দেশকে স্থায়ী শাসনতন্ত্র প্রদানের চেষ্টা চালাইব: বঙ্গবন্ধু

প্রকাশিত: ১০:১৬, ১৭ জানুয়ারি ২০২১

আপডেট: ১১:১০, ১৭ জানুয়ারি ২০২১

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকীর বছর ২০২০। তাঁর শততম জন্মবার্ষিকীর দিন, ১৭ই মার্চ থেকে শুরু হয়েছে মুজিববর্ষ উদযাপন। স্বাধীন বাংলাদেশ ও বঙ্গবন্ধু একাত্মা। তিনিই একাত্তরের ২৬শে মার্চ স্বাধীনতা ঘোষণা করেন। তাঁর ডাকেই মানুষ স্বাধীনতার জন্য সশস্ত্র যুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েছিল। বাংলাদেশের স্বাধীনতার দ্বারে পৌঁছানোর আগের বছরটি কেমন কেটেছিল বঙ্গবন্ধুর। সেই উত্তাল আন্দোলনে শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক দিনগুলো নিয়ে মুজিববর্ষ জুড়ে বৈশাখী সংবাদের বিশেষ ধারাবাহিক আয়োজন- যাঁর ডাকে বাংলাদেশ এর আজ ২৯৭ তম প্রতিবেদন।

সত্তর সালে পূর্ব পাকিস্তান অর্থাৎ পূর্ব বাংলায় যে প্রলয়ংকরী ঘূর্ণিঝড় আঘাত হেনেছিল, তার প্রভাব পড়েছিল সেবছর অনুষ্ঠিত পাকিস্তানের জাতীয় ও প্রাদেশিক নির্বাচনে। প্রায় সবগুলো নির্বাচনী এলাকায় পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় সরকার নির্ধারিত তারিখ ৭ ও ১৭ই ডিসেম্বর জাতীয় ও প্রাদেশিক নির্বাচন হলেও ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত আসনগুলোতে নির্বাচন হয় পরের বছর ১৯৭১ সালে।

একাত্তরের ১৭ই জানুয়ারি জাতীয় পরিষদের ৯টি এবং প্রাদেশিক পরিষদের ১৮টি আসনে নির্বাচন হয়। একইসঙ্গে ঢাকা, দিনাজপুর ও টাঙ্গাইলের তিনটি প্রাদেশিক আসনে প্রার্থীর মৃত্যুর কারনেও উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় এই দিনে।

একাত্তরের এদিন, পশ্চিম পাকিস্তানের রাওয়ালপিন্ডিতে সামরিক শাসক ইয়াহিয়া খান এবং বাঙ্গালি বিরোধী পাকিস্তান পিপলস পার্টির প্রধান জুলফিকার আলী ভুট্টোর মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বৈঠক হয়। বৈঠকে ইয়াহিয়া খান বলেন, “আমি আমার জাতি সম্পর্কে গর্বিত। জাতি গণতন্ত্রের প্রথম পর্যায় সাফল্য-জনকভাবে অতিক্রম করিয়াছে। এক্ষণে নির্বাচিত প্রতিনিধিরা ইনশাল্লাহ শাসনতন্ত্র রচনা করিবেন বলিয়া আমি নিশ্চিত।” (সূত্রঃ ১৮ জুলাই, ১৯৭১; দৈনিক ইত্তেফাক)

বৈঠক শেষে সংবাদ সম্মেলনে জুলফিকার আলী ভুট্টো বলেন, “আওয়ামী লীগের সহযোগিতায় আমার দল দেশকে গণতান্ত্রিক আদর্শ ভিত্তিক একটি কার্যক্ষম ও স্থায়ী শাসনতন্ত্র প্রদানের জন্য চেষ্টা করিবে।”

একাত্তরের এদিন ঢাকার পল্টনে আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করেন দলের প্রধান শেখ মুজিবুর রহমান। সেখানে বলেন, “পশ্চিম পাকিস্তানের নেতার সঙ্গে একটি কার্যোপযোগী সমঝোতায় উপনীত হওয়ার জন্য আমরা চেষ্টার ত্রুটি করিব না, কারণ তিনিও নির্বাচনে জয়ী হইয়াছেন। আমি আপনাদের এই আশ্বাস দিতে পারি যে, দেশকে গণতান্ত্রিক আদর্শভিত্তিক একটি কার্যক্ষম ও স্থায়ী শাসনতন্ত্র প্রদানের জন্য আমরা জাতীয় পরিষদের ভিতরে বাহিরে সর্ব-প্রকার চেষ্টা চালাইব।” (সূত্রঃ ১৮ জানুয়ারি, ১৯৭১; দৈনিক ইত্তেফাক)
 

এই বিভাগের আরো খবর

‘উন্নয়ন নিয়ে ছিল বঙ্গবন্ধুর আলাদা দৃষ্টিভঙ্গি’

বিউটি সমাদ্দার: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
মানুষের চাওয়া বুঝতেন বঙ্গবন্ধু: ইসমত কাদির

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
দোসরা মার্চ পল্টনে জনসভা করেছিলেন বঙ্গবন্ধু

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
‘৬-দফাই পারে জনগণের অধিকার নিশ্চিত করতে’

কাজী বাপ্পা: জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ...

বিস্তারিত
‘কোন প্রলোভন টলাতে পারেনি বঙ্গবন্ধুকে’

বিউটি সমাদ্দার: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত
‘স্বচ্ছতা প্রতিষ্ঠায় বঙ্গবন্ধু ছিলেন কঠোর’ 

গোলাম মোর্শেদ: সব ভেদাভেদ ভুলে দেশের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *