তুরাগের বুকে ইটভাটা

প্রকাশিত: ১০:০৭, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১

আপডেট: ০২:৫০, ২২ ফেব্রুয়ারি ২০২১

পার্থ রহমান: রাজধানীর একদিকে বুড়িগঙ্গা, অন্য তিনদিকে শীতলক্ষ্যা, বালু আর তুরাগ নদ। কিন্তু দখলদারিত্বের কারণে অস্তিত্ব সংকটে এসব নদ-নদী। কোথাও শিল্প-কারখানা, কোথাও বাড়িঘর আর কোথাওবা ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান গড়ে চলছে নদী দখল। অনেকে নদীর ভেতরের জায়গা দখল করে গড়ে তুলেছেন ইটের ভাটা। 

প্রাচীনকালের অনেক সভ্যতাই গড়ে উঠেছিলো নদী তীরবর্তি অববাহিকায়। তেমনিভাবেই একসময় বুড়িগঙ্গার তীরে গড়ে ওঠে রাজধানী ঢাকা। কিন্তু দখলদারিত্বের কারণে বিপন্ন এই নদী। একই অবস্থা ঢাকার চারপাশ ঘিরে থাকা বালু, তুরাগ আর শীতলক্ষ্যারও। 

ঢাকা শহরের চারপাশ ঘিরে আছে ৬০ কিলোমিটারেরও বেশী নদ-নদী। শতবছর আগের সিএস জরিপ অনুযায়ী নদীর যে সীমানা ছিলো, দখলদারিত্বের কারণে তা এখন অর্ধেকেরও নীচে নেমে এসেছে। 

বুড়িগঙ্গা ও বালু নদের সীমানার মধ্যেই গড়ে তোলা হয়েছে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান ও স্থাপনা। বিভিন্ন ভবন গড়ে তোলা হয়েছে শীতলক্ষ্যা নদীর তীর দখল করে। আর তুরাগ দখল করে গড়ে ওঠেছে একের পর এক ইটভাটা। নদনদীর পাড় দখল করে বসতবাড়ি আর ব্যবসা প্রতিষ্ঠান গড়ে ওঠার চিত্র আছে প্রায় সব এলাকায়। 

গবেষকরা বলছেন, সমাজের উচ্চবিত্ত থেকে ভূমিহীন, সবাই নদী দখলের প্রতিযোগিতায় লিপ্ত। দখলবাজদের লাগাম টানতে না পারলে নদীগুলোর অস্তিত্ব বিলীন হওয়ার আশঙ্কা করছেন তারা। 

নদনদী রক্ষায় দখলদারদের বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন জোরদারের পাশাপাশি বিদ্যমান আইনের কঠোর প্রয়োগ চাইলেন বিশেষজ্ঞরা। 

এই বিভাগের আরো খবর

দখলমুক্ত হচ্ছে না রাজধানীর ফুটপাত

ফাহিম মোনায়েম: অনেকটা ঢাকঢোল পিটিয়ে...

বিস্তারিত
পিলখানা ট্রাজেডি দিবস আজ

আশিক মাহমুদ: বাংলাদেশের ইতিহাসের...

বিস্তারিত
করোনা টিকার কার্যকারিতা জানতে জরিপ

ইমদাদুল্লাহ বাবু: করোনা টিকার...

বিস্তারিত
নদ-নদী দখলমুক্ত করার অভিযানে ধীরগতি

পার্থ রহমান: রাজধানীকে ঘিরে থাকা চার...

বিস্তারিত
অনুমোদন ছাড়াই কেরাণীগঞ্জে সারি সারি ভবন 

তারেক সিকদার: কর্তৃপক্ষের অনুমোদন...

বিস্তারিত
আদালতে বাড়ছে বাংলা ভাষার ব্যবহার

এজাজুল হক মুকুল: উচ্চ আদালতে ইংরেজি...

বিস্তারিত
খাসজমি উদ্ধারে কঠোর আইন হচ্ছে

শাহনাজ ইয়াসমিন: সারাদেশের বেদখল হওয়া...

বিস্তারিত
রাজধানীর পথ-খাবারে বিপজ্জনক ব্যাকটেরিয়া

শেখ হারুন: নিজের অজান্তেই খাবারের...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *