সুশাসন প্রতিষ্ঠায় পুলিশের পেশাদারিত্ব প্রশংসনীয়: প্রধানমন্ত্রী আপডেট: ০২:৪০, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০১৭

রাজশাহী প্রতিনিধি: পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় জনগণের মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার ও আইনের শাসনকে গুরুত্ব দেয়ার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

রাজশাহীর সারদা পুলিশ একাডেমিতে সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজে প্রধানমন্ত্রী বলেন, গণতন্ত্রের ধারাবাহিকতা রক্ষা ও সুশাসন প্রতিষ্ঠায় পুলিশের পেশাদারিত্ব প্রশংসিত হয়েছে।

বিসিএস ৩৪তম ব্যাচে নিয়োগ পাওয়া সহকারী পুলিশ সুপারদের প্রশিক্ষণ সমাপনী কুচকাওয়াজে যোগ দিতে হেলিকপ্টারে ঢাকা থেকে রাজশাহীর সারদা পুলিশ একাডেমিতে যান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। পুলিশের নবীন কর্মকর্তাদের কুচকাওয়াজ পরিদর্শন এবং সালাম গ্রহণ করেন তিনি। পরে কৃতী কর্মকর্তাদের হাতে পদক তুলে দেন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের প্রচলিত আইন, সততা এবং উন্নত মূল্যবোধে হবে নবীন কর্মকর্তাদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের পথনির্দেশক।

হাসিনা বলেন, "আপনাদের জীবনের এই গুরুত্বপূর্ণ মুহূর্তে আপনারা দেশমাতৃকাকে ভালোবেসে আপনাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালন করবেন।"  

শেখ হাসিনা বলেন, সংকটময় মুহূর্তে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা সাহসিকতার সাথে দায়িত্ব পালন করেছেন। জঙ্গিবাদ দমনে পুলিশের দক্ষতা ও সক্ষমতা প্রশংসিত।

এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, "আমাদের পুলিশ বাহিনী, আমাদের গোয়েন্দা সংস্থাসমূহ অত্যন্ত দক্ষতার সাথে তাঁদের দায়িত্ব পালন করে যাচ্ছেন। জনগণের জানমালের যেমন নিরাপত্তা দিচ্ছেন, সন্ত্রাসিদের খুঁজে বের করার যথোপযুক্ত ব্যবস্থা নিয়ে দেশ ও জাতির সার্বিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করছেন।

নবীন কর্মকর্তাদের গৌরবময় ইতিহাসের ধারাবাহিকতা রক্ষা করে পেশাগত দায়িত্ব পালনের সময় জনগণের মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার ও আইনের শাসনকে সর্বাধিক গুরুত্ব দেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

হাসিনা বলেন, "পুলিস সদস্যদের দায়িত্ব পালনের সময় জনগণের মৌলিক অধিকার, মানবাধিকার এবং আইনের শাসনকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিতে হবে। শৃঙ্খলা, পশাগত দায়িতে, সততা অ নিষ্ঠার সঙ্গে দেশের অ জনগণের সার্বিক কল্যাণে কাজ করে যাবেন।"

পুলিশ বাহিনীর আধুনিকীকরণের সরকারের নেয়া বিভিন্ন পদক্ষেপের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, জনগণের প্রত্যাশা অনুযায়ী পেশাদার ও জনবান্ধব পুলিশ গঠনে তার সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।