিদ্যুৎ বিলকাণ্ডে...

বিস্তারিত
"শিল্পখাতের জন্য দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি হচ্ছে না"

নিজস্ব প্রতিবেদক : শিল্প খাতের চাহিদা...

বিস্তারিত
লাফিয়ে বাড়ছে কাঁচামরিচের দাম

সুমন তানভীর: রাজধানীর বাজারে লাফিয়ে...

বিস্তারিত
এ মাসেই জুনের বেতন পাবেন পাটকল শ্রমিকরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: শ্রম প্রতিমন্ত্রী...

বিস্তারিত
আজ থেকে বন্ধ হল রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল

খুলনা সংবাদদতা: সরকারি সিদ্ধান্ত...

বিস্তারিত
বাংলাদেশের ইতিহাসে সর্বোচ্চ রিজার্ভ

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনাভাইরাস...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *