নির্বাচনী সহিংসতায় পাঁচ জেলায় সাতজনের মৃত্যু

প্রকাশিত: ১১:১৭, ২৮ নভেম্বর ২০২১

আপডেট: ১১:১৭, ২৮ নভেম্বর ২০২১

নিজস্ব সংবাদদাতা: তৃতীয় ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে পাঁচ জেলায় নির্বাচনী সহিংসতায় সাতজন নিহত হয়েছেন। রোববার (২৮শে নভেম্বর) মুন্সিগঞ্জে ২জন, নরসিংদীতে ২জন, লক্ষীপুরে ১জন, যশোরে ১জন ও খুলনায় ১জনের মৃত্যু হয়েছে। 

মুন্সিগঞ্জ সদর উপজেলায় মোল­াকান্দিতে নির্বাচন পরবির্তী সহিংসতায় দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। নরসিংদীর রায়পুরার চান্দেরকান্দি দাইরেরপাড় সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে ভোট গণনার পর পুলিশের গাড়িতে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এসময় এক সিএনজি চালকের মৃত্যু হয়েছে। চার পুলিশসহ আহত হয়েছে ১০জন। এছাড়া, সদর উপজেলার চিনিশপুর, নজরপুর ও করিমপুর ইউনিয়নের বিভিন্ন ভোট কেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণ ও হামলা-পাল্টা হামলায় পুলিশ সদস্যসহ আরও ১০জন আহত হয়েছে। 

ল²ীপুরের রামগঞ্জ উপজেলার ইছাপুরে নৌকা প্রতীকের এক সমর্থকের উপর হামলা চালায় আনারস প্রতীকে স্বতন্ত্র প্রার্থীর সমর্থকরা। আহত ব্যক্তি পরে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যান।  

গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর ইউনিয়নের বৌলজান সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ব্যালট পেপার ছিনতাই হওয়ায় ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়। নেত্রকোণার কলমাকান্দায় কেন্দ্র দখল করে ব্যালট পেপার ছিনতাই ও সিল মারার অভিযোগে খারনৈ ইউনিয়নের বামনগাও মিশনারী স্কুল কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ বন্ধ করা হয়। 

কুমিল­ার হোমনা ও দাউদকান্দির দু’টি কেন্দ্রে জাল ভোট দেওয়াকে কেন্দ্র করে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয় দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে। এদিকে বরুড়ার ঝলম ইউনিয়নের ডেউয়াতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে প্রিজাইডিং অফিসারকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। ঘটনার পর ওই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ স্থগিত করে ইসি।

এর আগে, যশোরের শার্শা উপজেলার কায়বা ইউনিয়নে নির্বাচনী সহিংসতায় শনিবার রাতে একজন নিহত হয়েছেন। নির্বাচনী সহিংসতায় খুলনার তেরখাদা উপজেলার মধুপুর ইউনিয়নে এক ব্যক্তি মারা গেছেন। শনিবার দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ওই ব্যক্তি রোববার সকালে মারা যান। এছাড়া, বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির দায়ে নাটোর, রংপুর ও ফেনীতে ১৩ জনকে আটক করেছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী।

MBK/JP

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *

loading...
loading...