সিলেটে অভিযুক্ত ৬ ধর্ষকের ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ

প্রকাশিত: ০৫:২০, ০১ অক্টোবর ২০২০

আপডেট: ০৫:৪৭, ০১ অক্টোবর ২০২০

সিলেট সংবাদদাতা: সিলেট মুরারী চাঁদ (এমসি) কলেজে স্বামীকে বেঁধে রেখে স্ত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় অভিযুক্ত ছয় ধর্ষকের ডিএনএ পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।  আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুর পৌনে ১টার দিকে কঠোর নিরাপত্তায় তাদের হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগে নেওয়া হয়। পরে হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে স্থাপিত ডিএনএ ল্যাবের বিশেষজ্ঞরা আসামিদের ডিএনএ সংগ্রহ করেন। এরপর দুপুর দেড়টায় তাদের আবারো শাহপরান থানায় নিয়ে যাওয়া হয়।

যাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে তারা হলেন সাইফুর রহমান, মাহবুবুর রহমান রনি, অর্জুন লস্কর, রবিউল ইসলাম, রাজন, আইনুদ্দিন ওরফে আইনুল। তবে তারেকুল ইসলাম তারেক মাহফুজুর রহমান মাছুমকে হাসপতালে আনা হয়নি।

সিলেট নগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ কমিশনার (মিডিয়া) জ্যোতির্ময় সরকার জানান, শুধু তারেক মাহফুজ ছাড়া আপাতত ছয় আসামির ডিএনএ পরীক্ষার নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে।

ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাপসাতালের উপ-পরিচালক ডা. হিমাংশু লাল রায় জানান, ধর্ষণ মামলার ছয় আসামিকে পুলিশ মেডিক্যাল কলেজ আনলে তাদের ডিএনএ স্যাম্পল সংগ্রহ করা হয়।

শুক্রবার (২৫ সেপ্টেম্বর) এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে স্বামীকে আটক রেখে নারীকে ছাত্রলীগের ছয়জন নেতাকর্মী মিলে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে ওই দম্পতিকে ছাত্রাবাস থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। পরে ধর্ষণের শিকার তরুণীকে সিলেট ওসমানী মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওসিসি সেন্টারে ভর্তি করা হয়।

ঘটনায় শনিবার ভোরে ছয়জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতপরিচয় আরো / জনকে অভিযুক্ত করে নগরের শাহপরান থানায় মামলা (২১()২০২০) দায়ের করেন গৃহবধূর স্বামী। মামলার এজাহারনামীয় আসামিরা হলেন- সাইফুর রহমান (২৮), তারেকুল ইসলাম ওরফে তারেক আহমদ (২৮), শাহ মাহবুবুর রহমান ওরফে রনি (২৫), অর্জুন লস্কর (২৫), রবিউল ইসলাম (২৫) মাহফুজুর রহমান ওরফে মাসুম (২৫)

এছাড়া ঘটনার পর অভিযানে নেমে সাইফুরের কক্ষ থেকে অস্ত্র উদ্ধার করে পুলিশ। ঘটনায় আলাদা আরেকটি মামলা দায়ের করেন শাহপরান (.) থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মিল্টন সরকার।

ঘটনায় ্যাব পুলিশ এজাহারভুক্ত ছয় আসামির সবাইসহ আরও সন্দেহভাজন দুজনকে গ্রেফতার করে। তারা সবাই বর্তমানে পাঁচদিনের পুলিশ রিমান্ডে রয়েছেন। গ্রেফতারকৃত সবাই ছাত্রলীগকর্মী বলে জানা গেছে।

ঘটনায় রোববার দুপুরে সিলেট মহানগর হাকিম (তৃতীয়) আদালতের বিচারক শারমিন খানম নিলার কাছে সেই রাতের ঘটনার জবানবন্দি দেন নির্যাতনের শিকার গৃহবধূ। সময় তিনি ঘটনার বিস্তারিত বর্ণনা দেন। আদালত গৃহবধূর জবানবন্দি রেকর্ড করে তাকে পরিবারের জিম্মায় দিয়ে দেন।

এই বিভাগের আরো খবর

নিক্সন চৌধুরীর জামিন চেম্বার আদালতেও বহাল

নিজস্ব প্রতিবেদক: নির্বাচন কমিশনের...

বিস্তারিত
নোয়াখালীতে মা-কে হত্যার রহস্য উদঘাটন

নোয়াখালী সংবাদদাতা: নোয়াখালীর...

বিস্তারিত
পূজায় নাশকতার কোন আশংকা নেই: র‌্যাব ডিজি

নিজস্ব প্রতিবেদক: দুর্গাপূজাকে...

বিস্তারিত
জাল ভিসা তৈরি চক্রের মূলহোতা মিরপুরে আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক: রাজধানীর মিরপুর...

বিস্তারিত
কায়সারের মৃত্যু পরোয়ানা পৌঁছেছে কারাগারে

নিজস্ব প্রতিবেদক: একাত্তরের মানবতা...

বিস্তারিত
লাইফ সাপোর্টে ব্যারিস্টার রফিক-উল হক

নিজস্ব সংবাদদতাতা: সুপ্রিম কোর্টের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *