শিশুদের স্মৃতিশক্তি বাড়াতে যা করবেন

প্রকাশিত: ০৯:৩৭, ০৮ নভেম্বর ২০২০

আপডেট: ০৯:৩৭, ০৮ নভেম্বর ২০২০

অনলাইন ডেস্ক: স্মৃতিশক্তি তুখোড় হলে নতুন জিনিস শিখতে এবং মুখস্ত করা সহজ হয়। এটি শিশুকে স্কুলে আরও ভালো পারফরম্যান্স করতে, অভিজ্ঞতা সমৃদ্ধ করতে এবং প্রয়োজনীয় জীবন দক্ষতা তৈরি করতে সহায়তা করে।

শক্তিশালী স্মৃতি নিয়ে আমরা জন্ম নেই না। অন্য যেকোনো দক্ষতার মতো এটিও বিভিন্ন উপায়ে অর্জিত হয় এবং যত বেশি অনুশীলন করবেন ততই উন্নত হবে। শিশুর স্মৃতিশক্তি তীক্ষ্ণ করার জন্য কিছু কৌশলের কথা উল্লেখ করা হলো:

শরীরচর্চা

শরীরচর্চা করার অভ্যাস সবারই প্রতিদিনের কাজের তালিকায় রাখা উচিত। শিশুদের প্রতিদিন শরীরচর্চার অভ্যাস থাকলে আরও ভালো। শারীরিকভাবে সক্রিয় থাকলে তাদের মস্তিষ্কের কার্যকারিতা বাড়াতে সহায়তা করে।

মেডিটেশন

মেডিটেশন শুধু বড়দের জন্য নয়। এটি শিশুদের জন্য একইভাবে কাজ করে। কীভাবে ধ্যান করতে হয় তা আপনার শিশুকে অল্প বয়সে শেখান। এতে করে ভালো অভ্যাস তৈরি হয়, যা তাদের দীর্ঘকালীন উপকারে আসে। মেডিটেশন শিশুকে কেবল শান্ত করে না, পাশাপাশি তাদের স্মৃতিশক্তি বাড়িয়ে তুলতে সহায়তা করে।

শেখা এবং শেখানো

বলা হয়ে থাকে যে, আপনি যদি কিছু সত্যিই বুঝতে পেরে থাকেন তবে অন্যের কাছে এটি ব্যাখ্যা করা সহজ। আপনার সন্তানের সাথে এই কৌশলটি ব্যবহার করুন। যখন তারা কোনো নতুন বিষয় শেখে, তাদের বা তাদের ছোট ভাইবোনকে শেখাতে বলুন। এটি তাদের দ্বিধাবোধকে পরিষ্কার করবে।

রঙের ব্যবহার

শিশুর মস্তিষ্কে যেকোনো তথ্য দীর্ঘদিন রাখতে চাইলে রঙের ব্যবহার করুন। আমাদের মস্তিষ্ক প্রতি সেকেন্ডে কয়েক বিলিয়ন সংবেদনশীল তথ্যের একটি ছোট্ট অংশ ফিল্টার করে। রং হলো এমন একটি জিনিস যা সহজেই এই ফিল্টারে ধরা পড়ে। তাই দক্ষতার সাথে রং ব্যবহার করা উচিত। বিভিন্ন বর্ণের সাথে গুরুত্বপূর্ণ প্যাসেজ হাইলাইট করা এবং পাঠ্যপুস্তকে স্টিকি নোট ব্যবহার করা উপকারী হতে পারে।

ডিজিটাল ডিটক্স

বিভিন্ন গ্যাজেটের অত্যধিক ব্যবহার শিশুর মস্তিষ্কের কাঠামো পরিবর্তন করতে পারে। এটি তাদের ঘনত্বের স্তর এবং তথ্য খুব দীর্ঘ সময়ের জন্য ধরে রাখার ক্ষমতা হ্রাস করে। আপনার শিশুর গ্যাজেট ব্যবহারের সময় সীমাবদ্ধ করুন। এর পরিবর্তে তাদের বই পড়া এবং অন্যান্য বহিরঙ্গন ক্রিয়াকলাপে জড়িত হতে উৎসাহিত করুন।

ব্যক্তিগত উদাহরণ

আপনার শিশুকে কোনো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ব্যাখ্যা করার সময়, শক্তিশালী স্মৃতি তৈরি করতে ব্যক্তিগত উদাহরণ ব্যবহার করুন। বিষয়টির চারপাশের গল্প এটি দ্রুত মুখস্ত করতে সহায়তা করবে এবং এটি পুনরায় স্মরণ করা সহজ হবে। এটি মুখস্থ করার একটি মজাদার উপায়।

পুষ্টি

সঠিক পুষ্টি ব্যতীত, ভালো স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস অর্জন করা কঠিন। আমাদের ডায়েট মস্তিষ্কসহ শরীরে সঞ্চালিত সমস্ত কার্যক্রমে একটি বড় ভূমিকা পালন করে। স্বাস্থ্যকর ডায়েট মস্তিষ্কের কার্যকারিতা উন্নত করতে পারে এবং পরবর্তী জীবনে স্মৃতিশক্তি হ্রাস রোধ করতে পারে। ওমেগা -, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট এবং ফ্ল্যাভোনয়েড সমৃদ্ধ খাবার মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যের উন্নতি করে।

এই বিভাগের আরো খবর

সবচেয়ে পুষ্টিকর কয়েকটি খাবার

অনলাইন ডেস্ক: আমরা যেসব ফল বা শাকসবজি...

বিস্তারিত
শরীর সুস্থ রাখতে শীতের খাবার

অনলাইন ডেস্ক: শীতের শুরুতে বাড়ে...

বিস্তারিত
সুজি দিয়ে মজাদার রসগোল্লা

অনলাইন ডেস্ক: রসগোল্লা বানাতে হলে...

বিস্তারিত
ওজন কমাতেও পানি!

অনলাইন ডেস্ক: পানির আরেক নাম জীবন।...

বিস্তারিত
যেভাবে ইনডোর প্লান্ট করবেন

অনলাইন ডেস্ক: আমাদের অনেকের বাগান...

বিস্তারিত
ব্যায়ামের পর যেসব খাবার একেবারেই নয়

অনলাইন ডেস্ক: সুস্বাস্থ্যের জন্য...

বিস্তারিত
ত্বকের সৌন্দর্য বাড়াতে কলার ফেসপ্যাক

অনলাইন ডেস্ক: ত্বক কোমল রাখতে চাইলে...

বিস্তারিত
সৌন্দর্য বাড়াতে ‘বেদানা’

অনলাইন ডেস্ক: বেদানা খাদ্যগুণে...

বিস্তারিত
যেসব কারণে ঘুম আসে না 

অনলাইন ডেস্ক: ঘুম নিয়ে কোনো না কোনো...

বিস্তারিত
কালো ঠোঁট গোলাপি করার উপায়

অনলাইন ডেস্ক: কেবল একজোড়া...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *