ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৯ অক্টোবর ২০১৭, ৪ কার্তিক ১৪২৪, ২৮ মহাররম ১৪৩৯
শিরোনামঃ
বিচার বিভাগ স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছে না: খালেদা জিয়া তথ্য প্রযুক্তি খাতে দেশে নিরব বিপ্লব হচ্ছে: জয় রোহিঙ্গা সংকটের জন্য মিয়ানমার সেনাবাহিনীই দায়ী: যুক্তরাষ্ট্র সরকার বিচারকে কোনোভাবেই প্রভাবিত করছে না: সেতুমন্ত্রী সীমান্তে ফের বেড়েছে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ সীমান্ত থেকে কুতুপালং ক্যাম্পে আনা হলো ৩০ হাজার রোহিঙ্গা 'রাজধানীর পরিবেশ উন্নয়নে কিছু শিল্প বিসিক এলাকায় সরানো হবে' উড়িষ্যায় আতশবাজি কারখানায় বিস্ফোরণে নিহত ৮, আহত ২০ মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা মামলা সংসদ সদস্য রানার জামিন স্থগিত নিখোঁজের ৫ দিন পর এনজিও কর্মী সাবিনার মরদেহ উদ্ধার বরিশালে ঐতিহ্যবাহী শ্মশান দীপালি উৎসব অনুষ্ঠিত জিম্মি রাজনৈতিক ও স্থানীয় পেশিশক্তির কাছে ঝুট বাণিজ্য ঘরে ঘরে বিস্তৃত ক্যাবল ব্যবসা আমলাতান্ত্রিক জটিলতার কবলে ইন্টারনেট এখন বিলাস সামগ্রী নয় অতি প্রয়োজনীয় সেবাখাত লঘুচাপের প্রভাবে রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে বৃষ্টি এশিয়া কাপ হকিতে আজ চীনের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ পটিয়ায় নির্মিত হয়েছে ‘বীরকন্যা প্রীতিলতা সাংস্কৃতিক ভবন’

বরগুনার সরকারি হাসপাতালে চিকিৎসক সংকট: বিঘ্নিত স্বাস্থ্যসেবা

প্রকাশিত: ০৮:০৫ , ১৩ আগস্ট ২০১৭ আপডেট: ০৮:০৫ , ১৩ আগস্ট ২০১৭

বরগুনা প্রতিনিধি: বরগুনার মা ও শিশু কল্যাণ কেন্দ্রসহ সরকারি হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসক সংকটে বিঘ্নিত হচ্ছে প্রসূতি মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা কার্যক্রম। অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক না থাকায় মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রে প্রসূতির অস্ত্রোপচার সম্ভব হচ্ছে না।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল ও পাঁচ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতেও নেই যথেষ্ট গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক। ফলে সরকারি হাসপাতাল ও স্বাস্থ্যকেন্দ্রের সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন রোগীরা।

বরগুনা জেলা সদরে ২০০০ সালে স্থাপিত হয় ২০ শয্যার মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্র। এই স্বাস্থ্যকেন্দ্রে একজন অ্যানেসথেশিয়া, একজন গাইনি চিকিৎসক এবং চারজন স্বাস্থ্য পরিদর্শকের পদ রয়েছে। তবে অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসকের পদটি আজ আট বছর ধরে শূন্য।

জেলা পরিবার পরিকল্পনা বিভাগ জানিয়েছে, অবকাঠামোগত সুযোগ-সুবিধা থাকার পরও কেবলমাত্র অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক সংকটে মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রে প্রসূতির অস্ত্রোপচার করা যাচ্ছে না, যদিও বিষয়টি মন্ত্রণালয়ে বার বার জানানো হয়েছে।

এ ছাড়া বরগুনা জেনারেল হাসপাতাল ও পাঁচ উপজেলার স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সগুলোতেও নেই অন্তঃসত্ত্বা নারীদের জন্য গাইনি ও অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক।

বরগুনা জেনারেল হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক জানান, দুজন গাইনি বিশেষজ্ঞ ও একজন অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসকের পদ থাকলেও, রয়েছেন মাত্র একজন। চিকিৎসক সংকট কাটাতে মন্ত্রণালয়ে চাহিদাপত্র পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

এ অবস্থায় বিনামূল্যের সরকারি স্বাস্থ্যসেবা থেকে বঞ্চিত হয়ে রোগীদের বাধ্য হয়েই যেতে হচ্ছে বেসরকারি ক্লিনিকে। বরগুনা অঞ্চলের মা ও শিশুর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে জেনারেল হাসপাতাল, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স এবং মা ও শিশুকল্যাণ কেন্দ্রে চিকিৎসকদের শূন্য পদ শিগগিরই পূরণের দাবি জানালেন স্থানীয়রা।
 

এই সম্পর্কিত আরো খবর

কুতুপালং ক্যাম্প পরিদর্শনে চুমকী

সীমান্তে ফের বেড়েছে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ

কক্সবাজার প্রতিনিধি: মিয়ানমারে সেনাবাহিনীর নির্যাতন অব্যাহত থাকায় সীমান্তে আবারো বেড়েছে রোহিঙ্গা অনুপ্রবেশ। উখিয়ার আঞ্জুমানপাড়া...

সীমান্ত থেকে কুতুপালং ক্যাম্পে আনা হলো ৩০ হাজার রোহিঙ্গা

কক্সবাজার প্রতিনিধি: সীমান্তের শূন্য রেখায় অবস্থান করা প্রায় ৩০ হাজার রোহিঙ্গাদেরকে কুতুপালং ক্যাম্পে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। বৃহস্পতিবার...

বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের উজিরপুর অংশ খানাখন্দময়, ঘটছে দুর্ঘটনা

বরিশাল প্রতিনিধি: খানাখন্দে ভরা বরিশাল-ঢাকা মহাসড়কের উজিরপুর উপজেলার ২৩ কিলোমিটার অংশে  প্রতিনিয়তই ঘটছে দুর্ঘটনা। প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে...

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

Message is required.
Name is required.
Email is