দিনে ফেরি বন্ধ, ঘাটে হাজারো যাত্রী

প্রকাশিত: ০৩:১০, ০৮ মে ২০২১

আপডেট: ০৯:৪৯, ০৮ মে ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক: দূরপাল্লার বাস বন্ধ থাকলেও ঈদের আগে রাজধানী ছাড়ছে নগরবাসী। মাইক্রোবাস কিংবা প্রাইভেটকার বা অন্য উপায়ে যে যেভাবে পারছেন বাড়ির পথ ধরেছেন। ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ঘাটে পারাপারের জন্য অপেক্ষায় হাজারো মানুষ। মানা হচ্ছে না স্বাস্থ্যবিধি। 

কেউ পায়ে হেটে, কেউবা প্রাইভেটকারে, মাইক্রোবাসে ও সিএনজি অটোরিকশায় কয়েকগুণ বেশি ভাড়ায় ঝুঁকি নিয়ে যাচ্ছেন বাড়িতে। জেলার অভ্যন্তরে গণপরিবহন চলাচল করায় একের পর এক যানবাহন বদলিয়ে গন্তব্যে ছুটছে মানুষ। এতে ভোগান্তি বেড়েছে কয়েকগুণ।

এদিকে দিনের বেলায় ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় ঘাটগুলোতে ভিড় জমে অপেক্ষমান যাত্রীদের। ব্যক্তিগত গাড়ি, মোটরসাইকেল ও নানা উপায়ে পদ্মা ও যমুনার ঘাটে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়েন ঈদে ঘর মুখি মানুষ। ঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় আটকে থাকে শত শত যানবাহন।

এর আগে, দিনের বেলায় ফেরি চলাচল বন্ধ করে দেয়ায় ঘাটগুলোতে ভিড় অপেক্ষমান যাত্রীদের। ব্যক্তিগত গাড়ি, মোটরসাইকেল ও নানা উপায়ে পদ্মা ও যমুনার ঘাটে গিয়ে ভোগান্তিতে পড়েন ঈদে ঘর মুখি মানুষ। ঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় আটকে থাকে শত শত যানবাহন।

করোনার সংক্রমণ রোধে দিনে ফেরি চলাচল বন্ধ ঘোষণা করায় পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ও শিমুলিয়া-বাংলাবাজার ঘাটে আটকা পড়ে শত শত যানবাহন ও যাত্রী। পণ্যবাহী যানবাহনের পাশাপাশি বিকল্প নানা বাহনে ঘাটে আসা যাত্রীরা ভোর থেকেই অপেক্ষা করেন। কেউ কেউ নদী পার হতে না পেরে ফিরেও যান। তবে শুধুমাত্র অ্যাম্বুলেন্সসহ জরুরী সেবাদানকারী যানবাহন এক সঙ্গে ৮ থেকে ১০টি হলে, ছোট ফেরি দিয়ে পারাপার করা হয়। 

বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যাত্রীর চাপও বাড়ছে। বিআইডব্লিউটিএ সকাল থেকে ঘাট এলাকায় মাইকিং করলেও যাত্রীরা ঘাট থেকে সরছিলেন না। 

ঘাট কর্তৃপক্ষ শনিবার দুপুরে জানান, শিমুলিয়া ঘাটে তখনও ৪ শতাধিক ট্রাক ও পিকআপ ভ্যান এবং ৭টি অ্যাম্বুলেন্স পারাপারের অপেক্ষায় ছিলো। ব্যক্তিগত ছোট গাড়ি তেমন একটা ছিলো না। হাজার হাজার যাত্রী ঘাটে পার হওয়ার জন্য জড়ো হয়েছেন। একই চিত্র পাটুরিয়া- দৌলতদিয়া ঘাটেও। দুই পাড়ে অপেক্ষামান ছিলো ৫ শতাধিক ট্রাক ও হাজারো যাত্রী।

এর আগে, গতকাল শুক্রবার ফেরিতে যাত্রীর চাপ বেড়ে যায় এবং গাদাগাদি করে সবাই ফেরি পার হয়। এতে করোনা সংক্রমণ বাড়ার আশঙ্কায় গতরাতে ফেরি বন্ধের সিদ্ধান্ত নেয় বিআইডব্লিউটিসি কর্তৃপক্ষ।

বিআইডব্লিউটিসি মহাব্যবস্থাপক এস এম আশিকুজ্জামান বৈশাখী টেলিভিশনকে এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি জানান, করোনার সংক্রমণ বাড়ায় আগে থেকেই সিদ্ধান্ত ছিলো ফেরিতে পণ্যবাহী যানবাহন, অ্যাম্বুলেন্স পারাপার করবে। তবে ঈদ উপলক্ষে শুক্রবার বাড়িফেরা হাজার হাজার মানুষ ফেরিতে পারাপার হয়েছে। 

তিনি আরও জানান, দিনে শুধুমাত্র ছোট ফেরিতে জরুরি প্রয়োজনে আসা যানবাহন, অ্যাম্বুলেন্স পারাপারের উদ্যোগ নেয়া হবে। 

SAT/SAT

এই বিভাগের আরো খবর

জমি নিয়ে বিরোধে একজন খুন

ভৈরব সংবাদদাতা : জমি নিয়ে পূর্ব...

বিস্তারিত
‘মানুষ ও দেশের কল্যাণে পুলিশকে কাজ করতে হবে’

রাজশাহী সংবাদদাতা : বাংলাদেশ পুলিশের...

বিস্তারিত
নাটোরে রাইফেলের ৩৭৯টি গুলি উদ্ধার

নাটোর সংবাদদাতা : নাটোরে ড্রেন খুঁড়তে...

বিস্তারিত
নারী পোশাক শ্রমিক ধর্ষণ, গ্রেফতার ২

গাজীপুর সংবাদদাতা: গাজীপুরের...

বিস্তারিত
ভারতফেরত ৬ বাংলাদেশি আটক

সাতক্ষীরা সংবাদদাতা: অবৈধপথে ভারত...

বিস্তারিত
করোনায় রাজশাহী মেডিকেলে ১২জনের মৃত্যু

নিজস্ব সংবাদদাতা: রাজশাহী মেডিকেল...

বিস্তারিত
মাগুরছড়া ট্র্যাজেডি দিবস আজ

মৌলভীবাজার সংবাদদাতা: ১৪ই জুন,...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *