যেভাবে প্রতারণা করতেন হেলেনা

প্রকাশিত: ০৪:৫৮, ৩১ জুলাই ২০২১

আপডেট: ০৪:৫৮, ৩১ জুলাই ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক: প্রাথমিক জিজ্ঞসাবাদে হেলেনা জাহাঙ্গীরের কাছ থেকে চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে র‌্যাব। আজ (শনিবার) দুপুরে র‌্যাব সদরদপ্তরে সংস্থাটির আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন জানান, হেলেনা সুনির্দিষ্ট একজন ব্যক্তির জন্য থেমে থাকেননি। প্রতিনিয়ত বিভিন্ন লোকজনের সথে পরিচয় ঘটেছে তার। উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য যাকেই প্রয়োজন তাকেই ব্যবহার করেছেন তিনি। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিদের সঙ্গে ছবি তুলেছেন এবং তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়েছেন শুধুমাত্র উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য। তিনি রাষ্ট্রের ব্যক্তিদের সম্পর্কে নেতিবাচক মন্তব্য করেছেন, যা তাদের বিব্রতকর অবস্থায় ফেলেছে, জনগণের মধ্যেও বিভ্রান্তি সৃষ্টি করেছেন। 

র‌্যাব কর্মকর্তা আরো বলেন, জয়যাত্রা টিভিতে প্রতিনিধি নিয়োগ দিয়ে চাঁদাবাজি করতেন হেলেনা। জয়যাত্রা টিভি আইপি নাম বলা হলেও এটি স্যাটেলাইট হিসাবে চালানো হতো। নারায়ণগঞ্জে তার ৫টি গার্মেন্টস রয়েছে। রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় তার ২০টির মত ফ্ল্যাট রয়েছে বলেও র‌্যাবের কাছে স্বীকার করেছেন হেলেনা জাহাঙ্গীর। এছাড়াও নিজেকে কখনো কখনো মনে করতেন এমপি-মন্ত্রীদের থেকেও বড়। তার সব সম্পত্তি বৈধ নাকি অবৈধ তা খতিয়ে দেখছে র‌্যাব। 

জিজ্ঞাসাবাদে হেলেনা জাহাঙ্গীর র‌্যাবকে আরো জানায়, সম্প্রতি তিনি রাজনীতিতে যোগ দেন। সামাজিক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে নিজেকে সমাজসেবক হিসেবে তুলে ধরার চেষ্টা চালিয়েছেন। বেশ কয়েকবার নির্বাচনও করতে চেয়েছেন তিনি। শুধুমাত্র নিজের অবস্থান উচ্চপর্যায়ে নেয়ার জন্যই এ ধরনের অপতৎপরতা চালিয়েছেন তিনি। তৈরি করেছিলেন নিজস্ব সাইবার টিম। তাদের মাধ্যমেই নানা ইস্যুতে আলোচনায় থাকতেন হেলেনা। 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া একটি বক্তব্য উল্লেখ করে খন্দকার আল আমিন বলেন, বক্তব্য খুবই উদ্বেগজনক। কাউকে এভাবে হেয় প্রতিপন্ন করা সমীচীন নয়। সব সময় তাকে সহযোগিতা করতো, সাথে থাকতো এমন অন্তত ২০ জনের নাম পেয়েছে র‌্যাব। তদন্তের প্রয়োজনে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করবে তারা। 

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মিথ্যাচার, অপপ্রচার, রাষ্ট্রীয় গুরুত্বপূর্ণ সংস্থা ও ব্যক্তিদের সম্মানহানির অভিযোগে বৃহস্পতিবার রাতে তার গুলশানের বাসায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব। এসময় তার বাসা থেকে মাদক, ওয়াকিটকি, হরিণ ও ক্যাঙ্গারুর চামড়া, ক্যাসিনো সরঞ্জাম, দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়। এসব অভিযোগে তার বিরুদ্ধে গুলশান ও পল­বী থানায় তিনটি মামলা করেছে র‌্যাব। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় তিনি এখন তিনদিনের পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদে রয়েছেন। 

AM/MSI

এই বিভাগের আরো খবর

দিনাজপুরে দুই মাদক ব্যবসায়ী আটক

দিনাজপুর সংবাদদাতা: দিনাজপুরের...

বিস্তারিত
নওগাঁয় বিএনপি'র তিন নেতা কারাগারে 

নওগাঁ সংবাদদাতা: নওগাঁয় সরকারি কাজে...

বিস্তারিত
বিরল প্রজাতির তক্ষকসহ আটক ৪ 

গাইবান্ধা সংবাদদাতা: গাইবান্ধার...

বিস্তারিত
পরীমণির পরবর্তী হাজিরা ১০ অক্টোবর 

নিজস্ব সংবাদদাতা: মাদকদ্রব্য...

বিস্তারিত
এস কে সিনহার বিরুদ্ধে মামলার রায় ৫ই অক্টোবর

নিজস্ব প্রতিবেদক: ফারমার্স ব্যাংক...

বিস্তারিত
সাতক্ষীরায় ৪ খুনের আসামির মৃত্যুদণ্ড

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা: সাতক্ষীরার...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *