ঢাকা, রবিবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৭, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৪, ২৯ সফর ১৪৩৯
শিরোনামঃ
ইতিহাস মুছে ফেলা যায় না, বিশ্ব স্বীকৃতিই তার প্রমাণ : প্রধানমন্ত্রী প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষা শুরু, অংশ নিচ্ছে ৩১ লাখ শিক্ষার্থী সাভার-আশুলিয়া শিল্পাঞ্চলে গ্যাস সংকট, উৎপাদন ব্যাহত মাগুরায় শিশুদের মধ্যে ঠাণ্ডাজনিত রোগের প্রকোপ রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শন করবেন ইইউসহ তিন দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ঢাকায় বাংলাদেশ ও চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর বৈঠক রোহিঙ্গা ক্যাম্প পরিদর্শনে কক্সবাজারে মার্কিন প্রতিনিধিদল রোহিঙ্গা শিশুদের ১৭ হাজার মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুঁকিতে  গাইবান্ধায় কচুর চাষে স্বাবলম্বী দুই হাজার কৃষক বান্দরবানের সড়কগুলো চলাচলের অনুপযোগি মাগুরায় শিশুদের মধ্যে ঠাণ্ডাজনিত রোগের প্রকোপ  সহায়ক সরকারের অধীনেই নির্বাচন দিতে হবে মুক্তিযুদ্ধের স্বপক্ষের সবাইকে যোগ দেয়ার আহ্বান পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া রুটে ফেরি চলাচলে বিঘ্ন, যাত্রীদের দুর্ভোগ রোহিঙ্গা: জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদে মিয়ানমারের বিরুদ্ধে প্রস্তাব পাস  লক্ষ্মীপুরে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যু, চিকিৎসকসহ আটক ৪  চুয়াডাঙ্গায় মুক্তিযোদ্ধা মনোয়ার হত্যা মামলায় ২জনের ফাঁসি কার্যকর রোহিঙ্গা সংকট সমাধানের তাগিদ বিভিন্ন দেশের খ্যাতনামা লেখকদের নীতিমালা চূড়ান্ত হচ্ছে আগামী মাসেই প্রশাসনের সরাসরি হস্তক্ষেপের তাগিদ বাজার বিশ্লেষকদের
"সংবাদ উৎসব" ক্যাটেগরিতে ব্রাউজ করুন

আয়ুর্বেদিক ঔষধে সুফল পাওয়া সময়সাপেক্ষ, রোগীর ধৈর্য্য জরুরী

নিজস্ব প্রতিবেদক : পুরাণ ঢাকার গেন্ডারিয়ায় ১৯১৪ সালে যাত্রা শুরু করে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা সেবা প্রতিষ্ঠান সাধনা ঔষধালয়। রসায়ন শিক্ষাবীদ, আয়ুর্বেদশাস্ত্রী যোগেশ চন্দ্রের হাত ধরে যাত্রা করা এই প্রতিষ্ঠানে প্রাচীন ভারতীয় আয়ুর্বেদ শাস্ত্রের মূল কাঠামোকে ঠিক রেখে ভেষজ, প্রাণীজ এবং খনিজ উপাদানের সহায়তায় তৈরি করা হত ১৫০ টির বেশি আয়ুর্বেদ...

দেশে বৈধ ও লাইসেন্সধারী আয়ুর্বেদিক ডাক্তারের সংখ্যা ৫ হাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশে প্রতিবছর চিকিৎসা সেবা নেয়া রোগীদের ২২ শতাংশ আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা নেন-- এমন পর্যবেক্ষন বাংলাদেশ ইউনানী ও আয়ুর্বেদিক বোর্ডের। এলোপ্যাথিক চিকিৎসার আধুনিক সময়েও আয়ুর্বেদিকের ওপর আস্থা রাখেন অনেকে। এমন রোগীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে বলে মত সংশ্লিষ্টদের।    আশির দশকে ২ টি প্রতিষ্ঠান আয়ুর্বেদিক চিকিৎসা শাস্ত্রের ওপর এক...

ব্রিটিশদের হাত ধরে ভারতবর্ষে অ্যালোপ্যাথিক চিকিৎসা ব্যবস্থার যাত্রা শুরু

নিজস্ব প্রতিবেদক : শুধু অসুস্থদের সারিয়ে তোলাই নয়, সুস্থদের রোগমুক্ত রাখাও আয়ুর্বেদিক চিকিৎসার মন্ত্র। মানব সভ্যতার বিকাশের শুরু থেকেই এর যাত্রা। প্রায় পাঁচ হাজার বছর আগে প্রাচীন ভারতে এর প্রচলন শুরু হলেও ব্যক্তি পর্যায়ে তারও আগে থেকে ছিল চর্চা। প্রকৃতি থেকে পাওয়া বিভিন্ন ভেষজ উদ্ভিদ, খনিজ উপকরণ এবং প্রাণীজ পদার্থে রোগমুক্তির সমাধান...

বেকারিগুলোর স্বাস্থ্যকর পরিবেশ নিশ্চিতের তাগিদ উদ্যোক্তা ও ভোক্তাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক: যেকোন খাদ্যের সাথেই পুষ্টিগুন জড়িত। ময়দা, চিনি, দুধ দিয়ে পবিস্কুট তৈরী জায়গাটির পরিবেশর নিয়ে মাঝে মধ্যেই অভিযোগ ওঠে। ফলে বিস্কুটের সাথে স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি তৈরির আশংকাও আলোচিত হয়। সেই বাস্তবতা পাল্টাচ্ছে বলে এই শিল্প উদ্যোক্তাদের পর্যবেক্ষণ। এছাড়া আছে আইন প্রয়োগকারী সংস্থার কড়া নজরদারি। বিস্কুট তৈরীতে অনেক সময়...

দেশে বিস্কুটের বাজার পাঁচ হাজার কোটি টাকার, বাড়ছে ১৫ শতাংশ হারে

নিজস্ব প্রতিবেদক: পাঁচ বা দশ পয়সা দিলেই ছোট ছোট গোটা পাঁচেক গোল বিস্কুট মিলতো দেশে মাত্র তিন দশক আগেও। রাস্তার ধারে চায়ের ছোট দোকানেও ২ টাকার নিচে নয় একটি বিস্কুটের দাম। এসব বিস্কুট কোন পাড়ার ক্ষুদ্র বেকারিতে বানানা হয়। যত বার বেকারি দাম তত বেশি, আর প্যাকেটজাত হলেও মানের ওপর দাম বাড়ে। টাকার অংকে দেশে বিস্কুটের বাজারের আকার বড় হয়ে এখন প্রায়...

দেশে বর্তমানে প্রায় ৫ লাখ টন বিস্কুট উৎপাদন হচ্ছে, আগ্রহী হচ্ছেন উদ্যোক্তারা

নিজস্ব প্রতিবেদক: খাদ্যাভ্যাস ও রুচির পরিবর্তন ও চাহিদা বৃদ্ধি গত এক-দেড় দশকে দেশে বিস্কুট ও বেকারি পণ্যের উৎপাদন শুধু বাড়ায়নি বৈচিত্রও এনেছে। বেকারি খোলা বিস্কিটে যেমন বিবর্তন ঘটেছে তেমনি প্যাকেটজাত বিস্কিটেও রয়েছে এর ছোয়া। একসময় হাতে গোনা কয়েকটি বৃহৎ কোম্পানী দেশে প্যাকেটজাত বিস্কুট তৈরি করতো, আর এখন করে প্রায় ১০০ কোম্পানি। যার...

বিদেশি বণিকদের আনা বিস্কুট এখন দেশের অন্যতম ক্ষুদ্রশিল্প

নিজস্ব প্রতিবেদক: বিস্কুট নামের খাদ্য পণ্যটির মধ্যে যেন যাদু আছে। একজন অবুঝ শিশু হয়তো চিৎকার করে কাঁদছে, কোন ভাবেই শান্ত করা যাচ্ছেনা তাকে; হয়তো দেখা যাবে একটি বিস্কুট সামনে ধরতেই তা দেখে বা হাতে নিয়ে শান্ত হয়ে গেল। একসময় এই অঞ্চলে শুকনো খাবারের মধ্যে চিড়া-মুড়ি-গুড়ের কদর ও ব্যবহার চির ব্যাপক। সেই যায়গাটা যেন দখর করে নেয় বিস্কুট। মধ্যযুগে...

বিশ্বের ১১ দেশে রপ্তানি হচ্ছে দেশের চকলেট

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশি শিল্প সুরক্ষায় ২০০৮-০৯ অর্থবছরেও চকলেট আমদানিতে শুল্ক ছিল ২০০ শতাংশ। তবে বিগত বছরগুলোতে তা ক্রমাগত কমে এখন ২০ শতাংশে নেমেছে। ফলে দেশের বাজারে আমদানিকৃত চকলেটের সাথে প্রতিযোগিতায় পারছে না এসব কোম্পানি। বাধাগ্রস্ত হচ্ছে দেশিয় চকলেট শিল্পের বিকাশ।   এত প্রতিবন্ধকতার পরেও দেশের চকলেট-লজেন্স ও ক্যান্ডি দেশীয়...

দেশিয় চকলেটের বাজার প্রতি বছর এক হাজার কোটি টাকার

নিজস্ব প্রতিবেদক : নব্বই দশকের শেষের দিকে আধুনিক প্রযুক্তি ব্যবহার করে বিদেশি চকলেটের সাথে প্রতিযোগীতায় নামে দেশিয় কিছু কোম্পানি। তার ধারাবাহিকতায়  প্রাণ, অলিম্পিক, কোকোলা ফুড, এলসন ফুডসহ বেশ কয়েকটি কোম্পানি চকলেট তৈরি করছে। ঢাকার বাজারে এখন বিদেশি চকলেটের পাশাপাশি দেশীয় চকলেটেরও সরব উপস্থিতি দেখা যায়। চকলেটে আকৃষ্ট ৯০ ভাগ শিশু...

ক্যান্ডি ও চকলেট তৈরি করছে দেশে আটটি বড় কোম্পানি

নিজস্ব প্রতিবেদক: দেশের চকলেট শিল্পে মূলত ক্যান্ডি ও লজেন্স বেশি তৈরি হয়। চিনি, গ্লুকোজ ও গুড়া দুধ দিয়ে সেগুলো প্রস্তুত করা হয়। চকলেট তৈরি হয় কোকোয়া পাউডার দিয়ে। সম্প্রতি কোকোয়া পাউডার বাইরে থেকে আমাদিন করে চকলেটে তৈরি হচ্ছে দেশে।   চিনি গলিয়ে কাঠিতে এমন চকলেট ও লজেন্স তৈরির স্থানীয় প্রচলন অনেক আগে থেকেই। এখনো সেই বাজার ধরে রেখেছে...

দেশীয় চকলেট শিল্পের প্রথম সরকারি কারখানার বেহাল দশা

নিজস্ব প্রতিবেদক: আবির্ভাবের শুরুতে চকলেট ছিল তরল। পানীয় হিসেবে তৈরি হয়। তবে তা এখনকার মতো সুস্বাদু ছিল না, ছিল তেতো। ১৭০০-১৮০০ শতকে ইউরোপে আসে পানযোগ্য চকলেট হিসেবে৷ এরপর ১৯ ও ২০ শতকে কোকো দিয়ে শক্ত পদার্থ হিসেবে চকলেট বানানো শুরু হয়। এরপরেই সারা পৃথিবীতে পরিচিত লাভ করে এবং মানুষের কাছে লোভনীয় খাবারে পরিণত হয়।   বাংলাদেশে স্বাধীনতার...

পর্যটন শিল্পের বিকাশে প্রয়োজন সুপরিকল্পিত উদ্যোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক : পর্যটন কেন্দ্র ও পর্যটকের সংখ্যা সিলেট অঞ্চলে বাড়লেও বিদেশী পর্যটক খুব কম। তবে পর্যবেক্ষকদের মতে, সকল সীমাবদ্ধতা দূর করে সুপরিকল্পিত উদ্যোগ নিলে সিলেট অঞ্চলের সম্ভাবনাময় পর্যটন শিল্পের বিকাশ যেমন ঘটবে, আšর্জাতিক পর্যটকদেরও টানতে পারবে।   সিলেটে সাম্প্র্রতিককালের জনপ্রিয় পর্যটন কেন্দ্র বিছানাকান্দি যাওয়ার...

প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা তেমনটা বাড়েনি

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে সিলেট অঞ্চলের সাথে যোগাযোগ ব্যবস্থা ভালো।  এই অঞ্চলের অধীবাসীদের অনেকে প্রবাসী, ফলে আর্থিক স্বচ্ছলতাও বেশী, যা সিলেটের পর্যটন খাতকে সমৃদ্ধ করতে বিশেষ সহায়ক। তবে সিলেটের পর্যটন নিয়ে দেশের ভ্রমন পিপাসুদের আগ্রহ অনেক বাড়লেও সে তুলনায় প্রয়োজনীয় সুযোগ-সুবিধা তেমনটা বাড়েনি। মাটির দেখা নেই।...