গতিপথ বদলে যাওয়ায় তিস্তায় তীব্র ভাঙ্গন

প্রকাশিত: ০৯:৩৭, ১৫ আগস্ট ২০২০

আপডেট: ১১:১১, ১৫ আগস্ট ২০২০

রংপুর সংবাদদাতা: রংপুরে তিস্তার গতিপথ বদলে যাওয়ায় ভাঙন তীব্র হয়ে উঠেছে। এরইমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে গঙ্গাচড়া উপজেলার দুইটি ইউনিয়নের অনেক এলাকা। নিঃস্ব হয়েছে সাতটি গ্রামের হাজারো পরিবার। ভাঙনের মুখে শেখ হাসিনা দ্বিতীয় তিস্তা সড়ক সেতুটিও। ফলে হুমকিতে পড়েছে রংপুর ও লালমনিরহাট জেলার মধ্যকার সড়ক যোগাযোগ।

এবারের তিন দফা বন্যায় রংপুরে তিস্তার গতিপথ বদলে গেছে। ফিরে গেছে দুই যুগ আগের প্রবাহপথে। ফলে ভাঙছে তিস্তার বাম তীরের এলাকা। এরইমধ্যে নদীগর্ভে চলে গেছে শঙ্করদহ গ্রাম ও লক্ষ্মীটারী ইউনিয়নের এক নম্বর ওয়ার্ড। ভাঙ্গনের মুখে তিন নম্বর ওয়ার্ডও।

শঙ্করদহ গ্রাম ছাড়াও, গঙ্গাচড়া উপজেলার লক্ষ্মীটারী ও কোলকোন্দ ইউনিয়নের পূর্ব ও পশ্চিম ইচলি, বিনবিনার চর, জয়রাম ওঝা ও ইশোরকোল গ্রামের অনেক এলাকাই নদীগর্ভে চলে গেছে। ভেসে গেছে ঘরবাড়ি, ফসলি জমিসহ নানা স্থাপনা। নিঃস্ব হয়েছেন হাজারো মানুষ।

নদীর ভাঙ্গনে হুমকিতে রংপুর-লালমনিরহাট সড়কের শেখ হাসিনা দ্বিতীয় তিস্তা সেতু এবং গংগাচড়া-কাকিনা সড়কের দুইটি সেতু। স্থানীয়রা বলছেন, বিনবিনার চর থেকে সাত কিলোমিটার এলাকায় স্থায়ী বাঁধ নির্মাণ করা না হলে অনেক এলাকাই নিশ্চিহ্ন হয়ে যাবে।

রংপুর পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী জানালেন, ভাঙ্গন রক্ষায় প্রাথমিকভাবে জিও ব্যাগ ফেলা হয়েছে। পাশাপাশি স্থায়ী বাঁধ নির্মাণের একটি প্রকল্পও নেয়া হচ্ছে।

তিনি জানালেন, বাঁধটি নির্মিত হলে নদী ভাঙনের কবল থেকে এসব গ্রাম স্থায়ীভাবে রক্ষা পাবে।
 

এই বিভাগের আরো খবর

মাগুরার গড়াই নদী ভাঙনে আতঙ্কে এলাকাবাসী

মাগুরা সংবাদদাতা: মাগুরার শ্রীপুর...

বিস্তারিত
বন্যায় প্রায় ৫৭৭২ কোটি টাকার ক্ষতি

নিজস্ব প্রতিবেদক: এ বছরের বন্যায় এখন...

বিস্তারিত
মধুমতির ভাঙ্গনের কবলে মহম্মদপুরের ১০টি গ্রাম

মাগুরা সংবাদদাতা: মাগুরার মহম্মদপুর...

বিস্তারিত
নোয়াখালী ও বরগুনার অনেক বেড়িবাঁধ জোয়ারে বিলীন

নিজস্ব সংবাদদাতা: ঘূর্ণিঝড় আম্পানের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *