ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭, ৬ কার্তিক ১৪২৪, ৩০ মহাররম ১৪৩৯
শিরোনামঃ
ইসিকে দেয়া প্রস্তাব বাস্তবায়নে দলগুলোর ঐকমত্য জরুরি উজাড় হচ্ছে কক্সবাজার ও বান্দরবানের বনাঞ্চল পণ্য ও সেবা বাণিজ্যে আমদানি ব্যয় বাড়লেও বাড়েনি রপ্তানি আয় রিভিউ আবেদন তৈরি করছে ১১ আইন বিশেষজ্ঞের কমিটি বাড়ি থেকে নকলা উপজেলা চেয়ারম্যানের লাশ উদ্ধার ঢাবি'র ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার ৩ হারিয়ে যাচ্ছে ঠাকুরগাঁওয়ের ঐতিহ্যবাহী ‘ধামের গান’ ২ লাখ ২৪ হাজার রোহিঙ্গার বায়োমেট্রিক নিবন্ধন সম্পন্ন নারায়ণগঞ্জে ডকইয়ার্ডে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ ৪ শ্রমিক চট্টগ্রামে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত দিনভর বৃষ্টিতে জনজীবন বিপর্যস্ত মেহেরপুরের ১৪৫ স্কুলের নলকূপে মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক তরুণদের কাজে লাগাতে সৃজনশীল কর্মসূচি হাতে নিয়েছে যুবলীগ বগুড়ায় ছোট ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ভাই-ভাবি খুন জলাবদ্ধতামুক্ত চট্টগ্রাম নগরী তৈরিতে সবার সহযোগিতা চাই: নাছির এশিয়া কাপ হকিতে বিকেলে জাপানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ সীতাকুন্ডে বাস-ট্রাক সংঘর্ষ, নিহত ২ আফগানিস্তানে ড্রোন হামলায় পাকিস্তানের জঙ্গি নেতা নিহত

ইউনেস্কোর শর্ত মেনেই রামপালে বিদ্যুৎ কেন্দ্র বানাবে সরকার

প্রকাশিত: ০৪:৫৩ , ০৯ জুলাই ২০১৭ আপডেট: ০৪:৫৩ , ০৯ জুলাই ২০১৭

নিজস্ব প্রতিবেদক: রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নিয়ে সরকারের বৈজ্ঞানিক যুক্তি মেনে নিয়েছে ইউনেস্কো। তবে তাদের দেয়া ভারি কলকারখানা ও অবকাঠামো নির্মাণ না করার শর্ত মেনেই রামপালে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করবে সরকার।

আজ রোববার রাজধানীতে বিদ্যুৎ ভবনে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা জানান প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক-ই-ইলাহী চৌধুরী। এতে রামপাল কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে কোনো বাধা রইলো বলেও জানান তিনি। নাজমুল সাঈদকে সাথে নিয়ে আরো জানাচ্ছেন কামরান করিম।

বাগেরহাটের রামপালে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ উদ্যোগে ১৩২০ মেগাওয়াটের কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ প্রকল্প গ্রহণের পর থেকে বিভিন্ন মহল থেকে এর বিরোধিতা করা হয়। তাদের আশংকা-- এতে বিশ্ব ঐতিহ্য সুন্দরবনের ক্ষতি হবে।

জাতিসংঘের শিক্ষা বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা ইউনেস্কোর পক্ষ থেকেও আসে আপত্তি। তবে সরকার বরাবরই বলে এসেছে-- এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র হবে সুপার ক্রিটিক্যাল প্রযুক্তি ব্যবহার করে, যার ফলে এতে সুন্দরবনের কোনো ক্ষতি হবে না।

সরকারের বৈজ্ঞানিক যুক্তি মেনে নিয়ে গেলো বৃহস্পতিবার আপত্তি প্রত্যাহার করে নেয় ইউনেস্কো। বিদ্যুৎ ভবনে সংবাদ সম্মেলনে এ বিষয়ে বিস্তারিত জানান প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি বিষয়ক উপদেষ্টা তৌফিক ই-ইলাহী চৌধুরী।

তিনি আরো বলেন, পোল্যান্ডে ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ কমিটির ৪১তম অধিবেশনে বিশ্বের ২১টি দেশের মধ্যে ১২টি দেশই রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের পক্ষে মত দিয়েছে। ফলে এই বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণে আরে কোন বাধা নেই।

২০১৯ সাল নাগাদ রামপাল কয়লা ভিত্তিক তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র থেকে দেশবাসী বিদ্যুৎ পাবে বলে জানান প্রধানমন্ত্রীর জ্বালানি উপদেষ্টা। এ সময় বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ ও বিদ্যুৎ সচিবও উপস্থিত ছিলেন।
 

এই সম্পর্কিত আরো খবর

নির্বাচন সুষ্ঠু করতে ধর্মীয় উগ্রবাদ পরিহারের বিকল্প নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামী নির্বাচন সুষ্ঠু ও সংঘাতমুক্ত করতে ধর্মীয় উগ্রবাদ পরিহার করার কোনো বিকল্প নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রীর...

ঢাবি'র ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার ৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসের সাথে জড়িত সন্দেহে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ নেতাসহ তিনজনকে গ্রেপ্তার...

ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়

রিভিউ আবেদন তৈরি করছে ১১ আইন বিশেষজ্ঞের কমিটি

নিজস্ব প্রতিবেদক: সংবিধানের ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায়ের বিরুদ্ধে শিগগিরি রিভিউ করবে সরকার। এজন্য, রাষ্ট্রের প্রধান আইন কর্মকর্তা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is