বইমেলায় ভাঙনের সুর

প্রকাশিত: ১১-০৪-২০২১ ১৯:৫০

আপডেট: ২৫-০১-২০২২ ১০:০৩

নিজস্ব প্রতিবেদক: অমর একুশে বইমেলার খোলা প্রান্তরে এখন শূন্যতার ছোঁয়া। পাঠক সমাগম খুব একটা নেই। বিশেষ করে দুপুর বেলায় মেলায় ছিলো চৈত্র্যের হাহাকার। বিক্রেতাদের অলস সময় পার করতে দেখা গেছে। প্রবেশ ফটকগুলোতে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের ছিলো না তল্লাশি নিয়ে ব্যস্ততা। শেষ হওয়ার এক দিন আগেই যেন বাজতে শুরু করেছে ভাঙনের সুর।

চিরায়ত প্রথা ভেঙে মহামারি করোনার মধ্যে ১৮ মার্চ শুরু হয় এবারের একুশে বইমেলা। প্রতিবছর মেলার শেষ দিকে ক্রেতা ও দর্শনার্থীদের বেশ ভিড় দেখা গেলেও এবার তা ছিলো না। অনেকটাই ক্রেতাশূন্য বইমেলা। প্রকাশকরা জানালেন, করোনা অতিমারি ও এই কারণে সরকারি বিধিনিষেধের কারণে এবারের শেষদিকের মেলা জমে ওঠেনি।

মেলার স্টল তৈরি, কর্মীদের বেতন-ভাতা এবং বই প্রকাশের যে খরচ, তা এবার উঠবে না বলে আশঙ্কা করছেন বিক্রেতা ও প্রকাশকেরা। এ ছাড়া বারবার সময় পরিবর্তন, করোনা পরিস্থিতির অবনতি এবং ভিন্ন সময়ে মেলা হওয়ায় বড় ধরনের ক্ষতি হয়েছে বলে জানান স্টল মালিকরা।

প্রকাশকরা বলছেন, এবার নিয়ম রক্ষা ও গুটিকয়েক প্রকাশকের ব্যবসা রক্ষার বইমেলা হয়েছে। মেলাটা না হলেই ভালো হতো বোধ করি।

করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণের জন্য আগামী ১৪ এপ্রিল কঠোর লকডাউন শুরু হতে যাচ্ছে, তাই নির্ধারিত সময়ের দুই দিন আগেই আগামীকাল সোমবার (১২ এপ্রিল) শেষ হচ্ছে এবারের বইমেলা।

/admiin