করোনা মোকাবেলায় হার্ড ইমিউনিটি পদ্ধতি আত্মঘাতী

প্রকাশিত: ১০:৩১, ২১ মে ২০২০

আপডেট: ১১:০৯, ২১ মে ২০২০

লাবণী গুহ: করোনা ভাইরাসের বিস্তার থেকে সহসাই মুক্তি মিলছে না। তিনমাসে নমুনা পরীক্ষার হার ও সনাক্ত রোগী মোট জনসংখ্যার অনুপাতে নগন্য। ফলে প্রকৃত চিত্র পাওয়া সম্ভব হচ্ছে না বলে জানান দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা। তারা বলছেন, প্রতিরোধ ব্যবস্থাগুলো মানা হয়নি। এরমধ্যেই হার্ড ইমউিনিটির কথা বলে সবকিছু স্বাভাবিক করার সিদ্ধান্ত অনেকটাই আত্মঘাতি। এখন মানুষের সচেতনতাই একমাত্র ভরসা।
 
বিশ্বব্যাপী করোনা ভাইরাসের চিকিৎসায় এখনো কার্যকর পদ্ধতি আবিস্কার না হওয়ায় পরিস্থিতি সামাল দিতে বিকল্প উপায় ভাবছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে, সেই উপায় হার্ড ইমিউনিটি হলে তা দেশের জন্য সঠিক উপায় নয়। একটি নির্দিষ্ট জনগোষ্ঠির মধ্যে বিশেষ কোন জীবানুর বিরুদ্ধে লড়াই করার সক্ষমতা তৈরি হয়ে যাওয়া হলো হার্ড ইমিউনিটি। সেটা দ-ুরকমভাবে হতে পারে বলে জানান দেশের বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।

সরকারী হিসেবে দেশের ১৭ কোটি মানুষের মধ্যে গত তিনমাসে নমুনা পরীক্ষা হয়েছে শূণ্য দশমিক ১ শূণ্য শতাংশ। মোট আক্রান্তের সংখ্যা শূন্য দশমিক শূণ্য এক তিন শতাংশ। সুস্থ হয়েছেন মোট আক্রান্তের মধ্যে ১৯ দশমিক ৬৪ শতাংশ।

সেই হিসেবে দেশের মানুষের মধ্যে হার্ড ইমিউনিটি তৈরি হওয়া একটা সময়সাপেক্ষ বিষয় বলে মনে করেন  বিএসএমএমইউ'র সাবেক উপাচার্য নজরুল ইসলাম।

সংক্রমণ প্রতিরোধে তাই কার্যকর লকডাউন ও আক্রান্তের চিকিৎসা দেয়ার ওপরেই জোর দেন তিনি।

নিরাপদ থাকতে সকলকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার বিকল্প নেই বলেই মনে করেন তিনি।

 

এই বিভাগের আরো খবর

সোমবার ঢাকায় আসছে চীনা চিকিৎসক দল

কাজী বাপ্পা: করোনা ভাইরাস মোকাবেলায়...

বিস্তারিত
এখনই শুরু হচ্ছে না এইচএসসিতে ভর্তি কার্যক্রম

রীতা নাহার: করেনা সংকটের কারণে এবছর...

বিস্তারিত
দেশে করোনা সংক্রমণ দীর্ঘমেয়াদী হওয়ার আশংকা

শাহনাজ ইয়াসমিন: প্রতিরোধ ব্যবস্থা বা...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *