জামের যতো পুষ্টিগুণ

প্রকাশিত: ১০:১৯, ২৮ জুন ২০২০

আপডেট: ১০:১৯, ২৮ জুন ২০২০

অনলাইন ডেস্ক: চলছে মধুমাসের মৌসুমী ফলের ভরা মৌসুম। এখন যত্রতত্র মিলছে আম, জাম, কাঁঠালসহ অন্যান্য সব ধরনের মিষ্টি ফল। এসব গ্রীষ্মকালীন ফলের মধ্যে জনপ্রিয় সুস্বাদু একটি হচ্ছে জাম। এতে রয়েছে অনেক পুষ্টিগুণ। পুরো বর্ষায় বাজারে পাওয়া যায় এই ফল।

জামে রয়েছে, ফলটিতে আছে ভিটামিনসি’, ফাইবার, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট, স্যালিসাইলেট, গ্লুকোজ, ডেক্সট্রোজ ফুকটোজসহ অসংখ্য উপাদান। পুষ্টি বিশ্লেষণে জামে পাওয়া যায় পানি ৮৩.১৩ গ্রাম, আমিষ .৭২ গ্রাম, শর্করা ১৫.৫৬ গ্রাম, ফ্যাট .২৩ গ্রাম, আয়রন .১৯ মিলিগ্রাম, ক্যালসিয়াম ১৯ মিলিগ্রাম, ফসফরাস ১৭ মিলিগ্রাম, ম্যাগনেশিয়াম ১৫ মিলিগ্রাম, পটাশিয়াম ৭৯ মিলিগ্রাম, সোডিয়াম ১৪ মিলিগ্রাম, থায়ামিন (ভিটামিন-বি১) .০০৬ মিলিগ্রাম, রিবোফ্লাবিন (ভিটামিন-বি২) .১২ মিলিগ্রাম, নিয়াসিন (ভিটামিন-বি৩ ) .২৬০ মিলিগ্রাম, প্যানথোনিক অ্যাসিড (ভিটামিন-বি৫) .১৬০ মিলিগ্রাম, ভিটামিন-বি৬ .১৬০ মিলিগ্রাম, ভিটামিন-সি ১৪. মিলিগ্রাম।

পুষ্টি পূরণের পাশাপাশি জাম বিভিন্ন রোগপ্রতিরোধ করে-

. জামে প্রচুর পরিমাণ ভিটামিনসিথাকায় গরমে ঠান্ডাজনিত জ্বর, কাশি টনসিল ফুলে যাওয়া প্রতিরোধ করে। আর দাঁত, চুল ত্বক সুন্দর করতেও এর অবদান অপরিসীম।

. এতে থাকা ক্যালসিয়াম, আয়রন, পটাশিয়াম ভিটামিনগুলো শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দিতে পারে।

. জামে থাকা গ্লুকোজ, ডেক্সট্রোজ ফ্রুকটোজ কর্মক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।

. দাঁত, চুল ত্বক সুন্দর করতে খেতে পারেন জাম। দাঁত মুখের স্বাস্থ্য ভালো রাখে। জামের মধ্যে পাওয়া ইলাজিক নামক অ্যাসিড ত্বককে করে শক্তিশালী। ক্ষতিকর অতি বেগুনি রশ্মির প্রভাব থেকে ত্বক চুলকে রক্ষা করে। এই ইলাজিক অ্যাসিড ক্ষতিকর ভাইরাস, ব্যাকটেরিয়া ফাঙ্গাসের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।

. জাম থাকা ভিটামিনদৃষ্টিশক্তিকে করে শক্তিশালী। বৃদ্ধ বয়সে চোখের অঙ্গ স্নায়ুগুলোকে কর্মময় করতে সাহায্য করে।

. ক্যানসারের জীবাণু বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে সহায়তা করে জাম। মুখের ক্যানসার প্রতিরোধে এটি অত্যন্ত কার্যকর। জাম হৃৎপিণ্ডের অসুখ, জরায়ু, ডিম্বাশয়, মলদ্বার মুখের ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়াই করে।

. উচ্চ রক্তচাপ বা হাইব্লাড প্রেসার ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য জাম ভীষণ উপকারি।

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে রক্তে চিনির মাত্রা কমাতে সাহায্য করে জাম।

. দীর্ঘদিন কোষ্ঠকাঠিন্য থাকলে মলদ্বারে টিউমার হওয়ার আশঙ্কা থাকে। জামের বাইরের আবরণে থাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে ফাইবার বা আঁশ। আঁশজাতীয় খাবার কোষ্ঠকাঠিন্য দূর করে। জাম মলদ্বার বা কোলনের ক্যানসার প্রতিরোধ করে।

. রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়াতে জাম সহায়ক।

১০. মানুষের স্মৃতিশক্তি প্রখর রাখতে সাহায্য করে জাম।

১১. গর্ভবতী মা, বাড়ন্ত শিশুদের জন্যও এই ফল ভীষণ উপকারি।

১২. জামের কচিপাতা পেটের পীড়া নিরাময়ে সাহায্য করে। জামের বীজ গুড়া করে বহুমুত্র রোগের ওষুধ হিসেবেও ব্যবহার করা হয়।

১৩. পাকা জাম বিট লবণ মাখিয়ে থেকে ঘণ্টা রেখে ছেঁকে রস বের করে নিন। এই রস খেলে পাতলা পায়খানা, অরুচি বমিভাব দূর করে।

এই বিভাগের আরো খবর

সরকারি কেন্দ্রে স্যালাইন উৎপাদন বন্ধ

ইমদাদুল্লাহ বাবু: সরকারি প্রতিষ্ঠান...

বিস্তারিত
করোনায় মৃত্যুর হার কমেছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে করোনা ভাইরাসে...

বিস্তারিত
করোনায় মৃত্যুর হার কমেছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী 

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশে করোনা ভাইরাসে...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *