তিন মাসে ডলারের দাম বেড়েছে ৩ টাকা

প্রকাশিত: ০৯-১১-২০২১ ১৪:৫০

আপডেট: ২৫-০১-২০২২ ০৯:৫৮

ইউসুফ রানা: করোনায় সীমিত হয়ে পড়া অর্থনৈতিক কার্যক্রম আবারও শুরু হওয়ায় দেশে ডলারের চাহিদা বেড়েছে। এর ফলে বাড়ছে দাম। তিন মাসের ব্যবধানে কেন্দ্রিয় ব্যাংক ডলারের দাম বাড়িয়েছে ৩ টাকা। আর খোলা বাজারে বেড়েছে ৪ থেকে ৫ টাকা। এর ফলে প্রবাসী ও রপ্তানিকারকরা সুবিধা পেলেও শিল্পের কাঁচামাল আমাদানিতে খরচ বাড়ছে। অভ্যন্তরীণ বাজারে এর নেতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আশঙ্কা ব্যবসায়ীদের। সংকট মোকাবেলা করতে না পারলে করোনা পরবর্তী অর্থনীতি পুণরুদ্ধার বাধাগ্রস্ত হবে বলে মনে করেন আর্থিক খাত বিশ্লেষকরা।

করোনা অতিমারির প্রকোপ কমে আসায় বিশ্বব্যাপি অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড আবারও বাড়ছে। দেশেও ভারী যন্ত্রপাতি, খাদ্যপণ্য ও শিল্পের কাঁচামাল আমদানি বেড়েছে। করোনাভাইরাসের টিকা এবং করোনাকালে বন্ধ থাকা এলসির অর্থ পরিশোধ শুরু হয়েছে। এছাড়া, পেশাগত কাজ, শিক্ষা, চিকিৎসা এবং ভ্রমণের জন্য বিদেশে যাতায়াত বাড়ছে। এসব কার্যক্রমে ডলার ব্যবহার হওয়ায় অভ্যন্তরীণ বাজারে ডলারের চাহিদা বেড়েছে কয়েক গুণ।

এর ফলে দফায় দফায় বাড়ছে ডলারের দাম। তিন মাসের ব্যবধানে ৩ টাকা বেড়েছে দাম। এখন ৮৮ টাকায় ডলার বিক্রি করছে কেন্দ্রিয় ব্যাংক। আর খোলাবাজারে ডলারের দাম ৯০ টাকা ছাড়িয়েছে।

ব্যবসায়ীরা জানান, ডলারের দাম বৃদ্ধির প্রভাবে শিল্পের কাঁচামাল আমদানিতে খরচও বাড়ছে। ফলে অভ্যন্তরীণ বাজারে পণ্যের দাম বাড়তে পারে।

সংকট থেকে উত্তরণে কেন্দ্রীয় ব্যাংককে রিজার্ভ থেকে বাজারে চাহিদা অনুযায়ি ডলার বিক্রির পরামর্শ দিয়েছেন অর্থনীতিবিদরা। না হলে মুদ্রাষ্ফীতি আরো বাড়বে বলে আশঙ্কা অর্থনীতিবিদদের।

/admiin