ঝিনাইদহের শিক্ষার্থীরা মাল্টিমিডিয়ার সুফল পাচ্ছে না আপডেট: ১২:৪০, ০৭ আগস্ট ২০১৭

ঝিনাইদহ প্রতিনিধি: কম্পিউটারের দক্ষ শিক্ষকের অভাবে ঝিনাইদহ জেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সরকারের দেওয়া কম্পিউটার ও ল্যাপটপ শিক্ষার্থীদের কাজে লাগছে না। অবহেলায় নষ্ট হচ্ছে এসব কম্পিউটার ও ল্যাপটপ ।

বেশির ভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অফিসের টাইপ করার কাজে ব্যবহার করা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের কম্পিউটার। অভিযোগ রয়েছে ল্যাপটপ বাড়িতে নিয়ে ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন কোনো কোনো শিক্ষক।

ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে তৃণমুল পর্যায়ের শিক্ষার্থীদের কম্পিটারে দক্ষ করে গড়ে তোলার উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়, তথ্য ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় এবং বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল।

এরই অংশ হিসেবে ঝিনাইদহের ছয়টি উপজেলার বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে প্রদান করা হয় ল্যাব, কম্পিউটার ও মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর।

সরকারের নির্দেশ ছিল মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানগুলোতে শিক্ষা দান করার। কিন্তু অধিকাংশ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে গিয়ে দেখা গেছে পাঠদান চলছে সাধারণভাবে।

শিক্ষার্থীদের অভিযোগ, স্কুলের কম্পিউটারগুলো ছাত্রছাত্রীদের শিক্ষাদানে ব্যবহার না করে অফিসের কাগজপত্র টাইপ করার কাজে ব্যবহার হচ্ছে।

ল্যাপটপগুলো কোনো কোনো শিক্ষক বাড়িতে নিয়ে ব্যক্তিগত কাজে ব্যবহার করছেন বলেও অভিযোগ তাদের।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে শিক্ষা দান করা হলে জ্ঞান অর্জন করা সম্ভব হতো।

যদিও শিক্ষকরা বলছেন অবকাঠামো সংকট আর দক্ষতার অভাবে মাল্টিমিডিয়ায় শিক্ষাদান সম্ভব হচ্ছে না।

শিক্ষকদের কেউ কেউ বলছে মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে শিক্ষা দান করার জন্য যে জ্ঞান প্রয়োজন তা অনেক শিক্ষকেরই নেই। নেই কম্পিউটার ও ল্যাপটপের ওপর প্রশিক্ষণ।

শিক্ষদের দক্ষতার অভাবের বিষয়টি স্বীকার করে নিয়েছেন ঝিনাইদহ জেলা শিক্ষা অফিসের সহকারী পরিদর্শক মফিজুর রহমান আকাশ ।

তিনি জানান, তারা নিয়মিত এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো পরিদর্শন করছেন এবং মাল্টিমিডিয়ার মাধ্যমে যাতে শিক্ষা দান করা হয় সে বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়ার কথাও জানান তিনি।

মাল্টিমিডিয়ায় শিক্ষাদানে শিক্ষদের দক্ষতা বৃদ্ধিতে কার্যকরী পদক্ষেপ গ্রহন করবেন সংশ্লিষ্টরাÑ এমনটাই প্রত্যাশা  ছাত্র-ছাত্রীদের।