কোনোভাবেই রোগীর সংখ্যা বাড়তে দেয়া যাবেনা : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ০৮:৫৪, ১৩ মে ২০২১

আপডেট: ০৯:৪৮, ১৩ মে ২০২১

নিজস্ব প্রতিবেদক: পবিত্র ঈদুল ফিতর উপলক্ষে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, করোনা অতিমারির এই সময়ে সতর্কভাবে আনন্দ উদযাপন করতে হবে। কোনোভাবেই রোগীর সংখ্যা বাড়তে দেওয়া যাবে না। প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস শুধু মানুষের জীবন কেড়ে নিচ্ছে না, এই ভাইরাস বিশ্ব অর্থনীতিকে বিপর্যস্ত করে ফেলেছে। সংক্রমণ এড়াতে লক-ডাউন বা সাধারণ ছুটি বলবৎ করতে হয়েছে। 

জনগণের প্রতি অনুরোধ জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আপনারা আবেগের বশবর্তী হয়ে আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে ঈদের ছুটি কাটাতে যাবেন না। অনেকের কোন বাহ্যিক লক্ষণ না থাকায় আপনি বুঝতে পারবেন না আপনার পাশের ব্যক্তিটিই করোনাভাইরাস বহন করছে। এর ফলে আপনি যেমন করোনাভাইরাসের ঝুঁকিতে পড়বেন, তেমনি আপনার নিকটাত্মীয় বা পাড়া-প্রতিবেশিকে ঝুঁকির মুখে ফেলবেন। মনে রাখবেন, সবার উপরে মানুষের জীবন। বেঁচে থাকলে আসছে বছর আবার আমরা আনন্দঘন পরিবেশে ঈদ উদযাপন করতে পারবো।’

শেখ হাসিনা বলেন, করোনা ভাইরাসের বিস্তার প্রতিরোধে গত বছরের মত এ বছরও ঈদগাহ ময়দানে ঈদের জামাত অনুষ্ঠানে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে। মসজিদে মসজিদে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে ঈদের নামাজ আদায় করতে হবে। 

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আসুন, আমরা সবাই যে যেখানে আছি সেখান থেকেই ঈদের আনন্দ উপভোগ করি। বিত্তবান যাঁরা আছেন বা যাঁদের সামর্থ্য আছে, তাঁদের প্রতি অনুরোধ, এই দুঃসময়ে আপনার দরিদ্র প্রতিবেশি, গ্রামবাসী বা এলাকাবাসীর পাশে দাঁড়ান।’ 

করোনাভাইরাসের সংক্রমন প্রতিরোধে সরকার সর্বাত্মক ব্যবস্থা নিয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আক্রান্তদের চিকিৎসায় সর্বোচ্চ উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। গত বছর মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে এ পর্যন্ত ৬ হাজার ১৬৬ জন ডাক্তার, ৫ হাজার ৫৪ জন নার্স এবং প্রায় সাড়ে ৪ হাজার অন্যান্য স্বাস্থ্যকর্মী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। জেলা হাসপাতালগুলোসহ দেশের ১৩০টি সরকারি হাসপাতালে কেন্দ্রিয়ভাবে অক্সিজেন সরবরাহ ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে। 

শেখ হাসিনা বলেন, অক্সফোর্ড-এস্ট্রাজেনেকা’র টিকা দিয়ে গণটিকার কার্যক্রম শুরু হয়। তবে ঐ টিকার সরবরাহ ব্যবস্থায় কিছুটা সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে। তবে বিকল্প উৎস থেকে টিকা আনা হচ্ছে। দেশেই যাতে টিকা উৎপাদন করা যায় সে ব্যবস্থাও নেয়া হয়েছে। দেশের সকল নাগরিককেই টিকার আওতায় আনা হবে। 

সরকার জীবন ও জীবিকার মধ্যে একটা সামঞ্জস্য বজায় রাখার চেষ্টা করে যাচ্ছে বলে উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী। বলেন, গত বছর করোনাভাইরাস আঘাত হানার পর থেকে চলতি মাস পর্যন্ত সর্বমোট এক লাখ ঊনত্রিশ হাজার ছয়শত তের কোটি টাকার সহায়তা কর্মসূচি ঘোষণা করা হয়েছে। 

শেখ হাসিনা বলেন, মনের সব কালিমা দূর করে, মানুষে মানুষে ভেদাভেদ ভুলে একে অপরের সঙ্গে মিলিয়ে যাওয়ার মধ্যেই ঈদের আনন্দ। হিংসা-বিদ্বেষ, ঘৃণা, লোভ, অহমিকা, ক্রোধ, অহঙ্কারের মতো কুপ্রবৃত্তি থেকে মুক্ত হয়ে সাম্য, ভ্রাতৃত্ব, ঐক্য, সৌহার্দ্য, সম্প্রীতির বন্ধনে আবদ্ধ হওয়ার আহবান জানান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 
 

JP/JP

এই বিভাগের আরো খবর

আগামী তিনদিন বৃষ্টিপাত বাড়বে

নিজস্ব প্রতিবেদক: উত্তর পশ্চিম...

বিস্তারিত
নির্বাচনে সবার জন্যই সমান সুযোগ : সিইসি

বরিশাল সংবাদদাতা: সিইসি কে এম নূরুল...

বিস্তারিত
এবছরও হজে যেতে পারছেন না বাংলাদেশিরা

নিজস্ব প্রতিবেদক: করোনা অতিমারির...

বিস্তারিত
দেশে করোনায় আরো ৩৯ জনের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক:  দেশে গত ২৪ ঘণ্টায়...

বিস্তারিত
ব্যাংকের ১০০ কোটি টাকা নিয়ে উধাও!

নিজস্ব প্রতিবেদক: নাম সর্বস্ব ব্যবসা...

বিস্তারিত
সর্বক্ষেত্রে উপেক্ষিত বিধিনিষেধ

শাহনাজ ইয়াসমিন: করোনার দ্বিতীয়...

বিস্তারিত
বিশ্ব শিশুশ্রম প্রতিরোধ দিবস আজ

নিজস্ব প্রতিবেদক: আজ শনিবার (১২ই জুন)...

বিস্তারিত
নেত্রকোনায় সড়কে প্রাণ গেলো ২ জনের  

নেত্রকোনা সংবাদদাতা: নেত্রকোনায়...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *