পায়রা বিদ্যুৎ কেন্দ্রে জ্বালানি সংকটের আশংকা

প্রকাশিত: ০৭:৪৭, ১৫ জানুয়ারি ২০২২

আপডেট: ০৮:২১, ১৫ জানুয়ারি ২০২২

ফাহিম মোনায়েম: জ্বালানি সংকটে পড়তে পারে পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র। মাসে প্রায় দেড় লাখ টন কয়লা লাগে এখানে, যার পুরোটাই আসে ইন্দোনেশিয়া থেকে। কিন্তু চলতি মাস থেকে ইন্দোনেশিয়া কয়লা রফতানি বন্ধ করেছে। বর্তমানে মজুদ দুই লাখ টন কয়লা দিয়ে মাস খানিক চলবে পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র। তবে অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে কয়লা আমদানির পরিকল্পনা করছে কর্তৃপক্ষ। তাতে সময় ও খরচ দুটোই বাড়বে। 

পটুয়াখালিতে ১৩২০ মেগাওয়াটের পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রথম ইউনিটে উৎপাদন শুরু হয়েছে গেলো বছর। ৬৬০ মেগাওয়াটের এই ইউনিটে বছরে ১৮ লাখ টন কয়লা লাগে, যার পুরোটাই আমদানি হয় ইন্দোনেশিয়া থেকে।

অভ্যন্তরীণ চাহিদা বেড়ে যাওয়ায় চলতি জানুয়ারি মাস থেকে কয়লা রফতানির ওপর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে ইন্দোনেশিয়া। তাতে পায়রা তাপ বিদ্যুত কেন্দ্রে কয়লার যোগান পাওয়া নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। উৎপাদন চালু রাখতে এই ইউনিটে প্রতিদিন গড়ে পাঁচ হাজার টন কয়লা লাগে। বর্তমানে মজুদ আছে দুই লাখ টন। প্রকল্প পরিচালক জানান, মজুদ শেষ হওয়ার আগেই বিকল্প বাজার থেকে কয়লা আমদানি করা হবে।

কয়লা আমদানির জন্য অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকার দিকে নজর দিচ্ছে সরকার। ইন্দোনেশিয়া থেকে কয়লা আনতে প্রতি টনে খরচ হয় ১৭০ মার্কিন ডলার। আর সময় লাগে ১০দিন। অস্ট্রেলিয়া ও দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আনতে সময় লাগবে ২২ দিন থেকে ২৫ দিন। প্রতি টনে খরচ হতে পারে ১৯০ থেকে ২০০ ডলার।

দেশে কয়লানির্ভর ৬টি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের কাজ চলছে। এরমধ্যে পায়রার একটি ইউনিট চালু হয়েছে। রামপাল বিদ্যুৎ কেন্দ্র উৎপাদনে যাওয়ার অপেক্ষায় আছে। এ অবস্থায় আগে থেকেই কয়লা পাওয়া নিশ্চিত করার তাগিদ দেন এই জ্বালানি  বিশেষজ্ঞ। কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলো পুরোপুরি চালু হলে বছরে প্রায় আড়াই কোটি টন কয়লার প্রয়োজন হবে। 

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *

loading...
loading...