উড়োজাহাজে ভ্রমণে করনীয়

প্রকাশিত: ১২:০১, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

আপডেট: ১২:০১, ১৩ সেপ্টেম্বর ২০২১

অনলাইন ডেস্ক: করোনাভাইরাসের কারণে  দীর্ঘ লকডাউন শেষে একটু নড়েচড়ে বসেছে দেশগুলো। শর্ত সাপেক্ষে অনেক দেশে শুরু হয়েছে উড়োজাহাজ চলাচল। স্বাস্থ্যবিধি মেনেই উড়োজাহাজ ভ্রমণ করা যাবে এই সময়ে। যদিও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, উড়োজাহাজে সংক্রমণের ঝুঁকি অনেক কম। তবে উড়োজাহাজে সংক্রমণের ঝুঁকি কেবল সংক্রমিত ব্যক্তির সংস্পর্শ এবং তার সংস্পর্শে আসা কোনো বস্তু। উড়োজাহাজের একই সিট, সিটের হাতল, দরজার হুক ইত্যাদি অনেকেই ব্যবহার করেন। তাই নিরাপদে উড়োজাহাজে যাতায়াত করার ক্ষেত্রে কিছু বিষয়ে সচেতন থাকা প্রয়োজন।

প্রয়োজনীয় জিনিষ
কিছু জিনিস অবশ্যই ভ্রমণের সময় আপনার সাথে বহন করা উচিত। সে তালিকায় একটি হ্যান্ড স্যানিটাইজার, জীবাণুনাশক ওয়াইপস, টিস্যু এবং মাস্ক রাখতে হবে। এই জিনিসগুলো আপনাকে ভাইরাস রোধ করতে সাহায্য করবে।

স্পর্শের আগে সতর্কতা 
উড়োজাহাজে ওঠার আগে এটিএম, চেক-ইন মেশিন, এসকেলেটর বা লিফট এবং অন্য যেকোনো ডিভাইস ব্যবহারের সময় সতর্ক থাকা উচিত। অন্যরা যেগুলো স্পর্শ করেছে; সেগুলো ব্যবহার করার সময় গ্লাভস পরে নিন। একইভাবে ফোন এবং ওয়ালেটের মতো নিজের জিনিসগুলো সম্পর্কে সচেতন হোন। সুরক্ষা চেক চলাকালীন এগুলো ব্যাগের মধ্যে না রেখে একটি ব্যাগে রাখুন। ফোনটি অন্তত দিনে দিনে দু’বার জীবাণুনাশক দিয়ে মুছে ফেলা উচিত।

দূরত্ব বজায় রাখুন
সবখানেই প্রযুক্তি এবং অটোমেশনের উপর নির্ভর করার চেষ্টা করুন। মেশিন থেকে বোর্ডিং পাস নেওয়ার পর হাত স্যানিটাইজ করুন। বিমানবন্দরের ভেতরে কেনাকাটার ক্ষেত্রে কোনো কিছু স্পর্শ না করার চেষ্টা করুন। কর্মীদের কাছ থেকে ৬ ফুট দূরত্ব বজায় রাখুন। স্পর্শহীন বিকল্প ব্যবহার করে টাকা দেওয়ার চেষ্টা করুন।

জানালা খুঁজে নিন
কোনো উড়োজাহাজে আসন বেছে নেওয়ার সময় উইন্ডোটি বেছে নিন। এক সমীক্ষায় দেখা গেছে, উড়োজাহাজের জীবাণু এড়ানোর সর্বোত্তম উপায় হলো উইন্ডো সিটে বসা। সংক্রমিত যাত্রীরা তাদের পাশের দু'টি সিটের চেয়ে সামনে বা পেছনে দূরে বসে থাকা যাত্রীকে সংক্রমিত করবে না। এছাড়া হাত পরিষ্কার রেখে চোখ, নাক এবং মুখের সংস্পর্শ এড়ানোর মাধ্যমে সংক্রমণের ঝুঁকি দূর করা যায়।

চারপাশ পরিস্কার করা
আসন নেওয়ার সময় আপনার চারপাশের শক্ত জিনিসগুলোর উপর দ্রুত জীবাণুনাশক স্প্রে করুন। কারণ আপনার সিটের পেছনের সিট ফ্ল্যাপ, ট্রে টেবিল, আর্ম রিস্টসগুলোয় সংক্রামক শ্বাস-প্রশ্বাসের ফোঁটা জীবিত থাকতে পারে। এছাড়াও মনে রাখবেন, করোনাভাইরাস আপনাকে এই জাতীয় বস্তু থেকে সরাসরি সংক্রমিত করবে না। যখন আপনি কোনো সংক্রমিত বস্তু স্পর্শ করেন এবং তারপর আপনার মুখ স্পর্শ করেন, তখন ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে।

বিমানের পানি নয়
উড়োজাহাজে ট্যাঙ্কগুলো থেকে আনা পানি সব সময় পরিষ্কার না-ও হতে পারে। তাই উড়োজাহাজের দেওয়া পানি পান না করাই ভালো। তার চেয়ে বরং চা বা কফি পান করুন। যা সাধারণত ওই পানি থেকে তৈরি নয়।

অসুস্থ হলে বাড়ি থাকুন
এ মুহূর্তে এটি সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। জ্বর, সর্দি, কাশি, ঠান্ডা লাগার মতো অসুস্থ হলে বাড়িতেই থাকুন। জ্বর পুরোপুরি ভালো না হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করা উচিত। কেননা ভাইরাসটি সম্পর্কে সবারই সতর্ক থাকা উচিত।

MHS/MSI

এই বিভাগের আরো খবর

আইল্যান্ড পিক জয় করলেন বাংলাদেশের বিথী

নিজস্ব প্রতিবেদক: এবার হিমালয়ের...

বিস্তারিত
১৫ই নভেম্বর থেকে ভ্রমণ ভিসা দেবে ভারত

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সংবাদদাতা: করোনা...

বিস্তারিত
মৌলভীবাজারে ট্যুরিস্ট বাস চালু 

মৌলভীবাজার সংবাদদাতা: মৌলভীবাজারে...

বিস্তারিত
বদলে গেছে সাজেক 

খাগড়াছড়ি সংবাদাতা: পার্বত্য...

বিস্তারিত
ভুল্লী নদীর বাঁধ পর্যটনের সম্ভাবনা

ঠাকুরগাঁও সংবাদদাতা: ঠাকুরগাঁওয়ের...

বিস্তারিত
১৭ মাস পর চালু দার্জিলিংয়ের টয় ট্রেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: দীর্ঘ ১৭ মাস পর...

বিস্তারিত
লঞ্চের ৬০ শতাংশ বর্ধিত ভাড়া বাতিল

নিজস্ব প্রতিবেদক: আগামীকাল থেকে...

বিস্তারিত
বন্ধই থাকছে পর্যটন ও বিনোদন কেন্দ্র

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলমান বিধিনিষেধ...

বিস্তারিত
ভ্রমণ নিষেধাজ্ঞা তুলে নিল ইউরোপ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: যুক্তরাষ্ট্রসহ...

বিস্তারিত
ঘুরে আসুন গাবরাখালী

ভ্রমন ডেস্ক: প্রকৃতির টানে শহরের...

বিস্তারিত
দুই মাস পর কক্সবাজারে বিমান চলাচল শুরু 

কক্সবাজার সংবাদদাতা:  প্রায় দুই মাস...

বিস্তারিত

0 মন্তব্য

আপনার মতামত প্রকাশ করুন

মন্তব্য প্রকাশ করুন

আপনার ইমেইল ঠিকানা প্রচার করা হবে না. প্রয়োজনীয় ক্ষেত্রগুলি চিহ্নিত করা আছে *