ঢাকা, শনিবার, ২১ অক্টোবর ২০১৭, ৬ কার্তিক ১৪২৪, ৩০ মহাররম ১৪৩৯
শিরোনামঃ
ইসিকে দেয়া প্রস্তাব বাস্তবায়নে দলগুলোর ঐকমত্য জরুরি উজাড় হচ্ছে কক্সবাজার ও বান্দরবানের বনাঞ্চল পণ্য ও সেবা বাণিজ্যে আমদানি ব্যয় বাড়লেও বাড়েনি রপ্তানি আয় রিভিউ আবেদন তৈরি করছে ১১ আইন বিশেষজ্ঞের কমিটি বাড়ি থেকে নকলা উপজেলা চেয়ারম্যানের লাশ উদ্ধার ঢাবি'র ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্নপত্র ফাঁসে জড়িত সন্দেহে গ্রেপ্তার ৩ হারিয়ে যাচ্ছে ঠাকুরগাঁওয়ের ঐতিহ্যবাহী ‘ধামের গান’ ২ লাখ ২৪ হাজার রোহিঙ্গার বায়োমেট্রিক নিবন্ধন সম্পন্ন নারায়ণগঞ্জে ডকইয়ার্ডে গ্যাস সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দগ্ধ ৪ শ্রমিক চট্টগ্রামে বন্দুকযুদ্ধে মাদক ব্যবসায়ী নিহত দিনভর বৃষ্টিতে জনজীবন বিপর্যস্ত মেহেরপুরের ১৪৫ স্কুলের নলকূপে মাত্রাতিরিক্ত আর্সেনিক তরুণদের কাজে লাগাতে সৃজনশীল কর্মসূচি হাতে নিয়েছে যুবলীগ বগুড়ায় ছোট ভাইয়ের ছুরিকাঘাতে ভাই-ভাবি খুন জলাবদ্ধতামুক্ত চট্টগ্রাম নগরী তৈরিতে সবার সহযোগিতা চাই: নাছির এশিয়া কাপ হকিতে বিকেলে জাপানের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ সীতাকুন্ডে বাস-ট্রাক সংঘর্ষ, নিহত ২ আফগানিস্তানে ড্রোন হামলায় পাকিস্তানের জঙ্গি নেতা নিহত

মেহেরপুরে সাড়া ফেলেছে পানি ও বিদ্যুৎ সাশ্রয়ে রিমোট কন্ট্রোল ডিভাইস

প্রকাশিত: ০৪:১৩ , ০১ আগস্ট ২০১৭ আপডেট: ০৪:১৩ , ০১ আগস্ট ২০১৭

মেহেরপুর প্রতিনিধি: সেচের কাজে পানি ও বিদ্যুৎ অপচয় রোধে মেহেরপুরে সাড়া ফেলেছে রিমোট কন্ট্রোল ইলেকট্রিক ডিভাইস। চমকপ্রদক এ ডিভাইসটির উদ্ভাবক মনিরুল ইসলাম জানালেন একটি মোবাইল ফোন আর দুটি সিমকার্ড দিয়ে তৈরি ডিভাইসটি ব্যবহারে বিদ্যুৎ ও পানির অপচয় রোধের ফলে অর্থ সাশ্রয় হবে।

বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন কর্পোরেশন বিএডিসি’র ক্ষুদ্র সেচ প্রকল্পের আওতায় মেহেরপুর জেলায় বসানো হয়েছে ৪৫টি গভীর নলকূপ। প্রতিটি নলকূপ থেকে সেচ সুবিধা দেয়া হয় প্রায় একহাজার হেক্টর জমিতে। এতে অপচয় হচ্ছে পানি ও বিদ্যুতের।

এ অভিজ্ঞতা মাথায় রেখেই পানি ও বিদ্যুতের অপচয় রোধে ইলেকট্রিক ডিভাইসটির উদ্ভাবনে কাজে হাত দেন মনিরুল।

মোবাইল ফোনে কল দিলেই চালু হবে গভীর নলকুপ। আবার কল দিলে বন্ধ হবে নলকুপটি। ডিভাইসটি তৈরি করতে খরচ হয়েছে মাত্র পাঁচ হাজার টাকা।

নিজের প্রয়োজনে উদ্বুদ্ধ হয়েই যন্ত্রটি তৈরি করেছিলেন বলে জানান মনিরুল। শুধু মনিরুল নয় ডিভাইসটি এখন সবার কাজে আসছে। পানি ও বিদ্যুৎ অপচয় রোধ হওয়ায় আর্থিকভাবে লাভবান হচ্ছেন কৃষকরা। পাশাপাশি যন্ত্রটি দ্বারা জমিতে প্রয়োজন মত যতটুকু পানি দরকার ঠিক ততটুকু পরিমাণেই পানি দিতে পারছেন তাঁরা।

এদিকে বিদ্যুৎ ও পানির অপচয় কম হওয়ায় তথা কৃষি উৎপাদন খরচ কম হবে বলে জেলার পাম্প মালিকদের ডিভাইসটি ব্যবহারে পরামর্শ দেয়ার কথা জানালেন জেলাটির বিএডিসি’র উপ-সহকারী প্রকৌশলী শাহ্ জালাল আবেদীন।

সরকারি সহযোগিতা পেলে সারা দেশে ডিভাইসটি ছড়িয়ে দিতে চান এর উদ্ভাবক মনিরুল ইসলাম। 
 

এই সম্পর্কিত আরো খবর

দেড়গুন বেশি ফলনের ধান গাছ উদ্ভাবন

দেড়গুন বেশি ফলনের ধান গাছ উদ্ভাবন কৃষি ডেস্ক: চীনের বিজ্ঞানীরা চলতি সপ্তাহে নতুন ধানের জাত উদ্ভাবন করেছেন। যার ফলন সাধারণ ধানের তুলনায়...

ফেসবুকের ছবি চুরি হবে না আর

ফেসবুকের ছবি চুরি হবে না আর ডেস্ক প্রতিবেদন: সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুক, টুইটার, ইনস্টাগ্রাম ইত্যাদি এখন মানুষের জীবনযাত্রার...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is