অক্টোবরেই করোনার ভ্যাকসিন আনছে ফাইজার

প্রকাশিত: ০১:০০, ৩০ মে ২০২০

আপডেট: ০১:০০, ৩০ মে ২০২০

অনলাইন ডেস্ককরোনাভাইরাস (কোভিড-১৯) ভ্যাকসিনের পরীক্ষা চালাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্রের অন্যতম বড় ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানিফাইজার’। যুক্তরাষ্ট্রেই ৩৬০ জনের উপরে ভ্যাকসিনের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ হয়েছে। এখন পর্যন্ত ক্লিনিকাল ট্রায়ালের ফল সন্তোষজনক বলেই দাবি করেছেন কোম্পানিটির পরিচালক অ্যালবার্ট বোরলা।

শুক্রবার (২৯ মে) একটি ভিডিও কনফারেন্সে তিনি দাবি করেছেন, ভ্যাকসিনের ট্রায়ালে ভাল ফল দেখা গেছে। সব ঠিক থাকলে বছর অক্টোবরের মধ্যেই করোনার ভ্যাকসিন বাজারে নিয়ে আসবেন তারা।  খবর সিএনবিসি।

জার্মান বায়োটেকনোলজি ফার্ম বায়োএনটেক এসইর সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে কোভিড ভ্যাকসিন বানাচ্ছে ফাইজার। ফাইজার সিইও অ্যালবার্ট বোরলা বলেছেন, ১০০ রকমের ভ্যাকসিন ডিজাইন করা হয়েছে পৃথিবীর নানা দেশে। তার মধ্যে ১০টি ভ্যাকসিন সাফল্যের খুব কাছাকাছি রয়েছে। এদের মধ্যে রয়েছে অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির ভেক্টর ভ্যাকসিন, আমেরিকার বায়োটেকনোলজি ফার্ম মোডার্নার এমআরএনএ ভ্যাকসিন।

ইতালির মেডিক্যাল ফার্মও দাবি করেছে তাঁদের বানানো ভ্যাকসিন ক্যানডিডেট ইঁদুরের শরীরে ভাইরাস প্রতিরোধী শক্তিশালী অ্যান্টিবডি তৈরি করেছে। ফাইজার বায়োএনটেকের বানানো ভ্যাকসিনও আরএনএ সিকুয়েন্সকে কাজে লাগিয়ে তৈরি হয়েছে। তবে এই ভ্যাকসিনের ডিজাইন মোডার্নার থেকে আলাদা।

অ্যালবার্ট বোরলার কথায়, প্রথম দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালে ভ্যাকসিনের ভাল ফল দেখা যাচ্ছে। তৃতীয় পর্যায়ে আরও বেশি সংখ্যক মানুষের উপর ভ্যাকসিনের প্রভাব লক্ষ করেই বাণিজ্যিক হারে তার উৎপাদন শুরু হয়ে যাবে। অক্টোবরের মধ্যেই ভ্যাকসিন বাজারে নিয়ে আসার চেষ্টা করবেন তাঁরা।

ফাইজারের ভ্যাকসিন রিসার্চ বিভাগের প্রধান ক্যাথরিন জ্যানসেন বলেছেন, এই আরএনএ ভ্যাকসিন দেহকোষকে ভাইরাল প্রোটিন তৈরিতে বাধ্য করে যাতে তাঁর প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি শরীরেই তৈরি হয়ে যায়।

এই গবেষণার নেতৃত্বে রয়েছেন জার্মানির বায়োএনটেকের অধ্যাপক উগার সাহিন। তিনি জানিয়েছেন, এই আরএনএ ভ্যাকসিনের নাম বিএনটি-১৬২। এটি আসলে ভ্যাকসিন ক্যানডিডেট। সার্স-কভ- আরএনএ ভাইরাসের সারফেস প্রোটিনগুলোকে বিশেষ উপায় বিশুদ্ধ করে এই ভ্যাকসিন ক্যানডিডেটের ডিজাইন করা হয়েছে। এই ভাইরাল প্রোটিনগুলো মানুষের শরীরেমেমরি বি সেলতৈরি করবে যা থেকে দেহকোষে ভাইরাস প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি তৈরি হবে। অ্যান্টিবডি বেসড ইমিউন রেসপন্স বা অ্যাডাপটিভ ইমিউন রেসপন্স তৈরি করবে এই ভ্যাকসিন। ফলে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়বে।

আমেরিকার আরও এক বায়োটেকনোলজি ফার্ম মোডার্নাও সম্প্রতি দাবি করেছে তাদের এমআরএনএ-১২৭৩ ভ্যাকসিন মানুষের শরীরে অ্যান্টিবডি তৈরির প্রক্রিয়া শুরু করে দিয়েছে। মোডার্না বায়োটেকনোলজি ফার্মের সঙ্গে এই এমআরএনএ ভ্যাকসিন তৈরির কাজ করছে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকসিয়াস ডিজিজ এর ভ্যাকসিন রিসার্চ সেন্টারের বিজ্ঞানীরা।

এই বিভাগের আরো খবর

বিশ্বে মৃত্যু কমলেও বেড়েছে আক্রান্ত

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রাণঘাতী  করোনা...

বিস্তারিত
করোনার আরও ৩টি নতুন লক্ষণ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: প্রাণঘাতী...

বিস্তারিত
যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ৩১ লাখ ৫৮ হাজার

অনলাইন ডেস্ক: বিশ্বময় করোনা ভাইরাসে...

বিস্তারিত
আগাম ১৫ লাখ কবর খুঁড়ছে দক্ষিণ আফ্রিকা

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: দক্ষিণ আফ্রিকায়...

বিস্তারিত
বিশ্বে মৃত্যু ছাড়ালো সাড়ে ৫ লাখ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনায় বিশ্বের...

বিস্তারিত
কাতারে আক্রান্তের প্রায় ৯৫ ভাগই সুস্থ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: করোনা ভাইরাসের...

বিস্তারিত
করোনা আক্রান্তে স্পেনকে ছাড়িয়েছে চিলি

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : দক্ষিণ আমেরিকার...

বিস্তারিত
ব্রাজিলে করোনায় মৃত্যু ৬৫ হাজার ছাড়িয়েছে

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ব্রাজিলে করোনায়...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *