হাসপাতাল ছেড়ে সিআরপিতে ইউএনও ওয়াহিদা

প্রকাশিত: ০১:১৩, ০১ অক্টোবর ২০২০

আপডেট: ০৩:০৮, ০১ অক্টোবর ২০২০

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রায় একমাস হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর অবশেষে ছাড়া (রিলিজ) পেলেন দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার সাবেক নির্বাহী কর্মকর্তা ওয়হিদা খানম। আজ বৃহস্পতিবার (০১ অক্টোবর) রাজধানীর ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতাল থেকে ছাড়পত্র দেওয়া হয়েছে তাকে। এরপর দুপুরে তিনি পায়ে হেঁটে হাসপাতাল ছাড়েন।

এ সময় ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্সেস অ্যান্ড হাসপাতালের নিউরো ট্রমা বিভাগের প্রধান জাহেদ হোসেন জানান, ‘বর্তমানে ওয়াহিদা খানম প্রায় শতভাগ সুস্থ, সম্পুর্ণ আশংকামুক্ত। উনি হাটা চলা করতে পারছেন। আগামী ১ মাসের মধ্যে স্বাভাবিক কাজে ফিরতে পারবেন। আপাতত সিআরপিতে ফিজিওথেরাপি চলবে’। 

ওয়াহিদার চিকিৎসকরা জানান, ওয়াহিদার ডান হাত ও ডান পায়ের শক্তি ফিরে এসেছে। যদিও এখনো শতভাগ শক্তি ফেরেনি। সেজন্য তাকে রাজধানীর মিরপুরে সিআরপিতে রেফার্ড করা হয়েছে। ওখানে তাকে ফিজিওথেরাপি দেওয়া হবে। ফিজিওথেরাপিতে তিনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন বলে আশা প্রকাশ করেছেন চিকিৎসকরা।

হাসপাতার থেকে ইউএনও ওয়াহিদাকে বিদায় দেওয়ার পর তার চিকিৎসায় গঠিত মেডিকেল বোর্ডের প্রধান মোহাম্মদ জাহেদ হোসেন বলেন, যখন তিনি আহত হয়ে এখানে ভর্তি হন তখন তার অবস্থা ছিল অত্যন্ত সংকটাপন্ন। তাকে প্রাথমিক চিকিৎসা দিয়ে তার মাথায় অস্ত্রোপচার করা হয়।

অস্ত্রোপচারের পর প্রথমে তার ব্রেন ঠিক মতো কাজ করছিল না, প্রেশার ঠিক ছিল না। তবে দুই-তিন দিনের মধ্যে তিনি একটু সুস্থ হলেও ডানপাশটি কোনোভাবেই কাজ করছিল না। তবে এক সপ্তাহ পর থেকে তিনি আস্তে আস্তে সুস্থ হতে শুরু করেন। শরীরের ডান পাশটা নাড়াতে শুরু করেন।

মোহাম্মদ জাহেদ হোসেন আরও বলেন, এরপর বিগত প্রায় তিন সপ্তাহের চিকিৎসায় আল্লাহর রহমতে তিনি এখন ডানপাশ পুরোটাই নাড়াতে পারছেন এবং হাঁটতে পারছেন। একটু আগে তিনি হেঁটে অ্যাম্বুলেন্সে উঠে গেছেন। এখানে তার অস্ত্রোপচারটা শতভাগ সাকসেসফুল হয়েছে বলতে পারি।

বর্তমানে ওয়াহিদার শারীরিক অবস্থার বিষয়ে মেডিকেল বোর্ডের প্রধান বলেন, তার ডান হাত ডান পায়ের শক্তি ফিরে এসেছে, যদিও শতভাগ শক্তি তার ফেরেনি। সেজন্য তাকে আমরা রাজধানীর মিরপুরে সিআরপিতে রেফার্ড করেছি। ওখানে তাকে ফিজিওথেরাপি দেওয়া হবে। আশা করি, ফিজিওথেরাপিতে তিনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবেন।

গত ২ সেপ্টেম্বর দিবাগত রাত ৩টার দিকে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীর ওপর হামলা হয়। পরদিন সকালে তাদের প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ইউএনও ওয়াহিদা খানমকে বিমান বাহিনীর হেলিকপ্টারে ঢাকায় এনে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আর ওমর আলী রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। পরে গত ১২ সেপ্টেম্বর তাকেও ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে আনা হয়।

এই বিভাগের আরো খবর

ফুডপান্ডার সাড়ে ৩ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রায় সাড়ে তিন কোটি...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *