পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ঝালকাঠির ছইলার চর আপডেট: ১০:৩৮, ০৩ আগস্ট ২০১৭

ঝালকাঠি প্রতিনিধি: প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য দিন দিন পর্যটকদের কাছে জনপ্রিয় হয়ে উঠছে ঝালকাঠির বিশখালি নদীর ছইলার চর। প্রতিদিনই এখানে ভিড় জমাচ্ছেন ভ্রমণপিপাসু মানুষ।

তবে আশানুরূপ সম্ভাবনা থাকলেও রয়েছে নানা সংকট। প্রয়োজনীয় পৃষ্ঠপোষকতা পেলে দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হবে এই চর।

প্রায় একযুগেরও বেশি সময় আগে ৪১ একর জমি নিয়ে ঝালকাঠির কাঁঠালিয়া উপজেলার হেতালবুনিয়ার বিশখালী নদীতে জেগে ওঠে এই চর। লক্ষাধিক ছইলা গাছ দিয়ে ঘেরা থাকায় চরটির এই নাম রাখা হয়েছে।

এ ছাড়াও এখানে কেয়া, হোগলা, রানা, এলি, মাদার, আরগুজি এবং আরো বিভিন্ন প্রজাতির গাছ রয়েছে। এসব গাছে প্রতিদিন শালিক, ডাহুক, বকসহ নানা প্রজাতির পাখি এসে বসে।

নয়নাভিরাম প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের জন্য ভ্রমণপিপাসুদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে ওঠে বঙ্গোপসাগরের পাশের এই ছইলার চর।

উপজেলা প্রশাসনের তথ্য অনুযায়ী-- ২০১৫ সালে পর্যটন কেন্দ্র হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে চরটিকে। তবে ঘুরতে আসা পর্যটকদের জন্য বসার ঘর, বাথরুম ও বিশুদ্ধ পানির ব্যবস্থা থাকলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় অনেক কম।

একই সাথে রয়েছে যোগাযোগসহ নানা প্রতিবন্ধকতা। তাই পর্যটন এলাকাকে ঘিরে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান, রেস্ট হাউজ ও শিশুদের জন্য খেলাধূলার ব্যবস্থার দাবি পর্যটকদের।

পর্যটকরা বলছেন, ছইলার চর খুবই আকর্ষণীয় একটি জায়গা। সরকারের শুভদৃষ্টি থাকলে শুধু দেশি নয়, বিদেশি পর্যটকও বাড়বে বলে মনে করেন তাঁরা।

ঝালকাঠি জেলা প্রশাসক মো. মিজানুল হক চৌধুরী জানিয়েছেন, ঝালকাঠি জেলাকে পর্যটনসমৃদ্ধ করে তুলতে পর্যটন বোর্ডে প্রস্তাব রাখা হয়েছে। অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি   ছইলার চরে আসা মানুষদের সুবিধা নিশ্চিত করতে গ্রহণ করা হয়েছে নানা পরিকল্পনা ।

প্রয়োজনীয় সহযোগিতা পেলে দক্ষিণাঞ্চলের অন্যতম প্রধান পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হবে এই চর এমনটাই প্রত্যাশা এলাকার মানুষের।
 

 

Publisher : .