ঢাকা, শুক্রবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৭, ১ পৌষ ১৪২৪, ২৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৯
শিরোনামঃ
বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ মহিউদ্দিন চৌধুরী আর নেই মহিউদ্দিন চৌধুরীর মৃত্যুতে চট্টগ্রামে শোকের ছায়া মানুষের অন্তরে মহিউদ্দিন চৌধুরী জননেতা হিসেবেই বেঁচে থাকবেন স্বপ্নের ফেরিওয়ালা মহিউদ্দিন চৌধুরী মহান বিজয় দিবস উদযাপনে দেশজুড়ে নানা আয়োজন  সুশাসন প্রতিষ্ঠায় বারবার হোচট খেয়েছে বাংলাদেশ নাটোরে চালু হয়নি কৃষকদের ৫টি শস্য মার্কেট কুমিল্লায় বাস চাপায় নিহত দুই রংপুর সিটি নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ মুহূর্তে জমজমাট রাজধানীর বাজারে পেঁয়াজের দাম বেড়েছে দ্বিগুণ টি-টেন ক্রিকেট লিগে কেরেলা কিংসের জয় হাসপাতালে জনবল-শয্যার অভাবে চিকিৎসা বঞ্চিত ঝিনাদহের নিউমোনিয়া আক্রান্ত শিশুরা পূর্ব জেরুজালেমকে ফিলিস্তিনের রাজধানী হিসেবে সৌদি বাদশাহর স্বীকৃতি নির্বাচনের আগে সংস্কারের জন্য ৩১ প্রস্তাবনা চূড়ান্ত  নেপালে নির্বাচনে বামপন্থী জোটের জয় চট্টগ্রামে রেডকিন সমাধিতে রাশিয়ার সশস্ত্র বাহিনীর শ্রদ্ধা ত্রিদেশীয় ও বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কা সিরিজের সময়সূচি ঘোষণা রংপুর সিটি নির্বাচনে বিএনপি প্রার্থীকে সরিয়ে দেয়ার ষড়যন্ত্র হচ্ছে টাঙ্গাইলে ৩০ কিলোমিটার এলাকায় যানজট  থার্টিফার্স্ট নাইটে উন্মুক্ত স্থানে কোনো অনুষ্ঠান নয়: স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী

বরগুনার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক সংকট: বিঘ্নিত স্বাস্থ্যসেবা

প্রকাশিত: ০৮:০৫ , ১৩ আগস্ট ২০১৭ আপডেট: ০৮:০৫ , ১৩ আগস্ট ২০১৭

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনার মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রসহ সরকারি হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক সংকটে বিঘ্নিত হচ্ছে প্রসূতি মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম। অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক না থাকায় মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রে প্রসূতির অস্ত্রোপচার সম্ভব হচ্ছে না।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল ও পাঁচ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতেও নেই যথেষ্ট গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক। ফলে সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন রোগীরা।

বরগুনা জেলা সদরে ২০০০ সালে স্থাপিত হয় ২০ শয্যার মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র। এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে একজন অ্যানেসথেশিয়া, একজন গাইনি চিকিৎসক এবং চারজন স্বাস্থ্য পরিদর্শকের পদ রয়েছে। তবে অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসকের পদটি আজ আট বছর ধরে শূন্য।

জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ জানিয়েছে, অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা থাকার পরও কেবলমাত্র অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক সংকটে মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রে প্রসূতির অস্ত্রোপচার করা যাচ্ছে না, যদিও বিষয়টি মন্ত্রণালয়ে বার বার জানানো হয়েছে।

এ ছাড়া বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল ও পাঁচ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতেও নেই অন্তঃসত্ত্বা নারীদের জন্য গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক জানান, দুজন গাইনি বিশেষজ্ঞ ও একজন অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসকের পদ থাকলেও, রয়েছেন মাত্র একজন। চিকিৎসক সংকট কাটাতে মন্ত্রণালয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এ অবস্থায় বিনামূল্যের সরকারি স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে রোগীদের বাধ্য হয়েই যেতে হচ্ছে বেসরকারি ক্লিনিকে। বরগুনা অঞ্চলের মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে জেনারেল হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রে চিকিৎসকদের শূন্য পদ শিগগিরই পূরণের দাবি জানালেন স্থানীয়রা।
 

এই বিভাগের আরো খবর

রংপুর সিটি নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা শেষ মুহূর্তে জমজমাট

রংপুর প্রতিনিধি: শেষ মুহূর্তে জমজমাট হয়ে উঠেছে রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রচার-প্রচারণা। প্রার্থীরা ঘুরছেন ভোটারদের দ্বারে...

কুমিল্লায় বাস চাপায় নিহত দুই

কুমিল্লা প্রতিনিধি: কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামে বাস চাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত হয়েছে। এ ঘটনায় আহত হয়েছে আরো ১ জন। গতকাল রাত ২টায় এ দুর্ঘটনা...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is